ঢাকা শুক্রবার, ২৪ মে ২০২৪

জজ মিয়া কেন ক্ষতিপূরণ পাবেন না, জানতে চান হাইকোর্ট

জজ মিয়া কেন ক্ষতিপূরণ পাবেন না, জানতে চান হাইকোর্ট

সমকাল প্রতিবেদক

প্রকাশ: ২৫ অক্টোবর ২০২২ | ০৭:৫৫ | আপডেট: ২৫ অক্টোবর ২০২২ | ০৭:৫৫

রাজধানীর বঙ্গবন্ধু অ্যাভিনিউয়ে ২০০৪ সালের ২১ আগস্ট তৎকালীন বিরোধীদলীয় নেতা শেখ হাসিনার সমাবেশে ভয়াবহ গ্রেনেড হামলা মামলায় চার বছর কারাভোগ করা মো. জালাল ওরফে জজ মিয়ার সাজা কেন অবৈধ ঘোষণা করা হবে না জানতে চেয়ে রুল জারি করেছেন হাইকোর্ট। তাঁকে পর্যাপ্ত ক্ষতিপূরণ দিতে কেন নির্দেশ দেওয়া হবে না, তাও জানতে চাওয়া হয়। আগামী চার সপ্তাহের মধ্যে সংশ্লিষ্ট ১১ জনকে রুলের জবাব দিতে বলা হয়েছে।

গত ১১ সেপ্টেম্বর এক রিট আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে বিচারপতি মো. মজিবুর রহমান মিয়া ও বিচারপতি কাজী ইজারুল হক আকন্দের হাইকোর্ট বেঞ্চ মঙ্গলবার পৃথক এ রুল জারি করেন। আদালতে রিটের পক্ষে শুনানি করেন ব্যারিস্টার হুমায়ন কবীর পল্লব।

রিটে স্বরাষ্ট্র সচিব, ঢাকার জেলা প্রশাসক, মতিঝিল থানার ওসি, নোয়াখালীর সেনবাগ থানার ওসি, পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ (সিআইডি), সাবেক স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী লুৎফুজ্জামান বাবর, তৎকালীন আইজিপি খোদা বক্স চৌধুরী, সাবেক এএসপি আব্দুর রশিদ, সাবেক এএসপি মুনশি আতিকুর রহমান এবং তৎকালীন বিশেষ পুলিশ সুপার রুহুল আমিনসহ ১১ জনকে বিবাদী করা হয়েছে।

বিএনপি নেতৃত্বাধীন চারদলীয় জোট সরকারের আমলে ওই হামলায় আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীসহ ২২ জন নিহত হন। এ ঘটনায় ২০০৫ সালের ৯ জুন নোয়াখালীর সেনবাগ থেকে ধরে আনা হয় 'জজ মিয়া' নামে ওই যুবককে। ১৭ দিন রিমান্ডে নেওয়ার পর ২৬ জুন আদালতে দেওয়া স্বীকারোক্তিতে জজ মিয়া বলেছিলেন, '৫ হাজার টাকার বিনিময়ে বড় ভাইদের নির্দেশে তিনি অন্যদের সঙ্গে গ্রেনেড হামলায় অংশ নেন। ওই বড় ভাইয়েরা হচ্ছেন শীর্ষ সন্ত্রাসী সুব্রত বাইন, জয়, মোল্লা মাসুদ, মুকুল প্রমুখ।'

তবে ২০০৮ সালে জজ মিয়া দাবি করেন, তাঁকে ভয় দেখিয়ে জবানবন্দি আদায় করা হয়। চার বছর কারাভোগ করার পর ওই বছর তিনি মুক্তি পান।

আরও পড়ুন

×