ঢাকা মঙ্গলবার, ২১ মে ২০২৪

আসানি নিঃশেষ হলেও ঝরবে বৃষ্টি

আসানি নিঃশেষ হলেও ঝরবে বৃষ্টি

সমকাল প্রতিবেদক

প্রকাশ: ১২ মে ২০২২ | ১২:০০ | আপডেট: ১৩ মে ২০২২ | ০২:৩৩

আতঙ্ক তৈরি করলেও তেমন ভোগায়নি ঘূর্ণিঝড় আসানি। শক্তি খুইয়েছে ধেয়ে আসার আগেই। বৃহস্পতিবার চোখ রাঙানি পুরোপুরি মিলিয়ে গেলেও ঝরিয়েছে বৃষ্টি। এতে ডুবেছে ফসল, ডুবেছে কৃষকের স্বপ্ন। ক'দিন থেকে যে বৃষ্টি হচ্ছে, তা আজ শুক্রবারও দেশের বিভিন্ন প্রান্তে থাকতে পারে।

আবহাওয়াবিদরা বলছেন, প্রবল থেকে সাধারণ ঘূর্ণিঝড়, এরপর গভীর নিম্নচাপ, সব শেষে সাধারণ নিম্নচাপ- এভাবেই নিঃশেষ হলো আসানি। ভারতের অন্ধ্রপ্রদেশের সমুদ্র উপকূলেই আসানি হারাল সব দাপট। প্রায় সপ্তাহখানেক ধরে আসানির আসা নিয়ে আলোচনা চলছে। এর প্রভাবে বৃষ্টি হয়েছে। আকাশও মেঘলা ছিল। শঙ্কা ছিল বাংলাদেশে আসবে কিনা। অবশেষে সেই শঙ্কা উড়ে গেল।

আবহাওয়া অধিদপ্তরের উপপরিচালক ছানাউল হক ম ল বলেন, আসানির জন্য দেশের সমুদ্রবন্দরগুলোকে যে হুঁশিয়ারি সংকেত দেখাতে বলা হয়েছিল, তা নামিয়ে ফেলতে বলা হয়েছে। গতকাল ২৪ ঘণ্টায় দেশের সর্বোচ্চ বৃষ্টি হয় সিলেটে ৭৮ মিলিমিটার আর ঢাকায় বৃষ্টি হয় ৩৪ মিলিমিটার।

এদিকে ঘূর্ণিঝড় আসানির পরপরই গত ৮ মে ভারত মহাসাগরে সৃষ্টি হয় ঘূর্ণিঝড় 'করিম'। তখন গণমাধ্যমে খবর এসেছিল, 'করিম' নিয়ে কোনো ঝুঁকি নেই। যদিও গত দু'দিন ধরে বিভিন্ন গণমাধ্যমে সংবাদ মিলছে যে, আরেকটি ঘূর্ণিঝড় ধেয়ে আসছে।

এ বিষয়ে কানাডার সাসকাচুয়ান ইউনিভার্সিটির আবহাওয়া ও জলবায়ুবিষয়ক বাংলাদেশি পিএইচডি গবেষক মোস্তফা কামাল পলাশ জানান, দক্ষিণ গোলার্ধে সৃষ্ট ঘূর্ণিঝড় করিম নিয়ে বাংলাদেশে বিভ্রান্তি সৃষ্টি হয়েছে। ঘূর্ণিঝড় করিম ভারত মহাসাগরের দক্ষিণ গোলার্ধের অংশে সৃষ্টি হয়েছিল। দক্ষিণ গোলার্ধের ঘূর্ণিঝড় কখনও উত্তর গোলার্ধে আসে না।

একইভাবে উত্তর গোলার্ধের ঘূর্ণিঝড় দক্ষিণে যায় না। ভারত মহাসাগরের দক্ষিণ গোলার্ধের ঘূর্ণিঝড় পূর্বদিকে অগ্রসর হয়ে অস্ট্রেলিয়ায় আঘাত করে। আর পশ্চিম দিকে অগ্রসর হলে মাদাগাস্কার, সোমালিয়া, জাম্বিয়া, দক্ষিণ আফ্রিকা উপকূলে আঘাত করে। এর কোনো প্রভাব বাংলাদেশে পড়বে না।

আরও পড়ুন

×