‘প্রত্যেকে আমরা পরের তরে’ এই থিমকে নিয়ে প্রথমবারের মতো ব্যাপক উৎসাহ ও উদ্দীপনায় শনিবার আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা ইনস্টিটিউট অডিটোরিয়ামে বাংলাদেশ স্কাউটস দিবস উদযাপিত হয়েছে। এ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি।

প্রধান স্কাউট ব্যক্তিত্ব হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ স্কাউটস এর প্রধান জাতীয় কমিশনার দুর্নীতি দমন কমিশনের কমিশনার ড. মো. মোজাম্মেল হক খান। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন বাংলাদেশ স্কাউটসের সভাপতি ও সিভিএফ প্রেসিডেন্সি বাংলাদেশের বিশেষ দূত মো. আবুল কালাম আজাদ। স্কাউট প্রথা অনুসারে প্রার্থনা সংগীত পরিবেশন শেষে বাংলাদেশ স্কাউটস এর তথ্যচিত্র প্রদর্শন করা করা হয়। অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য দেন জাতীয় কমিশনার (স্পেশাল ইভেন্টস) মো. ফসিউল্লাহ।

প্রধান অতিথির ভাষণে দীপু মনি বলেন, স্কাউটিং শিক্ষা কার্যক্রমের অবিচ্ছেদ্য অংশ। তথ্য প্রযুক্তির সম্প্রসারণ, প্রধানমন্ত্রীর রূপকল্প ২০৩০ ও ২০৪১ অর্জনে স্কাউট সদস্যরা বলিষ্ঠ দায়িত্ব পালন করছে। স্কাউটরা হাতে কলমের মাধ্যমে যোগ্যতা অর্জন করে দুর্যোগ-দুর্বিপাকে এগিয়ে আসে। তিনি স্কাউট সংখ্যা বৃদ্ধির জন্য প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা অনুসারে সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে দুটি করে ক্লাব, স্কাউট ও রোভার দল গঠন করার এবং স্কাউটিংয়ে মেয়েদের সংখ্যা বৃদ্ধি করে ছেলে-মেয়ের সমতা আনার আহবান জানান।

প্রধান স্কাউট ব্যক্তিত্বের ভাষণে বাংলাদেশ স্কাউটসের প্রধান জাতীয় কমিশনার ড. মো. মোজাম্মেল হক খান বলেন, ১৯০৭ সালে বিশ্বে স্কাউটিং প্রবর্তন হলেও মাত্র সাত বছরের মধ্যে ১৯১৪ সনে ঢাকায় সেন্ট গ্রেগ্ররি স্কুলে স্কাউটিং শুরু হয়। ১৯৭২ সনে মাত্র ৫৬ হাজার স্কাউট নিয়ে যাত্রা শুরু হলেও বর্তমানে স্কাউট সদস্য সংখ্যা ২২ লক্ষ ১০ হাজার। তিনি বলেন, আমরা তরুণদের স্কাউটিং-এর মাধ্যমে এমনভাবে গড়ে তুলতে চাই, তারা যেন পরিবার, দেশ ও জাতির সম্পদ হয়ে গড়ে উঠে। তিনি গার্ল স্কাউট সংখ্যা বৃদ্ধির প্রচেষ্টার কথা উল্লেখ করেন।

দিবসটিকে স্মরণীয় করে রাখতে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর শেখ মুজিবুর রহমান-এর স্কাউট শপথ গ্রহণের ছবি সংবলিত দশ টাকা মূল্যমানের একটি স্মারক ডাকটিকিট, দশ টাকা মূল্যমানের একটি উদ্বোধনী খাম ও একটি উদ্বোধনী সিলমোহর প্রকাশ করেছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গণভবনে উক্ত স্মারক ডাকটিকিট ও উদ্বোধনী খাম অবমুক্ত করেন। দিবসটি উদযাপন উপলক্ষে রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রী পৃথক পৃথক বাণী প্রদান করেন। এই উপলক্ষে স্কাউট ইউনিট, উপজেলা, জেলা ও আঞ্চলিক স্কাউটস পতাকা উত্তোলন অনুষ্ঠান, গুড টার্ন, মাস্ক বিতরণ, সেবামূলক কাজ, র্যা লি ও আলোচনা সভাসহ বিভিন্ন কর্মসূচি গ্রহণ ও বাস্তবায়ন করে।