সরকারি কর্মকর্তাদের বার্ষিক কর্মকৃতি মূল্যায়নে অ্যানুয়াল পারফরম্যান্স অ্যাপ্রাইজাল রিপোর্ট-এপিএআর সংক্রান্ত একটি খসড়া প্রকাশ করেছে সরকার। মঙ্গলবার জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের ওয়েবসাইটে অংশীজনদের মতামত প্রদানের জন্য এই অনুশাসনমালার খসড়া প্রকাশ করা হয়েছে।

এটি অনুমোদন হলে সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীর বাৎসরিক গোপন প্রতিবেদনের (এসিআর) পরিবর্তে এটি ব্যবহৃত হবে। নবম থেকে দ্বিতীয় গ্রেড পর্যন্ত সব সরকারি কর্মকর্তার বার্ষিক কর্মকৃতি মূল্যায়ন হবে এপিএআরের মাধ্যমে। এপিএআরের কার্যক্রম সুষ্ঠুভাবে পরিচালনা ও বাস্তবায়নের লক্ষ্যে এটি প্রণয়ন করা হয়েছে। এপিএআর একটি অনলাইন সফটওয়্যারের মাধ্যমে পরিচালিত হবে।

জানা যায়, বর্তমান এসিআরের পুরোটাই ব্যক্তিগত ও পেশাগত বৈশিষ্ট্যের মূল্যায়ন হয়। যেমন- ব্যক্তিত্ব, সময়ানুবর্তিতা, সততা ইত্যাদির মতো ২৫টি মানদণ্ড আছে। কিন্তু সংশ্নিষ্ট কর্মচারী বছরব্যাপী কী কাজ করেছেন, করলে ঠিকমতো করেছেন কিনা সেটার মূল্যায়ন নেই। অর্থাৎ বিদ্যমান এসিআরের ১০০ নম্বরের পুরোটাই বৈশিষ্ট্যনির্ভর। কিন্তু এপিএআরে কর্মচারীর ব্যক্তিগত বৈশিষ্ট্যের নম্বর থাকে ৪০। আর বছরব্যাপী কাজের মূল্যায়নের নম্ব্বর হবে ৬০।

বর্তমানে এসিআরের সময়কাল জানুয়ারি থেকে ডিসেম্ব্বর। এপিআরএতে সময়কাল হবে অর্থবছরকেন্দ্রিক অর্থাৎ জুলাই থেকে জুন পর্যন্ত। কারণ এপিএআরকে অ্যানুয়াল পারফরম্যান্স অ্যাগ্রিমেন্টের (এপিএ) সঙ্গে যুক্ত করে মূল্যায়ন করা হবে। প্রত্যেক কর্মচারীর নিজস্ব অর্জন ও প্রাতিষ্ঠানিক অর্জন মিলিয়ে এপিএআর নির্ধারণ হবে।