সরকার নয়, আদালতই খালেদা জিয়াকে জেলে পাঠিয়েছে: প্রধানমন্ত্রী

প্রকাশ: ১১ জুলাই ২০১৮      

অনলাইন ডেস্ক

বুধবার সংসদে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তার জন্য নির্ধারিত প্রশ্নোত্তর পর্বে সাংসদদের বিভিন্ন প্রশ্নের জবাব দেন— ফোকাস বাংলা

সাবেক প্রধানমন্ত্রী হয়েও এতিমের টাকা আত্মসাতের জন্য বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার কঠোর সমালোচনা করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, 'তিনি (খালেদা জিয়া) ১০ বছর নিজেকে নির্দোষ প্রমাণের সুযোগ পেয়েও আদালতে নিজেকে নির্দোষ প্রমাণ করতে পারেননি। সরকার নয়, আদালতই তাকে (খালেদা জিয়া) জেলে পাঠিয়েছে। এটা নারী সমাজের জন্যই লজ্জা।'

বুধবার জাতীয় সংসদে প্রধানমন্ত্রী তার জন্য নির্ধারিত প্রশ্নোত্তর পর্বে সরকারি দলের সদস্য নূরজাহান বেগমের এক সম্পূরক প্রশ্নের জবাবে একথা বলেন। খবর বাসসের

তিনি বলেন, দেশের গণতান্ত্রিক ধারাবাহিকতা অব্যাহত থাকলেই কেবল নারীর ক্ষমতায়নও অব্যাহত থাকবে। আওয়ামী লীগ সরকারের ধারাবাহিকতা না থাকলে দেশের নারী সমাজ তাদের স্বাধীনতা হারাবে এবং তারা পুনরায় নির্যাতন-নিগ্রহের শিকার হতে পারে।

শেখ হাসিনা বলেন, বাংলাদেশের জনগণ দেখেছে ২০০১ সালে বিএনপি-জামায়াত ক্ষমতায় আসার পর নারীদের কি অবস্থা হয়েছিল। তারা ১৯৭১ সালের পাকিস্তানি দখলদার বাহিনীর মতো ঠিক একই কায়দায় নারীদের ওপর অত্যাচার-নির্যাতন চালিয়েছিল।

সে সময় রাজশাহী, খুলনাসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে নারীদের ওপর সংঘটিত পাশবিক নির্যাতনের উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ৬ বছরের ছোট্ট শিশুকে পর্যন্ত গণধর্ষণের শিকার হতে হয়েছিল। অনেকে এই ধর্ষণের শিকার হয়ে মানসিকভাবে বিকারগ্রস্ত হয়ে পড়ে, যাদের সিআরপিতে রেখে চিকিৎসা করতে হয়েছিল। বাংলাদেশে এমন কোনো অঞ্চল নেই যেখানে তাদের এই সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড চালানো হয়নি।

তিনি বলেন, 'সারা বাংলাদেশেই এই বিএনপি-জামায়াতের সন্ত্রাসীরা একটি তাণ্ডব সৃষ্টি করে, যাদের লক্ষ্য ছিল মেয়েরা। যে কারণে ২০০৮ সালের নির্বাচনে তারা (বিএনপি-জামায়াত) ভোট পায়নি, এটা হচ্ছে বাস্তÍবতা।'

শেখ হাসিনা বলেন, দেশে শান্তিপূর্ণ গণতান্ত্রিক চর্চা অব্যাহত থাকলে এবং নাগরিকদের শান্তিপূর্ণভাবে বিচরণ ও কাজ করার সুযোগ থাকলেই কেবল একটি দেশের উন্নয়ন সম্ভব হয়।

আগামী নির্বাচন অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষভাবে আয়োজনে তার সরকারের সংকল্প পুনর্ব্যক্ত করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, স্থানীয় সরকার, উপনির্বাচন থেকে শুরু করে দেশে এই সরকারের সময় ৬ হাজারেরও বেশি নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছে এবং এসব নির্বাচন নিয়ে কোনো প্রশ্ন উত্থাপিত হয়নি।

২০১৪ সালের নির্বাচন বানচালের জন্য বিএনপি-জামায়াতের দেশব্যাপী নৈরাজ্য সৃষ্টি এবং আগুন দিয়ে পুড়িয়ে মানুষ হত্যারও সমালোচনা করেন প্রধানমন্ত্রী।

তিনি বলেন, আওয়ামী লীগ যদি আবার ক্ষমতায় আসে তাহলেই দেশের নারীরা উপকৃত হবে এবং নারী-পুরুষের সম্মিলিত প্রচেষ্টার মাধ্যমেই দেশ আরো এগিয়ে যাবে।

আরও পড়ুন

আসুন ওদের ভুলে যাই!

আসুন ওদের ভুলে যাই!

'কিছু কিছু মানুষ সত্যি খুব অসহায়। তাদের ভালোলাগা, মন্দলাগা, ব্যথা-বেদনাগুলো ...

ঐক্যফ্রন্ট ও ২০ দলে দূরত্ব বাড়ছে

ঐক্যফ্রন্ট ও ২০ দলে দূরত্ব বাড়ছে

একদিকে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট, অন্যদিকে ২০ দলীয় ঐক্যজোট। দুই জোটের নেতৃত্বেই ...

ঝিনুক নেই মোতিও নেই

ঝিনুক নেই মোতিও নেই

চলনবিলে আর ঝিনুক মেলে না। ঝিনুকের মোতিও মেলে না। রুদ্র ...

দিনাজপুরে প্রাণিখেকো উদ্ভিদ

দিনাজপুরে প্রাণিখেকো উদ্ভিদ

প্রাণীদের খেয়ে ফেলে- এমন উদ্ভিদের কথা রূপকথার গল্পে আছে, বাস্তবেও ...

মধ্যপ্রাচ্যে পাটপণ্য রফতানিতে ধস

মধ্যপ্রাচ্যে পাটপণ্য রফতানিতে ধস

কয়েক বছর বিশ্ববাজারে রমরমা ব্যবসার পর বৈশ্বিক অর্থনৈতিক প্রেক্ষাপটে ও ...

চট্টগ্রামে পাইকারি বাজারে অস্থিরতা

চট্টগ্রামে পাইকারি বাজারে অস্থিরতা

জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আগে আমদানি করা চায়না রসুনের প্রতি কেজির ...

জমাট ম্যাচে খুলনাকে হারাল কুমিল্লা

জমাট ম্যাচে খুলনাকে হারাল কুমিল্লা

নিজেদের হতভাগা না ভাবার কারণ নেই খুলনা টাইটান্সের। জয় খরা ...

ভোট ডাকাতি করে কেউ পার পাবে না: ড. কামাল

ভোট ডাকাতি করে কেউ পার পাবে না: ড. কামাল

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ভোটের 'মহাডাকাতি' হয়েছে অভিযোগ করে জাতীয় ...