গুজব ছড়ানোর কথা ফারিয়া স্বীকার করেছেন: পুলিশ

প্রকাশ: ১৮ আগস্ট ২০১৮      

 সমকাল প্রতিবেদক

ফারিয়া মাহজাবিন

নিরাপদ সড়কের দাবিতে শিক্ষার্থীদের আন্দোলনের সময় গুজব ছড়ানোর কথা স্বীকার করেছেন ফারিয়া মাহজাবিন। তিনি মিথ্যা বক্তব্য সংবলিত অডিও রেকর্ড ইন্টারনেটের মাধ্যমে বন্ধুদের কাছে পাঠিয়ে দেন, যা পরে ভাইরাল হয়ে পড়ে। তিন দিনের রিমান্ডে থাকা ফারিয়াকে জিজ্ঞাসাবাদের বরাত দিয়ে শনিবার সমকালকে এসব তথ্য জানিয়েছে পুলিশ।

ধানমণ্ডির একটি কফিশপের মালিক ফারিয়া মাহজাবিনকে বৃহস্পতিবার রাতে রাজধানীর পশ্চিম ধানমন্ডির হাজী আফসার উদ্দিন সড়কের বাসা থেকে গ্রেফতার করে র‌্যাব-২। শুক্রবার হাজারীবাগ থানায় দায়ের তথ্য ও প্রযুক্তি আইনের মামলায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য পুলিশ তাকে তিন দিনের রিমান্ডে নিয়েছে।

হাজারীবাগ থানার ওসি ইকরাম আলী মিয়া সমকালকে বলেন, নিরাপদ সড়কের দাবিতে আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীদের হত্যা-ধর্ষণের মিথ্যা তথ্য অডিও রেকর্ড করে তা ছড়িয়ে দেন ফারিয়া। তার ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের সামনেই এসব ঘটে বলে তিনি দাবি করেন। অথচ বাস্তবে তেমন কিছু ঘটেনি। এমনকি তিনি নিজের চোখে কিছু দেখেননি বলেও স্বীকার করেছেন। তার ভাষ্য, কফিশপের কর্মচারীরা তাকে সেসব জানিয়েছেন। কিন্তু কর্মচারীদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, তারা তেমন কিছু বলেননি।

তদন্ত সূত্র জানায়, আন্দোলনের সময় ভাইরাল হওয়া অডিওতে ফারিয়া দাবি করেছেন, তিনজন শিক্ষার্থীকে হত্যা, একজনকে ধর্ষণ ও একজনের চোখ উপড়ে ফেলা হয়েছে। র‌্যাব মহাপরিচালক বেনজীর আহমেদ শনিবার র‌্যাব মিডিয়া সেন্টারে এক অনুষ্ঠানে ওই অডিও রেকর্ড সাংবাদিকদের শোনান।

এদিকে রমনা থানার তথ্য ও প্রযুক্তি আইনের মামলায় গ্রেফতার ইডেন কলেজের ছাত্রী লুৎফুন নাহার লুমাকেও রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করছে পুলিশ। গত ১৫ আগস্ট সিরাজগঞ্জের বেলকুচি থেকে তাকে গ্রেফতার করে ডিএমপির সাইবার নিরাপত্তা ও অপরাধ দমন বিভাগ। তদন্ত সংশ্নিষ্টরা জানান, নিরাপদ সড়কের দাবিতে আন্দোলনের সময় গুজব ও উস্কানিমূলক পোস্ট দেন লুমা। সে কারণেই তাকে গ্রেফতার করা হয়েছে। তিনি কোটা সংস্কার আন্দোলনের অন্যতম নেত্রী ও অনলাইন অ্যক্টিভিস্ট হলেও সে সংক্রান্ত কোনো কারণে তাকে গ্রেফতার করা হয়নি।