প্রবীণ রাজনীতিবিদ একুশে পদক প্রাপ্ত সাবেক সমাজকল্যাণ মন্ত্রী এনামুল হক মোস্তফা শহীদ ইন্তেকাল করেছেন (ইন্না...রাজেউন)।
 
বৃহস্পতিবার দুপুরে রাজধানীর স্কয়ার হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মারা যান। খবর বাসসের
 
তার বয়স হয়েছিল ৮২ বছর। তিনি স্ত্রী , দুই ছেলে আত্মীয়স্বজনসহ অসংখ্য গুনগ্রাহী রেখে গেছেন।
 
মরহুমের প্রথম নামাজে জানাযা জাতীয় সংসদ ভবনের পশ্চিম প্লাজায় বিকেল অনুষ্ঠিত হবে। পরে মরদেহ রাজধানীর বারডেম হাসপাতালের হিমাগারে রাখা হবে।
 
শুক্রবার সকাল ১০টায় মরহুমের মরদেহ হেলিকপ্টার যোগে তার নির্বাচনী এলাকা হবিগঞ্জে নিয়ে যাওয়া হবে। সেখানে সকাল ১০টা ৩০ মিনিটে হবিগঞ্জ, দুপুর ২টায় মাধবপুরে এবং বিকাল ৪টায় চুনারুঘাটে তাঁর পরবর্তী নামাজে জানাযা অনুষ্ঠিত হবে।
 
এনামূল হক মোস্তফা শহীদ ১৯৩৮ সালের ২৮ মার্চ হবিগঞ্জের চুনারুঘাট উপজেলার উবাহাটা ইউনিয়নের কুটিরগাঁও গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। তিনি ১৯৭০ এর প্রাদেশিক নির্বাচন, ১৯৭৩, ১৯৯১, ১৯৯৬, ২০০১ ও ২০০৮ এর জাতীয় নির্বাচনে হবিগঞ্জ-চুনারুঘাট আসনে আওয়ামী লীগ প্রার্থী হয়ে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। এছাড়াও তিনি ২১শে পদকসহ বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন পদকে ভূষিত হন। তিনি ২০০৯ সালের ৬ জানুয়ারি থেকে ২০১৪ সালের ১৪ মার্চ পর্যন্ত সমাজকল্যাণ মন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করেন।
 
এনামুল হক মোস্তফা শহীদের মৃত্যুতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গভীর শোক প্রকাশ করেছেন।
 
এক শোক বার্তায় রাজনীতিতে তার অবদানের কথা উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, প্রবীণ এই আইনপ্রণেতা চা বাগান শ্রমিকদের অত্যন্ত প্রিয়নেতা ছিলেন।
 
প্রধানমন্ত্রী স্বাধীনতা যুদ্ধের সংগঠক হিসাবে তার অবদানের কথা স্মরণ করেন এবং বলেন, এই নিবেদিতপ্রাণ ও দেশপ্রেমিক নেতার মৃত্যু দল ও দেশের জন্য বিরাট ক্ষতি।
 
প্রধানমন্ত্রী মরহুমের রুহের মাগফেরাত কামনা করেন এবং শোকসন্তপ্ত পরিবারের সদস্যদের প্রতি গভীর সমবেদনা জানান।

বিষয় : এনামুল হক মোস্তফা শহীদ

মন্তব্য করুন