আওয়ামী লীগের হ্যাটট্রিক জয়

টানা তৃতীয়বার প্রধানমন্ত্রী হচ্ছেন শেখ হাসিনা

প্রকাশ: ৩০ ডিসেম্বর ২০১৮     আপডেট: ৩১ ডিসেম্বর ২০১৮      

 সমকাল প্রতিবেদক

রোববার সকালে রাজধানীর সিটি কলেজ কেন্দ্রে ভোট দিয়ে বিজয় চিহ্ন দেখান আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা - বাসস

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে রোববার হ্যাটট্রিক জয় পেয়েছে আওয়ামী লীগ। জোটবদ্ধ হয়ে নির্বাচনে অংশ নিলেও শরিকদের ছাড়াই তারা দুই-তৃতীয়াংশ সংখ্যাগরিষ্ঠতা পেয়েছে। ফলে টানা তৃতীয়বারের মতো সরকার গঠন করতে যাচ্ছে দেশের স্বাধীনতা-সংগ্রামে নেতৃত্বদানকারী ঐতিহ্যবাহী এই দল।

আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা আবারও দায়িত্ব নিতে যাচ্ছেন সরকারপ্রধানের। টানা তৃতীয়বার প্রধানমন্ত্রী হলে এটাও হবে একটি রেকর্ড। বিএনপি ও তাদের নেতৃত্বাধীন জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট ভোটে ব্যাপক কারচুপির অভিযোগ তুলে ফল প্রত্যাখ্যান করে পুনর্নির্বাচনের দাবি জানিয়েছে। ঐক্যফ্রন্টসহ বিভিন্ন দলের ৯৬ প্রার্থী ভোট গ্রহণ শেষের আগেই তা বর্জনের ঘোষণা দেন।

এদিন ২৯৯টি সংসদীয় আসনে ভোট গ্রহণ করে নির্বাচন কমিশন। এর মধ্যে একটির ফল স্থগিত করে ২৯৮টি আসনের ফল ঘোষণা করা হয়। ইসি সচিব জানান,  ব্রাহ্মণবাড়িয়া-২ আসনে ভোটের ফল স্থগিত করা হয়েছে। এ আসনের তিনটি কেন্দ্রে পুনরায় ভোট হবে।  

রোববার ভোট গ্রহণের পর বিকেলে ফল ঘোষণা শুরু করে ইসি। রাত গড়িয়ে তা সোমবার ভোর পর্যন্ত পৌঁছায়। ভোর সাড়ে চারটায় ইসির সর্বশেষ ঘোষণা অনুযায়ী, আওয়ামী লীগ পেয়েছে ২৫৯ আসন। এছাড়া, বিএনপি ৫, গণফোরাম ২, লাঙ্গল প্রতীকে জাপা ২০, ওয়ার্কার্স পার্টি ৩, জাসদ ২, স্বতন্ত্র ৩, তরিকত ফেডারেশন ১, বিকল্পধারা ২ ও জেপি (মঞ্জু) ১টি আসন পেয়েছে বলে জানায় ইসি।

গোপালগঞ্জ-৩ আসনে আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দুই লাখ ২৯ হাজার ৫৩৯ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী বিএনপির এস এম জিলানী পেয়েছেন মাত্র ১২৩ ভোট।

বিএনপির জয়ীরা হলেন- ঠাকুরগাঁও-৩ আসনে জাহিদুর রহমান, বগুড়া-৪ আসনে মোশাররফ হোসেন, বগুড়া-৬ আসনে মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, চাঁপাইনবাবগঞ্জ-২ আসনে আমিনুল ইসলাম ও চাঁপাইনবাবগঞ্জ-৩ আসনে হারুনুর রশিদ। সিলেট-২ আসনে গণফোরামের মোকাব্বির খান ও মৌলভীবাজার-২ আসনে একই দলের সুলতান মোহাম্মদ মনসুর জয়ী হয়েছেন।

বিএনপিকে ছাপিয়ে সংসদে দ্বিতীয় বৃহত্তম দল হিসেবে আবির্ভূত হয়েছে হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের নেতৃত্বাধীন জাতীয় পার্টি। এবার দলটি ২০ আসন পাওয়ায় আগামীতে সংসদের প্রধান বিরোধীদল হতে যাচ্ছে।

এবারের নির্বাচনে ভোটার ছিলেন ১০ কোটি ৪২ লাখ ৩৮ হাজার ৬৭৭ জন। অসমর্থিত সূত্র জানিয়েছে, নির্বাচনে সাত কোটি ৯৯ লাখ ১৮ হাজার ৮১৮ জন ভোট দিয়েছেন। এ হিসাবে ৭৬ শতাংশেরও বেশি ভোটাধিকার প্রয়োগ করেছেন। আওয়ামী লীগ পেয়েছে ৭৭ দশমিক ১২ শতাংশ ভোট। বিএনপি পেয়েছে ১২ দশমিক ২৮ ভোট। জাতীয় পার্টি পেয়েছে ৫ দশমিক শূন্য ৯ শতাংশ ভোট। ভোটপ্রাপ্তিতেও রেকর্ড করেছে আওয়ামী লীগ। ১৯৭৩ সালের নির্বাচনে ৭৩ দশমিক ২ শতাংশ ভোট পেয়ে ২৯৩ আসন পেয়েছিল বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বাধীন দলটি।

সকাল ৮টা থেকে বিকেল ৪টা পর্যন্ত সারাদেশের ২৯৯টি সংসদীয় আসনে ৪০ হাজারের বেশি কেন্দ্রে ভোট গ্রহণ হয়। দুপুরে বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল ইসিতে গিয়ে অভিযোগ করেন, ২২১টি আসনে অনিয়মের চিত্র অভিন্ন। আগের রাতেই ব্যালটে সিল মেরে বাক্স ভরার অভিযোগও করেন তিনি।

তবে রাজধানীর অনেক ভোটকেন্দ্রেই ভোটারের দীর্ঘ লাইন দেখা গেছে। আবার অনেক স্থানে ভোটকেন্দ্র ছিল ফাঁকা। কেন্দ্রের সামনে ও ভেতরে আওয়ামী লীগের সমর্থকদের সরব উপস্থিতি থাকলেও দেখা মেলেনি বিএনপির কর্মীদের। তবে পরিস্থিতি ছিল আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর নিয়ন্ত্রণে। নিয়োজিত ছিল সেনাবাহিনীও।

ঢাকার বাইরে বেশ কয়েকটি আসনের ভোটকেন্দ্রে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে। দীর্ঘ ১০ বছর পর জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নৌকা-ধানের শীষের সরাসরি ভোটযুদ্ধ নিয়ে মানুষের মধ্যে ছিল ব্যাপক কৌতূহল। ভোটের আগের রাত থেকে মোবাইল ফোনে থ্রিজি ও ফোরজি সেবা বন্ধ থাকলেও সন্ধ্যার পর তা চালু হয়। তবে রাতে আবার বন্ধ হয়ে যায়। রাতে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে নির্বাচন নিয়ে নানা প্রতিক্রিয়া জানায় বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষ।

নির্বাচনী আইন অনুযায়ী ভোটের দিন মিছিল নিষিদ্ধ থাকলেও সন্ধ্যার পর রাজধানীসহ দেশের অনেক স্থানে আওয়ামী লীগ প্রার্থীর সমর্থকরা আনন্দ মিছিল করেন। ছিল আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী সতর্ক অবস্থান।

এর আগে দেশ-বিদেশের গণমাধ্যম ও বেসরকারি সংস্থার পক্ষ থেকে আওয়ামী লীগের বিজয়ের ধারণা করা হয়। আওয়ামী লীগের নিজস্ব জরিপে ১৬৮ থেকে ২২২ এবং বেসরকারি সংস্থা আরডিএসের জরিপে আওয়ামী লীগ ২৪৯ আসন পাবে বলে আভাস দেওয়া হয়। 

এদিকে, জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের পক্ষ থেকে নির্বাচন বাতিলের জন্য নির্বাচন কমিশনে দাবি জানানো হয়েছে। জোটের শীর্ষ নেতা ড. কামাল হোসেন বলেছেন, দেশের প্রায় সব আসন থেকেই প্রার্থীরা তাদের কাছে ভোট ডাকাতির খবর দিয়েছেন। এই ফল প্রত্যাখ্যান করে তিনি নির্দলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচন দাবি করেন। বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর এ নির্বাচন পুরোপুরি প্রত্যাখ্যানের ঘোষণা দিয়ে বলেন, নির্বাচনের নামে গণতন্ত্রের সঙ্গে নিষ্ঠুর প্রহসন করা হয়েছে।

আন্তর্জাতিক পর্যবেক্ষকদের মধ্যে ইসলামী দেশগুলোর সংগঠন ওআইসি, ভারত, নেপাল, মালদ্বীপ ও সার্ক মানবাধিকার ফাউন্ডেশন তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়ায় নির্বাচন সুষ্ঠু হয়েছে বলে মন্তব্য করা হয়। তবে যুক্তরাষ্ট্র, ইউরোপীয় ইউনিয়নসহ অন্যরা এখনও মন্তব্য করেনি।

ভোট শুরু হওয়ার পর সকালে প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কে এম নূরুল হুদা ঢাকার উত্তরায় নিজের ভোট দেওয়ার পর সাংবাদিকদের কাছে বলেন, দু-একটি বিচ্ছিন্ন ঘটনা ছাড়া সারাদেশে শান্তিপূর্ণভাবে ভোট হচ্ছে। তবে সারাদেশে নির্বাচনী সহিংসতায় ১৬ জন নিহত ও প্রায় ৩০০ জন আহত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে। এর মধ্যে পুলিশের গুলিতে দু'জন নিহত হয়েছেন।

এর আগে ২০০৮ সালের ২৯ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত নবম ও ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারি অনুষ্ঠিত দশম সংসদ নির্বাচনেও আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন মহাজোট নিরঙ্কুশ জয়লাভ করে। নবম সংসদের ভোটে শতকরা ৮৭ দশমিক ১৩ ভাগ ভোট পড়ে। ওই নির্বাচনে আওয়ামী লীগ ২৩০টি আসনে জয়লাভ করে। দশম সংসদের ভোটে শতকরা ৪০ দশমিক শূন্য ৪ ভাগ ভোট পড়ে। ওই নির্বাচনে আওয়ামী লীগ ২৩৪টি আসনে জয়লাভ করে। যদিও বিরোধী দল বিএনপিসহ অনেক রাজনৈতিক দলের বর্জনের ফলে ওই নির্বাচনে ১৫৩টি আসনে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় জয়লাভ করেন মহাজোটের প্রার্থীরা।

নির্বাচন কমিশনের নিবন্ধিত ৩৯টি দলই এবারের নির্বাচনে অংশ নেয়। দল ও স্বতন্ত্র মিলিয়ে প্রার্থীসংখ্যা ছিল এক হাজার ৮৬১। 

আট বিভাগের ফল

ঢাকা : ঢাকা বিভাগের মোট ৭১টি সংসদীয় আসনের মধ্যে ৫১টির বেসরকারি ফল পাওয়া গেছে। সবক'টিতেই আওয়ামী লীগের নেতৃত্বাধীন মহাজোট প্রার্থীরা বিজয়ী হয়েছেন। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত ঢাকা জেলার ২০টি আসনের ভোটগণনা চলছিল। তবে আংশিক ফলাফলে দেখা গেছে, ঢাকা মহানগরের ১৫টিসহ সব আসনে মহাজোটের প্রার্থীরা এগিয়ে রয়েছেন।

ঢাকা-১ আসনে বিজয়ী আওয়ামী লীগের সালমান এফ রহমান (৩০২৯৯৩), নিকটতম স্বতন্ত্র প্রার্থী সালমা ইসলাম (৩৭৭৬৩); ঢাকা-২ বিজয়ী আওয়ামী লীগের কামরুল ইসলাম (২৬৬৬৯৫), নিকটতম বিএনপির ইরফান ইবনে আমান (৩২৪৯০); ঢাকা-৩ বিজয়ী আওয়ামী লীগের নসরুল হামিদ বিপু (২১৯৬৩১), নিকটতম বিএনপির গয়েশ্বর চন্দ্র রায় (১৬৬১২); ঢাকা-৪ বিজয়ী জাপার সৈয়দ আবু হোসেন বাবলা (১০৬৯৫৯), নিকটতম বিএনপির সালাহউদ্দিন আহমেদ (৩৩১১৭); ঢাকা-৫ বিজয়ী আওয়ামী লীগের হাবিবুর রহমান মোল্লা (২০২০৮৩), নিকটতম বিএনপির নবীউল্লাহ নবী (৬৭৫৭২); ঢাকা-৬ বিজয়ী জাপার কাজী ফিরোজ রশীদ (৯৩৫৫২) নিকটতম গণফোরামের সুব্রত চৌধুরী (২৩৬৯০); ঢাকা-৭ বিজয়ী আওয়ামী লীগের হাজী মোহাম্মদ সেলিম (১৭৩৬৮৭), নিকটতম গণফোরামের মোস্তফা মহসিন মন্টু (৫১৬৭২); ঢাকা-৮ বিজয়ী ওয়ার্কার্স পার্টির রাশেদ খান মেনন (১৩৯৫৩৮), নিকটতম বিএনপির মির্জা আব্বাস (৩৮৭১৭); ঢাকা-৯ বিজয়ী আওয়ামী লীগের সাবের হোসেন চৌধুরী (২২৪২৩০), নিকটতম বিএনপির আফরোজা আব্বাস (৫৯১৬৫); ঢাকা-১০ বিজয়ী আওয়ামী লীগের ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপস (১৬৮১৭২), নিকটতম বিএনপির আবদুল মান্নান (৪৩৮৩১); ঢাকা-১১ বিজয়ী আওয়ামী লীগের একেএম রহমতউল্লাহ (১৮৬৬৮১), নিকটতম বিএনপির শামীম আরা বেগম (৫৪৭২১); ঢাকা-১২ বিজয়ী আওয়ামী লীগের আসাদুজ্জামান খান কামাল (১৯১৮৯৫), নিকটতম বিএনপির সাইফুল আলম নীরব (৩২৬৭৮); ঢাকা-১৩ বিজয়ী আওয়ামী লীগের সাদেক খান (১০৩১৬৩), নিকটতম বিএনপির আবদুস সালাম (৪৭২৩২); ঢাকা-১৪ বিজয়ী আওয়ামী লীগের আসলামুল হক আসলাম (১৯৭১৩০), নিকটতম বিএনপির সৈয়দ আবু বকর সিদ্দিক (৫৪৯৮১); ঢাকা-১৫ বিজয়ী আওয়ামী লীগের কামাল আহমেদ মজুমদার (১৭৫১৬৫), নিকটতম বিএনপির ডা. মো. শফিকুর রহমান (৩৯০৭১); ঢাকা-১৬ বিজয়ী আওয়ামী লীগের ইলিয়াস উদ্দিন মোল্লাহ্‌ (১৭৫৫০৬), নিকটতম বিএনপির আহসানউল্লাহ হাসান (৫০৫৩৭); ঢাকা-১৭ বিজয়ী আওয়ামী লীগের আকবর হোসেন পাঠান ফারুক (১৬৪৬১০), নিকটতম বিজেপির ব্যারিস্টার আন্দালিভ রহমান পার্থ (৩৮৬৩৯); ঢাকা-১৮ বিজয়ী আওয়ামী লীগের অ্যাডভোকেট সাহারা খাতুন (৩০২০০৬), নিকটতম বিএনপির শহীদউদ্দিন মাহমুদ (৭১৭৯২); ঢাকা-১৯ বিজয়ী আওয়ামী লীগের ডা. এনামুর রহমান (৪৯০৪২৭), নিকটতম বিএনপির ডা. দেওয়ান সালাহউদ্দিন (৬৯৫৬৬); ঢাকা-২০ বিজয়ী আওয়ামী লীগের বেনজীর আহমেদ (২৫৯৭৮৭), নিকটতম ইসলামী আন্দোলনের হাজি আব্দুল মান্নান (৭২৬৮); নারায়ণগঞ্জ-১ বিজয়ী আওয়ামী লীগের গোলাম দস্তগীর গাজী (২৩৪৮৫৮), নিকটতম বিএনপির কাজী মনিরুজ্জামান (২১৪৮২); নারায়ণগঞ্জ-২ বিজয়ী আওয়ামী লীগের নজরুল ইসলাম বাবু (২০৩৬৮৩), নিকটতম বিএনপির নজরুল ইসলাম আজাদ (৫১৫২); নারায়ণগঞ্জ-৩ বিজয়ী জাপার লিয়াকত হোসেন খোকা (১৯৭৭৫৮), নিকটতম বিএনপির আজহারুল ইসলাম মান্নান (১৮০৪৭); নারায়ণগঞ্জ-৪ বিজয়ী আওয়ামী লীগের এ কে এম শামীম ওসমান (৩৭৭৮৪৯), নিকটতম জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের মনির হোসেন (৭৭৩৯৭); নারায়ণগঞ্জ-৫ বিজয়ী জাপার সেলিম ওসমান (২৭৪৯৫১), নিকটতম বিএনপির এস এম আকরাম (৫১১৬১); মুন্সীগঞ্জ-১ বিজয়ী বিকল্পধারার মাহী বি. চৌধুরী (২৮৬৬৮১), নিকটতম বিএনপির শাহ মোয়াজ্জেম হোসেন (৪৬৮৮৮); মুন্সীগঞ্জ-২ বিজয়ী আওয়ামী লীগের সাগুফতা ইয়াসমিন এমিলি (২১৫৩৮৫), নিকটতম বিএনপির মিজানুর রহমান সিনহা (১৪০৬৫); মুন্সীগঞ্জ-৩ বিজয়ী আওয়ামী লীগের মৃণাল কান্তি দাস (৩১৩৩৫৮), নিকটতম বিএনপির আবদুল হাই (১২৭৩৬); গাজীপুর-১ বিজয়ী আওয়ামী লীগের আ ক ম মোজাম্মেল হোসেন (২২১৮৯৭), নিকটতম বিএনপির তানভীর আহমেদ সিদ্দিকী (৪২৭৫৪); গাজীপুর-৩ বিজয়ী আওয়ামী লীগের ইকবাল হোসেন সবুজ (৩৪৫৮৬১), নিকটতম বিএনপির ইকবাল সিদ্দিকী (৩৭৩২৩); গাজীপুর-৪ বিজয়ী আওয়ামী লীগের সিমিন হোসেন রিমি (২৬৭৩৯৪), নিকটতম বিএনপির শাহ রিয়াজুল হান্নান (১৮৫৮২); গাজীপুর-৫ বিজয়ী আওয়ামী লীগের মেহের আফরোজ চুমকি (৯৫৬২৮), নিকটতম বিএনপির ফজলুল হক মিলন (৮৫৬৪); মানিকগঞ্জ-১ বিজয়ী আওয়ামী লীগের এ এম নাঈমুর রহমান দুর্জয় (২৫১২৫৫), নিকটতম বিএনপির আখতার হামিদ ডাবলু (৫৬৪৪৭); মানিকগঞ্জ-২ বিজয়ী আওয়ামী লীগের মমতাজ বেগম (২৭৮৮১৬), নিকটতম বিএনপির মইনুল ইসলাম খান শান্ত (৪৯০৩১); মানিকগঞ্জ-৩ বিজয়ী আওয়ামী লীগের জাহিদ মালেক স্বপন (২২৬০৯৬), নিকটতম গণফোরামের মফিজুল ইসলাম খান কামাল (৩০৩৮১); নরসিংদী-১ বিজয়ী আওয়ামী লীগের লে. ক. (অব.) নজরুল ইসলাম হিরু বীরপ্রতীক (২৭১০৪৮), নিকটতম বিএনপির খায়রুল কবীর খোকন (২৬৬৩৪); নরসিংদী-২ বিজয়ী আওয়ামী লীগের ডা. আনোয়ারুল আশরাফ খান দিলীপ (১৭৫৭১১), নিকটতম বিএনপির ড. আবদুল মঈন খান (৭১৮০); নরসিংদী-৩ বিজয়ী আওয়ামী লীগের জহিরুল হক ভূঁইয়া মোহন (৯৪০৩৫), নিকটতম স্বতন্ত্র সিরাজুল ইসলাম মোল্লা (৫২৮৭৬); নরসিংদী-৪ বিজয়ী আওয়ামী লীগের অ্যাডভোকেট নূরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ুন (২৫৬৫২৪), নিকটতম বিএনপির সাখাওয়াত হোসেন বকুল (১৬৫০৫); নরসিংদী-৫ বিজয়ী আওয়ামী লীগের রাজিউদ্দিন আহমেদ রাজু (২৯৪৪৮৬), নিকটতম বিএনপির আশরাফ উদ্দিন (২০৪৩১); রাজবাড়ী-১ বিজয়ী আওয়ামী লীগের কাজী কেরামত আলী (২৩৮৯১৪), নিকটতম বিএনপি আলী নেওয়াজ খৈয়াম (৩৩০০০); রাজবাড়ী-২ বিজয়ী আওয়ামী লীগের জিল্লুল হাকিম (৩৯৮৯৭৪), নিকটতম বিএনপির নাসিরুল হক সাবু (৫৪৭৫); ফরিদপুর-১ বিজয়ী আওয়ামী লীগের মঞ্জুর হোসেন বুলবুল (৩০৪৬০৭), নিকটতম বিএনপির শাহ মোহাম্মদ আবু জাফর (২৭৩০৫); ফরিদপুর-২ বিজয়ী আওয়ামী লীগের সৈয়দা সাজেদা চৌধুরী (২১৯২০৯), নিকটতম বিএনপির শামা ওবায়েদ ইসলাম (১৪৮৮৫); ফরিদপুর-৩ বিজয়ী আওয়ামী লীগের ইঞ্জিনিয়ার খন্দকার মোশাররফ হোসেন (২৭৪৮৭১), নিকটতম বিএনপি চৌধুরী কামাল ইবনে ইউসুফ (২১৫০০); ফরিদপুর-৪ বিজয়ী স্বতন্ত্র মজিবুর রহমান নিক্সন (১৪০৫০০), নিকটতম আওয়ামী লীগের কাজী জাফরউল্লাহ (৯৫১৬৩)।

গোপালগঞ্জ-১ বিজয়ী আওয়ামী লীগের কর্নেল (অব.) ফারুক খান (৩৩৯০৪২), নিকটতম ইসলামী আন্দোলনের অ্যাডভোকেট মিজানুর রহমান (৭০২); গোপালগঞ্জ-২ বিজয়ী আওয়ামী লীগের শেখ ফজলুল করিম সেলিম (২৮১৯০৯), নিকটতম ইসলামী আন্দোলনের তসলিম সিকদার (৬০৮); গোপালগঞ্জ-৩ বিজয়ী আওয়ামী লীগের শেখ হাসিনা (২৯৫৫৩৯), নিকটতম বিএনপির এস এম জিলানী (১২৩); মাদারীপুর-১ বিজয়ী আওয়ামী লীগের নূরে আলম চৌধুরী লিটন (২২৭৪৫৪), নিকটতম বিএনপির আবু জাফর (৪৩৬); মাদারীপুর-২ বিজয়ী আওয়ামী লীগের শাজাহান খান (৩১১৭৪০), নিকটতম বিএনপির মিল্টন বৈদ্য (২৫৯০); মাদারীপুর-৩ বিজয়ী আওয়ামী লীগের ড. আবদুস সোবহান গোলাপ (২৫২৬৪১), নিকটতম বিএনপির আনিসুর রহমান খোকন (৩২৮৬); শরীয়তপুর-১ বিজয়ী আওয়ামী লীগের ইকবাল হোসেন অপু (২৭২৯৩৪), নিকটতম ইসলামী আন্দোলনের মুফতি তোফায়েল আহমেদ কাশেমী (১৪২৭); শরীয়তপুর-২ বিজয়ী আওয়ামী লীগের এ কে এম এনামুল হক শামীম (২৭২৩৮১), নিকটতম বিএনপির শফিকুর রহমান কিরণ (২২১৫); শরীয়তপুর-৩ আসনে জয়ী আওয়ামী লীগের নাহিম রাজ্জাক (২০৭২১৬), নিকটতম ইসলামী আন্দোলনের অ্যাডভোকেট হানিফ মিয়া (২৭৪৬); টাঙ্গাইল-১ বিজয়ী আওয়ামী লীগের আবদুর রাজ্জাক (২৮০২৯২), নিকটতম বিএনপির শহীদুল ইসলাম (১৬৪৪০), টাঙ্গাইল-৩ বিজয়ী আওয়ামী লীগের আতাউর রহমান খান (২৪২৪৩৭), নিকটতম বিএনপির লুৎফর রহমান খান আজাদ (৯১২২); টাঙ্গাইল-৪ বিজয়ী আওয়ামী লীগের হাসান ইমাম খান সোহেল হাজারী (২২৪০১২), নিকটতম কৃষক শ্রমিক জনতা লীগের লিয়াকত আলী (৩৪৩৮৮); টাঙ্গাইল-৫ বিজয়ী আওয়ামী লীগের সানোয়ার হোসেন (১৪৯৩৬২), নিকটতম বিএনপির মাহমুদুল হাসান (৭৮৯৯২); টাঙ্গাইল-৭ বিজয়ী আওয়ামী লীগের একাব্বর হোসেন (১৬৪৫৯১), নিকটতম বিএনপির আবুল কালাম আজাদ সিদ্দিকী (৮৭৯৪৯); টাঙ্গাইল-৮ বিজয়ী আওয়ামী লীগের অ্যাডভোকেট জোয়াহেরুল ইসলাম (২০৭৬৭৯), নিকটতম কৃষক শ্রমিক জনতা লীগের কুড়ি সিদ্দিকী (৭১১৪৪); কিশোরগঞ্জ-১ বিজয়ী আওয়ামী লীগের সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম (২৭৭৫৮৯), নিকটতম বিএনপির রেজাউল করিম খান চুন্নু (৫০৪০০); কিশোরগঞ্জ-২ বিজয়ী আওয়ামী লীগের নূর মোহাম্মাদ (১৫২৫১৯), নিকটতম বিএনপির মেজর (অব.) আখতারুজ্জামান (৩৭৬০৭); কিশোরগঞ্জ-৩ বিজয়ী জাপার মুজিবুল হক চুন্নু (২৩৯৬১৬), নিকটতম জেএসডির মো. সাইফুল ইসলাম (৩১৭৮৬), কিশোরগঞ্জ-৪ বিজয়ী আওয়ামী লীগের রেজওয়ান আহমেদ তৌফিক (২৫৯৩৮১), নিকটতম বিএনপির ফজলুর রহমান (৪৮০০); কিশোরগঞ্জ-৫ বিজয়ী আওয়ামী লীগের আফজাল হোসেন (২০২৮৭৬), নিকটতম বিএনপির শেখ মজিবুর রহমান ইকবাল (২৯১৫০) এবং কিশোরগঞ্জ-৬ বিজয়ী আওয়ামী লীগের নাজমুল হাসান পাপন (২৪৬৯০৫), নিকটতম বিএনপির শরীফুল আলম (২৭৯১৪)।

চট্টগ্রাম : চট্টগ্রাম বিভাগের ৫৮ আসনের বেসরকারি ফলে ৫১টিতে আওয়ামী লীগের প্রার্থীরা জয়ী হয়েছেন। জাপা ও তরীকত ফেডারেশনের প্রার্থীরা জিতেছেন দুটি করে আসনে। জাসদ ও বিকল্পধারা একটি করে আসনে জয় পেয়েছে। স্বতন্ত্র প্রার্থী পেয়েছেন একটি আসন।

চট্টগ্রাম-১ আসনে বিজয়ী আওয়ামী লীগের ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন (২৬৬৬৬৬), নিকটতম বিএনপির নুরুল আমীন (৩৯৯১); চট্টগ্রাম-২ বিজয়ী তরীকত ফেডারেশনের সৈয়দ নজিবুল বশর মাইজভাণ্ডারী (২৩৮৪৩০), নিকটতম বিএনপির আজিম উল্লাহ বাহার (৪৯৭৫৩); চট্টগ্রাম-৩ বিজয়ী আওয়ামী লীগের মাহফুজুর রহমান মিতা (১৬২৩৫৬), নিকটতম বিএনপির কামাল পাশা (৩১২২); চট্টগ্রাম-৪ বিজয়ী আওয়ামী লীগের দিদারুল আলম (২৬৯৮৮৯), তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী বিএনপির আসলাম চৌধুরী (২৯৪০৭); চট্টগ্রাম-৫ বিজয়ী জাতীয় পার্টির আনিসুল ইসলাম মাহমুদ (২০৫৮২০), নিকটতম বাংলাদেশ কল্যাণ পার্টির সৈয়দ মুহাম্মদ ইবরাহিম (৩৪০১৮); চট্টগ্রাম-৬ বিজয়ী আওয়ামী লীগের এবিএম ফজলে করিম চৌধুরী (১৯১৯৩২), নিকটতম বিএনপির জসিম উদ্দিন শিকদার (১৯০৪); চট্টগ্রাম-৭ বিজয়ী আওয়ামী লীগের হাছান মাহমুদ (২১৭১৫৫), নিকটতম এলডিপির নুরুল আলম (৬০৬৫); চট্টগ্রাম-৮ বিজয়ী আওয়ামী লীগের মইনউদ্দীন খান বাদল (১৭৭৯৩৬), নিকটতম বিএনপির আবু সুফিয়ান (৩১৭৮৭); চট্টগ্রাম-৯ বিজয়ী আওয়ামী লীগের মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল (১১৬৬২৯), নিকটতম বিএনপির শাহাদাত হোসেন (১১২২৮); চট্টগ্রাম-১০ বিজয়ী আওয়ামী লীগের মো. আফছারুল আমীন (১৮২৮৯৩), নিকটতম বিএনপির আবদুল্লাহ আল নোমান (২৫৭৭০); চট্টগ্রাম-১১ বিজয়ী আওয়ামী লীগের এম আবদুল লতিফ (১৬৬৯১৯), নিকটতম বিএনপির আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী (৩০৮৭৯); চট্টগ্রাম-১২ বিজয়ী আওয়ামী লীগের সামছুল হক চৌধুরী (১৮৩১৭৯), নিকটতম বিএনপির এনামুল হক (৪৪৫৯৮); চট্টগ্রাম-১৩ বিজয়ী আওয়ামী লীগের সাইফুজ্জামান চৌধুরী জাবেদ (২৪৩৪১৫), নিকটতম ইসলামী ফ্রন্টের এম এ মতিন (৩৭৯৪); চট্টগ্রাম-১৪ বিজয়ী আওয়ামী লীগের মো. নজরুল ইসলাম চৌধুরী (১৮৯৪১২), নিকটতম এলডিপির অলি আহমদ (২১৯৪৭); চট্টগ্রাম-১৫ বিজয়ী আওয়ামী লীগের আবু রেজা মুহাম্মদ নেজামউদ্দিন নদভী (২৭৩০১২), নিকটতম বিএনপির আ ন ম শামসুল ইসলাম (৫২৫৫৬); কুমিল্লা-১ বিজয়ী আওয়ামী লীগের সুবিদ আলী ভূঁইয়া (১৩৪৮৭১), নিকটতম বিএনপির খন্দকার মোশাররফ হোসেন (৯৫৫৪২); কুমিল্লা-২ বিজয়ী আওয়ামী লীগের সেলিমা আহমাদ মেরী (২০৫৫৬৯), নিকটতম বিএনপির খন্দকার মোশাররফ হোসেন (২০১৫৬); কুমিল্লা-৩ বিজয়ী আওয়ামী লীগের ইউসুফ আবদুল্লাহ হারুন (২৭৩১৮২), নিকটতম বিএনপির কে এম মজিবুল হক (১২৩৫৮); কুমিল্লা-৪ বিজয়ী আওয়ামী লীগের রাজী মোহাম্মদ ফখরুল (২৪০৫৪৪), নিকটতম জেএসডির আবদুল মালেক রতন (৭৯৫৮); কুমিল্লা-৫ বিজয়ী আওয়ামী লীগের আবদুল মতিন খসরু (২৯০৫০০), নিকটতম বিএনপির মো. ইউনুস (১১৯৬০); কুমিল্লা-৬ বিজয়ী আওয়ামী লীগের আ ক ম বাহার উদ্দিন (২৯৬৩০০), নিকটতম বিএনপির মোহাম্মদ আমিন উর রসিদ (১৮৫৩৭); কুমিল্লা-৭ বিজয়ী আওয়ামী লীগের আলী আশরাফ (১৮৪৯০১), নিকটতম এলডিপির রেদোয়ান আহমেদ (১৫৮৯১); কুমিল্লা-৮ বিজয়ী আওয়ামী লীগের নাছিমুল আলম চৌধুরী (১৮৯৭৮২), নিকটতম বিএনপির জাকারিয়া তাহের (৩৪২১০); কুমিল্লা-৯ বিজয়ী আওয়ামী লীগের তাজুল ইসলাম (২৭০৫৯২), নিকটতম বিএনপির আনোয়ারুল আজিম (১১৩৬৭); কুমিল্লা-১০ বিজয়ী আওয়ামী লীগের আ হ ম মুস্তফা কামাল (৪০৫৪৮৬), নিকটতম বিএনপির মনিরুল হক চৌধুরী (১২১৮৩); কুমিল্লা-১১ বিজয়ী আওয়ামী লীগের মুজিবুল হক (২৭৯৩০৩), নিকটতম ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের মো. কামাল উদ্দিন ভূঁইয়া (২২৫৭)।

ব্রাহ্মহ্মণবাড়িয়া-১ বিজয়ী আওয়ামী লীগের বদরুদ্দোজা ফরহাদ হোসেন (১০১১১০), নিকটতম বিএনপির এসএকে একরামুজ্জামান (৬০৭৩৪); ব্রাহ্মণবাড়িয়া-৩ বিজয়ী আওয়ামী লীগের উবায়দুল মোকতাদির চৌধুরী (৩৯৬৪২০), নিকটতম বিএনপির খালেদ হোসেন মাহবুব (৪৫৯৩৭); ব্রাহ্মণবাড়িয়া-৪ বিজয়ী আওয়ামী লীগের আনিসুল হক (২৮২০৬৫), নিকটতম ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের মো. জসিম (২৮৯৪); ব্রাহ্মণবাড়িয়া-৫ বিজয়ী আওয়ামী লীগের এবাদুল করিম বুলবুল (২৫০৫২৯), নিকটতম বিএনপির কাজী নাজমুল হোসেন (১৭০২১); ব্রাহ্মণবাড়িয়া-৬ বিজয়ী আওয়ামী লীগের এবি তাজুল ইসলাম (২০০০৭৮), নিকটতম বিএনপির আবদুল খালেক (১৩২৯); চাঁদপুর-১ আসনে বিজয়ী আওয়ামী লীগের মহীউদ্দীন খান আলমগীর (১৯৬৮৪৪), নিকটতম বিএনপির মোহাম্মদ মোশাররফ হোসেন (৭৭৫৯); চাঁদপুর-২ বিজয়ী আওয়ামী লীগের নুরুল আমীন (৩০০১৫০), নিকটতম বিএনপির জালাল উদ্দিন (১০২৭৭); চাঁদপুর-৩ বিজয়ী আওয়ামী লীগের ডা. দীপু মনি (৩০৬৮৯৫), নিকটতম বিএনপির শেখ ফরিদ আহমেদ মানিক (৩৫৮০২); চাঁদপুর-৪ বিজয়ী আওয়ামী লীগের শফিকুর রহমান (১৭৩৩৬৯), নিকটতম বিএনপির লায়ন হরুন-অর-রশিদ (৩০৭৯৯); চাঁদপুর-৫ বিজয়ী আওয়ামী লীগের রফিকুল ইসলাম (২৯৮১০৪), নিকটতম বিএনপির মমিনুল হক (৩৬৫৬০); লক্ষ্মীপুর-১ বিজয়ী তরীকতের আনোয়ার হোসেন খান (১০৮৪৫৩), নিকটতম এলডিপির শাহাদৎ হোসেন সেলিম (৩৮৯২); লক্ষ্মীপুর-২ বিজয়ী স্বতন্ত্র শহীদুল ইসলাম পাপুল (২৫৬৭৮৪), নিকটতম বিএনপির আবুল খায়ের ভূঁইয়া (২৮০৩৫); লক্ষ্মীপুর-৩ বিজয়ী আওয়ামী লীগের একেএম শাহজাহান কামাল (২৩৩৭২৮), নিকটতম বিএনপির শহীদ উদ্দীন চৌধুরী এ্যানী (১৪৪৯২); লক্ষ্মীপুর-৪ বিজয়ী বিকল্প ধারার আবদুল মান্নান (১৮৩৯০৬), নিকটতম জেএসডির আ স ম আবদুর রব (৪০৯৭৩); নোয়াখালী-১ বিজয়ী আওয়ামী লীগের এইচএম ইব্রাহিম (২৬৫৯৭০), নিকটতম বিএনপির এএম মাহবুব উদ্দিন খোকন (১৪৮৬২); নোয়াখালী-২ বিজয়ী আওয়ামী লীগের মোরশেদ আলম (১৭৭৩৯১), নিকটতম বিএনপির জয়নুল আবদিন ফারুক (২৬১৬৯); নোয়াখালী-৩ বিজয়ী আওয়ামী লীগের মামুনুর রশীদ কিরন (২১৭৭২৯), নিকটতম বিএনপির বরকতউল্লাহ বুলু (৫৩৭৯০); নোয়াখালী-৪ বিজয়ী আওয়ামী লীগের একরামুল করিম চৌধুরী (৩৯৫৪০৮), নিকটতম বিএনপির শাহজাহান (২৩১৪৩); নোয়াখালী-৫ বিজয়ী আওয়ামী লীগের ওবায়দুল কাদের (২৫২৭৬৫), নিকটতম বিএনপির মওদুদ আহমদ (১০৮৭১); নোয়াখালী-৬ বিজয়ী আওয়ামী লীগের আয়েশা ফেরদাউস (২১৯৯১৫), নিকটতম বিএনপির ফজলুল আজিম (৪৭১৬); কক্সবাজার-১ আসনে বিজয়ী আওয়ামী লীগের জাফর আলম (২৭৪৯৬৩), নিকটতম বিএনপির হাসিনা আহমেদ (৫৫২৬০); কক্সবাজার-২ আসনে বিজয়ী আওয়ামী লীগের আশেক উল্লাহ রফিক (১৮৬৫০৭), নিকটতম জামায়াতের স্বতন্ত্র এএইচএম হামিদুর রহমান আযাদ (১৭২২৩); কক্সবাজার-৩ আসনে বিজয়ী আওয়ামী লীগের সাইমুম সরওয়ার কমল (২২২৬৪৫), নিকটতম বিএনপির লুতফর রহমান (৬৫২১৬), কক্সবাজার-৪ বিজয়ী আওয়ামী লীগের শাহিনা আক্তার চৌধুরী (১৯৬৯৭৪), নিকটতম বিএনপির শাহজাহান চৌধুরী (৩৭০১৮)।

ফেনী-১ বিজয়ী জাসদের শিরীন আখতার (২০১৯২৮), নিকটতম বিএনপির রফিকুল আলম মজনু (২৬৬১৬); ফেনী-২ বিজয়ী আওয়ামী লীগের নিজাম উদ্দিন হাজারী (২৯০৬৬৮), নিকটতম বিএনপির জয়নাল আবেদিন (৫৭৮৪); ফেনী-৩ আসনে বিজয়ী জাপার মাসুদ উদ্দিন চৌধুরী (২৯০২১১), নিকটতম বিএনপির আকবর হোসেন (১৫০৬৭); রাঙামাটিতে বিজয়ী আওয়ামী লীগের দীপঙ্কর তালুকদার (১৫৬৮৪৬), নিকটতম জেএসএস সমর্থিত স্বতন্ত্র ঊষাতন তালুকদার (৯৪৪৯৫) এবং বিএনপির মনি স্বপন দেওয়ান (৩১০১৭); খাগড়াছড়িতে বিজয়ী আওয়ামী লীগের কুজেন্দ্র লাল ত্রিপুরা (২৩৬১১৫), নিকটতম ইউপিডিএফ সমর্থিত স্বতন্ত্র নূতন কুমার চাকমা (৫৯২৫৭) এবং বিএনপির শহিদুল ইসলাম ভূইয়া (৫১২৬৬); বান্দরবানে বিজয়ী আওয়ামী লীগের বীর বাহাদুর উ শৈ সিং (১৪৩৯৬৬), নিকটতম বিএনপির সাচিং প্রু (৫৮৭১৯)।

রাজশাহী : এ বিভাগের ৩৯টি আসনের মধ্যে আওয়ামী লীগ ৩১ জন, বিএনপির ৪ জন, জাতীয় পার্টির ২ জন, ওয়ার্কার্স পার্টির ১ জন ও স্বতন্ত্র ১ জন জয় পেয়েছেন।

রাজশাহী-১ আসনে বিজয়ী আওয়ামী লীগের ওমর ফারুক চৌধুরী (২০৬৪১৩), নিকটতম বিএনপির আমিনুল হক (১১৫৭৩২); রাজশাহী-২ বিজয়ী ওয়ার্কার্স পার্টির ফজলে হোসেন বাদশা (১১৫৪৫৩), নিকটতম বিএনপি মিজানুর রহমান মিনু (১০৩৩২৭); রাজশাহী-৩ বিজয়ী আওয়ামী লীগের আয়েন উদ্দিন (২২৪৯৬২), নিকটতম বিএনপির শফিকুল ইসলাম মিলন (১৪১৬০); রাজশাহী-৪ বিজয়ী আওয়ামী লীগের এনামুল হক (১৯০৪১২), নিকটতম বিএনপির আবু হেনা (১৪১৫৭); রাজশাহী-৫ বিজয়ী আওয়ামী লীগের মনসুর রহমান (১৮৭৩৭০), নিকটতম বিএনপির নাদিম মোস্তফা (২৮৬৮৭); রাজশাহী-৬ বিজয়ী আওয়ামী লীগের শাহরিয়ার আলম (১৮৭৩৬৬), নিকটতম ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের আবদুস সালাম সুরুজ (৭৮৪৬); চাঁপাইনবাবগঞ্জ-১ বিজয়ী আওয়ামী লীগের ডা. শামিল উদ্দিন আহম্মেদ শিমুল (১৮০০৭৮), নিকটতম বিএনপির শাহজাহান মিয়া (১৬৩৬৫০); চাঁপাইনবাবগঞ্জ-২ বিজয়ী বিএনপির আমিনুল ইসলাম (১৭৫৪৬৬), নিকটতম আওয়ামী লীগের জিয়াউর রহমান (১৩৯৯৫২); চাঁপাইনবাবগঞ্জ-৩ বিজয়ী বিএনপির হারুনুর রশিদ (১৩৩৬৬১). নিকটতম আওয়ামী লীগের আব্দুল ওদুদ (৮৫৯৩৮); নওগাঁ-১ বিজয়ী আওয়ামী লীগের সাধন চন্দ্র মজুমদার (১৮৮০৯৪), নিটকতম বিএনপির ছালেক চৌধুরী (১৪০৮১৮); নওগাঁ-২ বিজয়ী আওয়ামী লীগের শহীদুজ্জামান সরকার (১৯৯৮৭৪), নিকটতম বিএনপির শামসুজ্জোহা খান (৯৯৯৫৮); নওগাঁ-৩ বিজয়ী আওয়ামী লীগের ছলিম উদ্দীন তালুকদার (১৯৯৭৯৩); নওগাঁ-৪ বিজয়ী আওয়ামী লীগের মুহাম্মদ ইমাজ উদ্দিন প্রামাণিক (১৬৩১৬২), নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী বিএনপির আবু হায়াত মোহম্মদ শামসুল আলম প্রামাণিক (৪৯৯৭১); নওগাঁ-৫ বিজয়ী আওয়ামী লীগের নিজাম উদ্দিন জলিল (১৫৬৮৭৬); নওগাঁ-৬ বিজয়ী আওয়ামী লীগের ইসরাফিল আলম (১৮৯৮৬৩), নিকটতম বিএনপির আলমগীর কবির (৪৬১৫০)।

জয়পুরহাট-১ বিজয়ী আওয়ামী লীগের সামছুল আলম দুদু (২১৮৫৮২), নিকটতম স্বতন্ত্র আলেয়া বেগম (৮৪২১২); জয়পুরহাট-২ বিজয়ী আওয়ামী লীগের আবু সাঈদ আল মাহমুদ স্বপন (২২৮৭৩০), নিকটতম বিএনপির আবু ইউসুফ মো. খলিলুর রহমান (২৬১২০); বগুড়া-১ বিজয়ী আওয়ামী লীগের আবদুল মান্নান (২৬৮৭৬৮), নিকটতম বিএনপির কাজী রফিকুল ইসলাম (১৬৬১৩); বগুড়া-২ বিজয়ী জাতীয় পার্টির শরিফুল ইসলাম জিন্নাহ (১৭৮১৪২), নিকটতম বিএনপির মাহমুদুর রহমান মান্না (৫৯৭১৩); বগুড়া-৪ বিজয়ী বিএনপির মোশারফ হোসেন (১২৬৭২২), নিকটতম জাসদের রেজাউল করিম তানসেন (৮৪৬৭৯); বগুড়া-৫ বিজয়ী আওয়ামী লীগের হাবিবর রহমান (৩৩২৮১৩), নিকটতম বিএনপির জি এম সিরাজ (৪৭৪৪১); বগুড়া-৬ বিজয়ী বিএনপির মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর (২০৫৯৮৭), নিকটতম জাতীয় পার্টির নূরুল ইসলাম ওমর (৩৯৯৬১); বগুড়া-৭ বিজয়ী স্বতন্ত্র রেজাউল করিম বাবলু (১৮৮৬৪৫), নিকটতম স্বতন্ত্র ফেরদাউস আরা খান (৬২০৫৫); নাটোর-১ বিজয়ী আওয়ামী লীগের শহিদুল ইসলাম বকুল (২৪৬০১১), নিকটতম বিএনপির কামরুন নাহার শিরীন (১৪৬১০); নাটোর-২ বিজয়ী আওয়ামী লীগের শফিকুল ইসলাম শিমুল (২৬০৫০৩), নিকটতম বিএনপির সাবিনা ইয়াসমিন (১৩৪৫৯); নাটোর-৩ বিজয়ী আওয়ামী লীগের জুনাইদ আহমেদ পলক (২৩০২৯৬), নিকটতম বিএনপির দাউদার মাহমুদ (৮৭৫০); নাটোর-৪ বিজয়ী আওয়ামী লীগের আবদুল কুদ্দুস (২৮৬২৬২), নিকটতম জাতীয় পার্টির আলা উদ্দিন মৃধা (৬৯২৯); সিরাজগঞ্জ-১ বিজয়ী আওয়ামী লীগের মোহাম্মদ নাসিম (৩২৪৪৩৬), নিকটতম বিএনপির রুমানা মোর্শেদ কনকচাঁপা (১০৮১); সিরাজগঞ্জ-২ বিজয়ী আওয়ামী লীগের হাবিবে মিল্লাত (২৯৪৮০৭), নিকটতম বিএনপির রুমানা মাহমুদ (১৩৭২৮); সিরাজগঞ্জ-৩ বিজয়ী আওয়ামী লীগের আবদুল আজিজ (২৯৮৭৬০), নিকটতম বিএনপির আবদুল মান্নান তালুকদার (২৪৪৮৭); সিরাজগঞ্জ-৪ বিজয়ী আওয়ামী লীগের তানভীর ইমাম (৩০৫৪৮৮), নিকটতম বিএনপির রফিকুল ইসলাম খান (২৪৪৮৭); সিরাজগঞ্জ-৫ বিজয়ী আওয়ামী লীগের আবদুল মমিন মণ্ডল (২৫৯৮৬১), নিকটতম বিএনপির আমিরুল ইসলাম খান (২৮৩১৭); সিরাজগঞ্জ-৬ বিজয়ী আওয়ামী লীগের হাসিবুর রহমান স্বপন (৩৩৫৭৫৯), নিকটতম বিএনপির এম এ মুহিত (১৪৬৯৭); পাবনা-১ বিজয়ী আওয়ামী লীগের শামসুল হক টুকু (২৮৩৯৯২), নিকটতম গণফোরামের আবু সাইয়িদ (১৫৩৯১); পাবনা-২ বিজয়ী আওয়ামী লীগের আহমেদ ফিরোজ কবীর (২৩৫২৩২), নিকটতম বিএনপির একেএম সেলিম রেজা হাবিব (৫১৪৯); পাবনা-৩ বিজয়ী আওয়ামী লীগের মকবুল হোসেন (২৮২৯৯২), নিকটতম বিএনপির কে এম আনোয়ারুল ইসলাম (১৫৩৯১); পাবনা-৪ বিজয়ী আওয়ামী লীগের শামসুর রহমান শরীফ (২৪৯৬২৭), নিকটতম বিএনপির হাবিবুর রহমান হাবিব (৪৮৮৪০) এবং পাবনা-৫ বিজয়ী আওয়ামী লীগের গোলাম ফারুক খন্দকার প্রিন্স (৩২১৪৩৮), নিকটতম বিএনপির ইকবাল হোসেন (২০৬৫৪)।

সিলেট : এ বিভাগের ১৯টি আসনের মধ্যে আওয়ামী লীগের ১৬, গণফোরাম ২ ও জাতীয় পার্টি ১টিতে জয় পেয়েছে। সিলেট-১ আসনে বিজয়ী আওয়ামী লীগের এ কে আবদুল মোমেন (২৯৮৬৯৬), নিকটতম বিএনপির খন্দকার আব্দুল মুক্তাদির (১২৩৮৫১); সিলেট-২ বিজয়ী গণফোরামের মোকাদ্দির (৬৭৪২০), নিকটতম স্বতন্ত্র মুহিবুর রহমান (৩০৪৪৯); সিলেট-৩ বিজয়ী আওয়ামী লীগের মাহমুদুস সামাদ চৌধুরী (১৭০৫০৭), নিকটতম বিএনপির শফি আহমেদ চৌধুরী (৭৯৮৬৫); সিলেট-৪ বিজয়ী আওয়ামী লীগের ইমরান আহমদ (২০৪৫৪৬), নিকটতম বিএনপির দিলদার হোসেন সেলিম (৯৩৪২৮); সিলেট-৫ বিজয়ী আওয়ামী লীগের হাফিজ আহমদ মজুমদার (১৪৩২৫৩), নিকটতম জমিয়তে উলামায়ের ওবায়দুল্লাহ ফারুক (৮৫৫৯১); সিলেট-৬ বিজয়ী আওয়ামী লীগের নুরুল ইসলাম নাহিদ (১৯৬০১৫), নিকটতম বিএনপির ফয়সাল চৌধুরী (১০৮০৮৯); সুনামগঞ্জ-১ বিজয়ী আওয়ামী লীগের মোয়াজ্জেম হোসেন রতন (২৬৫৯২৬), নিকটতম বিএনপির নজির হোসেন (৭৩৫৪৭); সুনামগঞ্জ-২ বিজয়ী আওয়ামী লীগের জয়া সেনগুপ্তা (১২৩৭১৩), নিকটতম বিএনপির নাছির উদ্দিন চৌধুরী (৬৭৭৮৫); সুনামগঞ্জ-৩ বিজয়ী আওয়ামী লীগের এম এ মান্নান (১৭৬০০০), নিকটতম ধানের শীষ প্রতীকে জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশের শাহিনুর পাশা চৌধুরী (৪৪২৮১); সুনামগঞ্জ-৪ বিজয়ী জাতীয় পার্টির পীর ফজলুর রহমান (১৩৭২৮৯), নিকটতম বিএনপির ফজলুল হক আছপিয়া (৬৯৭৪৯); সুনামগঞ্জ-৫ বিজয়ী আওয়ামী লীগের মহিবুর রহমান মানিক (২২০৪২৮), নিকটতম বিএনপির মিজানুর রহমান চৌধুরী (৬৯৬৩৪); মৌলভীবাজার-১ বিজয়ী আওয়ামী লীগের শাহাব উদ্দিন (১৪৩৬৩৯), নিকটতম বিএনপির নাছির উদ্দিন আহমেদ (৬৪৮২০); মৌলভীবাজার-২ বিজয়ী গণফোরামের সুলতান মোহাম্মদ মনসুর আহমেদ (৭৯৭৪২), নিকটতম বিকল্পধারার এম এম শাহীন (৭৭১৭০); মৌলভীবাজার-৩ বিজয়ী আওয়ামী লীগের নেসার আহমেদ (১৮৪৫৭৯), নিকটতম বিএনপির নাসের রহমান (১০৪৫৯৪); মৌলভীবাজার-৪ বিজয়ী আওয়ামী লীগের আবদুশ শহীদ (২১১৫৬৯), নিকটতম বিএনপির মুজিবুর রহমান চৌধুরী (৯৩৩০২); হবিগঞ্জ-১ বিজয়ী আওয়ামী লীগের গাজী মোহাম্মদ শাহনেওয়াজ (১৫৮১৮৮), নিকটতম গণফোরামের রেজা কিবরিয়া (৮৫১৯৭); হবিগঞ্জ-২ বিজয়ী আওয়ামী লীগের আব্দুল মজিদ খান (১৭৭৯৩১), নিকটতম খেলাফত মজলিসের আব্দুল বাসিত আজাদ (৬০০২৫); হবিগঞ্জ-৩ বিজয়ী আওয়ামী লীগের আবু জহির (১৯৩৮৭৩), নিকটতম বিএনপির জিকে গউছ (৬৮০৭৮) ও হবিগঞ্জ-৪ বিজয়ী আওয়ামী লীগের মাহবুব আলী (৩০৯৬৫৩), নিকটতম খেলাফত মজলিসের আহমদ আব্দুল কাদের (৪৫১৫১)।

খুলনা : খুলনা বিভাগে ৩৬টি আসনের মধ্যে ৩৪টি আওয়ামী লীগ, ১টি ওয়ার্কার্স পার্টি ও ১টি জাসদের (ইনু) প্রার্থী বিজয়ী হয়েছেন। মেহেরপুর-১ আসনে বিজয়ী আওয়ামী লীগের ফরহাদ হোসেন (১৯৭০৯৭), নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী বিএনপির মাসুদ অরুণ (১৪১৯২); মেহেরপুর-২ বিজয়ী আওয়ামী লীগের মোহাম্মদ শহিদুজ্জামান (১৬৯০১৪), নিকটতম বিএনপির জাভেদ মাসুদ (৭৯০০); কুষ্টিয়া-১ বিজয়ী আওয়ামী লীগের আ ক ম সারোয়ার জাহান বাদশা (২৭৬৫৮৫), নিকটতম বিএনপির রেজা আহাম্মেদ বাচ্চু (৬০৮৬); কুষ্টিয়া-২ বিজয়ী জাসদের হাসানুল হক ইনু (২৮১০৪৫), নিকটতম বিএনপির আহসান হাবিব লিংকন (৩৬৭৭৪); কুষ্টিয়া-৩ বিজয়ী আওয়ামী লীগের মাহবুবউল আলম হানিফ (২৯৬৫৯২), নিকটতম বিএনপির জাকির হোসেন সরকার (১৪৩৭৯); কুষ্টিয়া-৪ বিজয়ী আওয়ামী লীগের সেলিম আলতাফ জর্জ (২৭৯০১১), নিকটতম বিএনপির সৈয়দ মেহেদী আহমেদ রুমি (১২৪৯২); চুয়াডাঙ্গা-১ বিজয়ী আওয়ামী লীগের সোলায়মান হক জোয়ার্দ্দার ছেলুন (৩২৫২৮৪), নিকটতম বিএনপির মোহাম্মদ শরীফুজ্জামান শরীফ (২৪৪০৩); চুয়াডাঙ্গা-২ বিজয়ী আওয়ামী লীগের আলী আজগর টগর (২৯৯৩৩৪), নিকটতম বিএনপির মাহমুদ হাসান খান বাচ্চু (২৭৫৯৩); ঝিনাইদহ-১ বিজয়ী আওয়ামী লীগের আবদুল হাই (২২২০৩৫), নিকটতম বিএনপির মো. আসাদুজ্জামান (৬৬৬৮); ঝিনাইদহ-২ বিজয়ী আওয়ামী লীগের তাহজীব আলম সিদ্দিকী (৩২৫৮৮৬), নিকটতম ইসলামী আন্দোলনের ফখরুল ইসলাম (৯২৯৩); ঝিনাইদহ-৩ বিজয়ী আওয়ামী লীগের শফিকুল আজম খান (২৪২৫৩২), নিকটতম বিএনপির মতিয়ার রহমান (৩২২৪৯); ঝিনাইদহ-৪ বিজয়ী আওয়ামী লীগের আনোয়ারুল আজীম আনার (২২৫৯৬৫), নিকটতম বিএনপির সাইফুল ইসলাম ফিরোজ (৯৫০৬)।

যশোর-১ বিজয়ী আওয়ামী লীগের শেখ আফিল উদ্দিন (২৯০০৩৬), নিকটতম বিএনপির মফিকুল হাসান তৃপ্তি (৪৮০২); যশোর-২ বিজয়ী আওয়ামী লীগের নাসির উদ্দিন (৩৩২৯৫), নিকটতম বিএনপির আবু সাঈদ মুহাম্মদ শাহাদৎ হুসাইন (১২৯৮৮); যশোর-৩ বিজয়ী আওয়ামী লীগের কাজী নাবিল আহমেদ (৩৬১৩৩৩), নিকটতম বিএনপির অনিন্দ্য ইসলাম অমিত (৩১৭১০); যশোর-৪ বিজয়ী আওয়ামী লীগের রণজিত কুমার রায় (২৭১৬৬৪), নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী বিএনপির টিএস আইয়ুব (২৫৯১৯); যশোর-৫ বিজয়ী আওয়ামী লীগের স্বপন ভট্টাচার্য্য (২৪৩৩৮২), নিকটতম বিএনপির মুহাম্মদ ওয়াক্কাস (২৩১১২); যশোর-৬ বিজয়ী আওয়ামী লীগের ইসমাত আরা সাদেক (১৫৪০৫৩), নিকটতম বিএনপির আবুল হোসেন আজাদ (৫৫৪৮); মাগুরা-১ বিজয়ী আওয়ামী লীগের সাইফুজ্জামান শিখর (২৭৪১৩০), নিকটতম বিএনপির মনোয়ার হোসেন খান (১৬৪৬৭); মাগুরা-২ বিজয়ী আওয়ামী লীগের বীরেন শিকদার (২৩০১২৩), নিকটতম বিএনপির নিতাই রায় চৌধুরী (৫২০০৯)।

নড়াইল-১ বিজয়ী আওয়ামী লীগের কবিরুল হক (১৮২৫২৯), নিকটতম বিএনপির বিশ্বাস জাহাঙ্গীর আলম (৮৯১৯); নড়াইল-২ বিজয়ী আওয়ামী লীগের মাশরাফি বিন মুর্তজা (২৭১২১০), নিকটতম বিএনপির এ জেড এম ফরিদুজ্জামান (৭৮৮৩); বাগেরহাট-১ বিজয়ী আওয়ামী লীগের শেখ হেলাল উদ্দীন (২৫২৬৪৬), নিকটতম বিএনপির শেখ মাসুদ রানা (১১৪৮৫); বাগেরহাট-২ বিজয়ী আওয়ামী লীগের শেখ তন্ময় (২০২২১২), নিকটতম বিএনপির এম এ সালাম (৪৫৯৭); বাগেরহাট-৩ বিজয়ী আওয়ামী লীগের হাবিবুন নাহার (১৭৫৭৯৯), নিকটতম বিএনপির আবদুল ওয়াদুদ শেখ (১৩৪৭৫); বাগেরহাট-৪ বিজয়ী আওয়ামী লীগের মোজাম্মেল হোসেন (২৪৭৯৪১), নিকটতম ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের মাওলানা আব্দুল মজিদ (২২৪২); খুলনা-১ বিজয়ী আওয়ামী লীগের পঞ্চানন বিশ্বাস (১৭২০৫৯), নিকটতম বিএনপির আমীর এজাজ খান (২৮৪৩৭); খুলনা-২ বিজয়ী আওয়ামী লীগের শেখ সালাহউদ্দিন জুয়েল (১১২১০০), নিকটতম বিএনপির নজরুল ইসলাম মঞ্জু (২৭৩৭৯); খুলনা-৩ বিজয়ী আওয়ামী লীগের মন্নুজান সুফিয়ান (১৩৪৮০৬), নিকটতম বিএনপির রকিবুল ইসলাম (২৩৬০৬); খুলনা-৪ বিজয়ী আওয়ামী লীগের আবদুস সালাম মুর্শেদী (২২৩২১৪), নিকটতম বিএনপির আজিজুল বারী হেলাল (১৪১৮৭); খুলনা-৫ বিজয়ী আওয়ামী লীগের নারায়ণ চন্দ্র চন্দ (২৩১৭২৫), নিকটতম বিএনপির মিয়া গোলাম পরওয়ার (৩২৯৫৯); খুলনা-৬ আসনে বিজয়ী আওয়ামী লীগের আকতারুজ্জামান বাবু (২৮৪৩৪৯), নিকটতম বিএনপির আবুল কালাম আজাদ (১৯২৫৭); সাতক্ষীরা-১ বিজয়ী ওয়ার্কার্স পার্টির মুস্তফা লুৎফুল্লাহ (৩৩১৪০১), নিকটতম বিএনপির হাবিবুল ইসলাম হাবিব (১৬৮৯৭); সাতক্ষীরা-২ বিজয়ী আওয়ামী লীগের মীর মোশতাক আহমেদ রবি (১৫৫৬১১), নিকটতম বিএনপির মুহাম্মদ আব্দুল খালেক (২৭৭১১); সাতক্ষীরা-৩ বিজয়ী আওয়ামী লীগের আ ফ ম রুহুল হক (৩০৪৩৩৬), নিকটতম বিএনপির শহিদুল আলম (২৪৩৫৩) এবং সাতক্ষীরা-৪ বিজয়ী আওয়ামী লীগের এস এম জগলুল হায়দার (২৩৮৩৮৭), নিকটতম বিএনপির জি এম নজরুল ইসলাম (৩০৪৮৬)।

বরিশাল : এ বিভাগের ২১টি আসনের মধ্যে আওয়ামী লীগের ১৭ জন, জাতীয় পার্টির ৩ ও জেপির ১ প্রার্থী জয় পেয়েছেন। বরিশাল-১ আসনে বিজয়ী আওয়ামী লীগের আবুল হাসানাত আবদুল্লাহ (২০৫৫০২), নিকটতম ইসলামী আন্দোলনের রাসেল সরদার মেহেদী (১৩৭৯); বরিশাল-২ বিজয়ী আওয়ামী লীগের শাহে আলম (২১২৫১১), নিকটতম বিএনপির সরফুদ্দিন আহমেদ সান্টু (৮১০০); বরিশাল-৩ বিজয়ী জাতীয় পার্টির গোলাম কিবরিয়া টিপু (৫৫০৪৬), নিকটতম বিএনপির জয়নুল আবেদীন (৪৮৮৪০); বরিশাল-৪ বিজয়ী আওয়ামী লীগের পঙ্কজ দেবনাথ (২৩০৬৩৬), নিকটতম নাগরিক ঐক্যের নুরুর রহমান জাহাঙ্গীর (৮৯৩৫); বরিশাল-৫ বিজয়ী আওয়ামী লীগের কর্নেল জাহিদ ফারুক শামীম (২১১২৩২), নিকটতম বিএনপির মজিবর রহমান সরোয়ার (৩১৯৩৮); বরিশাল-৬ বিজয়ী জাতীয় পার্টির নাসরিন জাহান রত্না (১৫৯৮৯২), নিকটতম ইসলামী আন্দোলনের মো. নুরুল ইসলাম চৌধুরী (১৪৮৫১); ঝালকাঠি-১ বিজয়ী আওয়ামী লীগের বজলুল হক হারুন (১৩১৫২০), নিকটতম বিএনপির শাহজাহান ওমর (৬১২৫); ঝালকাঠি-২ বিজয়ী আওয়ামী লীগের আমির হোসেন আমু (২১৪৯৩৭), নিকটতম ইসলামী আন্দোলনের সৈয়দ ফজলুল করীম (৯৮১২); পটুয়াখালী-১ বিজয়ী আওয়ামী লীগের শাহজাহান মিয়া (২৭৪৯৯০), নিকটতম ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের আলতাফুর রহমান (১৫১০৩); পটুয়াখালী-২ বিজয়ী আওয়ামী লীগের আ স ম ফিরোজ (১৮৫৭৮৩), নিকটতম ইসলামী আন্দোলনের নজরুল ইসলাম (৯২৬৯); পটুয়াখালী-৩ বিজয়ী আওয়ামী লীগের এসএম শাহাজাদা (২১৫৫৬৯), নিকটতম ইসলামী আন্দোলনের কামাল খান (৬৮১৪); পটুয়াখালী-৪ বিজয়ী আওয়ামী লীগের মুহিবুর রহমান মুহিব (১৮৮৮১২), নিকটতম ইসলামী আন্দোলনের হাবিবুর রহমান হাওলাদার (৬৮০৪); বরগুনা-১ বিজয়ী আওয়ামী লীগের ধীরেন্দ্র দেবনাথ শম্ভু (৩১৯১৩৪), নিকটতম বিএনপির মতিয়ার রহমান তালুকদার (১৫১৫৩); বরগুনা-২ বিজয়ী আওয়ামী লীগের শওকত হাছানুর রহমান রিমন (২০০৩২৫), নিকটতম অ্যাডভোকেট খন্দকার মাহবুব হোসেন (৯৫১৮); পিরোজপুর-১ বিজয়ী আওয়ামী লীগের শ. ম. রেজাউল করিম (৩৩৭৬১০), নিকটতম বিএনপির শামীম সাঈদী চৌধুরী (৮৩১৮); পিরোজপুর-২ বিজয়ী জেপির আনোয়ার হোসেন মঞ্জু (১৭৯৪২৫), নিকটতম বিএনপির মো. মোস্তাফিজুর রহমান ইরান (৬৩২৬); পিরোজপুর-৩ বিজয়ী জাতীয় পার্টির মো. রুস্তম আলী ফরাজী (১৩৫৩১০), নিকটতম বিএনপির মো. রুহুল আমিন দুলাল (৭৬৯৮); ভোলা-১ বিজয়ী আওয়ামী লীগের তোফায়েল আহমেদ (২৪২০১৭), নিকটতম বিএনপির গোলাম নবী আলমগীর (৭২২৪); ভোলা-২ বিজয়ী আওয়ামী লীগের আলী আজম (২২৬১২৪), নিকটতম বিএনপির হাফিজ ইব্রাহীম (১৩৯৯৯); ভোলা-৩ বিজয়ী আওয়ামী লীগের বিজয়ী নুরুন্নবী চৌধুরী (২৫০৪১১), নিকটতম ইসলামী আন্দোলনের মো. মোসলেহ উদ্দীন (৪০৫৫) ও ভোলা-৪ বিজয়ী আওয়ামী লীগের আবদুল্লাহ আল ইসলাম জ্যাকব (২৯৯০৭৪), নিকটতম ইসলামী আন্দোলনের মো. মহিবুল্যাহ (৬৪৮১)।

রংপুর : রংপুর বিভাগের ৩৩টি আসনের মধ্যে ৩২টিতে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছে। এর মধ্যে আওয়ামী লীগের ২৪ জন, জাতীয় পার্টি ৭ ও বিএনপির ১ জন প্রার্থী জয় পেয়েছেন। রংপুর-১ আসনে বিজয়ী জাতীয় পার্টির মসিউর রহমান রাঙ্গাঁ (১৯৮৯১৩). নিকটতম বিএনপির শাহ রহমত উল্লা (১৮৯৫৪); রংপুর-২ আসনে বিজয়ী আওয়ামী লীগের আবুল কালাম মো. আহসানুল হক চৌধুরী ডিউক (১১৮৩৬৮), নিকটতম বিএনপির মোহাম্মদ আলী সরকার (৫২৮২৫); রংপুর-৩ আসনে বিজয়ী জাতীয় পার্টির হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ (১৪২৯২৬), নিকটতম ঐক্যফ্রন্টের রিটা রহমান (৫৩০৮৯); রংপুর-৪ বিজয়ী আওয়ামী লীগের টিপু মুনশি (১৯৯৩১২), নিকটতম বিএনপির এমদাদুল হক ভরসা (১০৩৪৮৩); রংপুর-৫ বিজয়ী আওয়ামী লীগের এইচ এন আশিকুর রহমান (২৫৫১৪০), নিকটতম বিএনপির শাহ সোলায়মান আলম ফকির (৬৩৪৬৯); রংপুর-৬ বিজয়ী আওয়ামী লীগের ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী (২৩৪৪২৬), নিকটতম বিএনপির সাইফুল ইসলাম (২৪০৫৩); দিনাজপুর-১ বিজয়ী আওয়ামী লীগের মনোরঞ্জন শীল গোপাল (১৯৮৭৯২), নিকটতম বিএনপির মোহাম্মদ হানিফ (৭৮৯২৮); দিনাজপুর-২ বিজয়ী আওয়ামী লীগের খালেদ মাহমুদ চৌধুরী (১৯৭২৬৬), নিকটতম বিএনপির মো. সাদিক রিয়াজ (৪৮৮২২); দিনাজপুর-৩ বিজয়ী আওয়ামী লীগের ইকবালুর রহিম (২৩০৪৪৬), নিকটতম ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের খায়রুজ্জামান (৩৯২৪৭); দিনাজপুর-৪ বিজয়ী আওয়ামী লীগের আবুল হাসান মাহমুদ আলী (২৯৩৮৬৬), নিকটতম বিএনপির আক্তারুজ্জামান মিয়া (৬১৭০৬); দিনাজপুর-৫ বিজয়ী আওয়ামী লীগের মোস্তাফিজুর রহমান ফিজার (১৮৮৬৮০), নিকটতম বিএনপির এ জেড এম রেজওয়ানুল হক (১২৮৫৬৭); দিনাজপুর-৬ বিজয়ী আওয়ামী লীগের শিবলি সাদিক (২৮১৮৯১), নিকটতম বিএনপির মো. আনোরুল ইসলাম (৬৯৭৬৯); নীলফামারী-১ বিজয়ী আওয়ামী লীগের আফতাব উদ্দিন সরকার (২০৩৭২৭), নিকটতম বিএনপির রফিকুল ইসলাম (৮৫০৮৯); নীলফামারী-২ বিজয়ী আওয়ামী লীগের আসাদুজ্জামান নূর (১৭৮৪৩০), নিকটতম বিএনপির মনিরুজ্জামান (৮০২৮৩); নীলফামারী-৩ বিজয়ী জাতীয় পার্টির মেজর (অব.) রানা মোহাম্মদ সোহেল (১৩৭৫৩৮), নিকটতম বিএনপির মো.আজিজুল ইসলাম (৪৪০৯৩); নীলফামারী-৪ বিজয়ী জাতীয় পার্টির আহসান আদিলুর রহমান (২৩৬৯৩০), নিকটতম ইসলামী আন্দোলনের মো. সহিদুল ইসলাম (২৭২৯৪); পঞ্চগড়-১ বিজয়ী আওয়ামী লীগের মজহারুল হক প্রধান (১৭৫২৫২), নিকটতম বিএনপির ব্যারিস্টার নওশাদ জমির (১২১৫৩২); পঞ্চগড়-২ বিজয়ী আওয়ামী লীগের নুরুল ইসলাম সুজন (১৬৯৫৯৪), নিকটতম বিএনপির ফরহাদ হোসেন আজাদ (১১১২৯৫); ঠাকুরগাঁও-১ বিজয়ী আওয়ামী লীগের রমেশ চন্দ্র সেন (২২৪০৭৮), নিকটতম বিএনপির মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর (১২৫৯০৯); ঠাকুরগাঁও-২ বিজয়ী আওয়ামী লীগের দবিরুল ইসলাম (২২৩৬১৬), নিকটতম বিএনপির আবদুল হাকিম (১৫৬৩৮); ঠাকুরগাঁও-৩ বিজয়ী বিএনপির জাহিদুর রহমান (৮৭১৬৫), নিকটতম স্বতন্ত্র ইমদাদুল হক (৭৯৮২৭); লালমনিরহাট-১ বিজয়ী আওয়ামী লীগের মোতাহার হোসেন (২৬৪১১২), নিকটতম বিএনপির ব্যারিস্টার হাসান রাজীব প্রধান (১১০০৩); লালমনিরহাট-২ বিজয়ী আওয়ামী লীগের নুরুজ্জামান আহমেদ (১৯৯৬৪৭), নিকটতম বিএনপির রুকন উদ্দিন বাবুল (৭৩৫৩৩); লালমনিরহাট-৩ বিজয়ী জাতীয় পার্টির জি এম কাদের (১১২৬৩২), নিকটতম বিএনপির আসাদুল হাবিব দুলু (৮৯১১৯) ; কুড়িগ্রাম-১ বিজয়ী আওয়ামী লীগের আছলাম হোসেন সওদাগর (১১৯৫৩৪), নিকটতম বিএনপির সাইফুর রহমান রানা (১১২৬০৯); কুড়িগ্রাম-২ বিজয়ী জাতীয় পার্টির পনির উদ্দিন আহমেদ (২২৯৪৪০), নিকটতম গণফোরামের মেজর জেনারেল (অব.) আ ম সা আ আমীন (১০৭১৪৬); কুড়িগ্রাম-৩ বিজয়ী আওয়ামী লীগের এম এ মতিন (১৩১৯০১), নিকটতম বিএনপির তাসভীর উল ইসলাম (৬৯২৮৫); কুড়িগ্রাম-৪ বিজয়ী আওয়ামী লীগের জাকির হোসেন (১৬২৩৮৬), নিকটতম বিএনপির আজিজুর রহমান (৫৫১৮৯); গাইবান্ধা-১ বিজয়ী জাতীয় পার্টির শামীম হায়দার পাটোয়ারী (১৯৭৫৮৫), নিকটতম বিএনপির মো. মাজেদুর রহমান (৬৫১৭৩); গাইবান্ধা-২ বিজয়ী আওয়ামী লীগের মাহবুব আরা বেগম গিনি (১৮৮৭৪০), নিকটতম গণফোরামের মো. আব্দুর রশীদ সরকার (৬৭৯৫৮); গাইবান্ধা-৪ বিজয়ী আওয়ামী লীগের মনোয়ার হোসেন চৌধুরী (৩০৮৬০০), নিকটতম জাতীয় পার্টির মসিউর রহমান (৫৭১৭); গাইবান্ধা-৫ বিজয়ী আওয়ামী লীগের অ্যাডভোকেট ফজলে রাব্বী মিয়া (২৪৬৮৬৩), নিকটতম বিএনপির ফারুক আলম সরকার (১৯২২৫)।

ময়মনসিংহ : ময়মনসিংহ বিভাগের ২৪ আসনের মধ্যে আওয়ামী লীগের ২২ ও জাতীয় পার্টির ২ জন প্রার্থী বিজয়ী হন। ময়মনসিংহ-১ আসনে বিজয়ী আওয়ামী লীগের জুয়েল আরেং (২৫৮৯২৩), নিকটতম বিএনপির আফজাল এইচ খান (২৮৬৩৮); ময়মনসিংহ-২ বিজয়ী আওয়ামী লীগের শরীফ আহমেদ (২৯১৪৭২), নিকটতম বিএনপির শাহ শহীদ সারোয়ার (৬২২৩৩); ময়মনসিংহ-৩ বিজয়ী আওয়ামী লীগের নাজিম উদ্দিন আহমেদ (১৫৯৩০০), নিকটতম বিএনপির এম ইকবাল হোসেইন (২৪৫১৯); ময়মনসিংহ-৪ বিজয়ী জাতীয় পার্টির রওশন এরশাদ (২৪৪৭৭৪), নিকটতম বিএনপির আবু ওয়াহাব আকন্দ (১০৩৭৫৩); ময়মনসিংহ-৫ বিজয়ী আওয়ামী লীগের কে এম খালিদ (২৩২৫৬৩), নিকটতম বিএনপির মোহাম্মদ জাকির হোসেন (২২২০৩); ময়মনসিংহ-৬ বিজয়ী আওয়ামী লীগের মো. মোসলেম উদ্দিন (২৪০৫৮৫), নিকটতম বিএনপির শামছ উদ্দিন আহমদ (৩২৩৩২); ময়মনসিংহ-৭ বিজয়ী আওয়ামী লীগের হাফেজ রুহুল আমিন মাদানী (২০৪৭৩৪), নিকটতম বিএনপির ডা. মাহবুবুর রহমান (৩৬৪০৮); ময়মনসিংহ-৮ বিজয়ী জাতীয় পার্টির ফখরুল ইমাম (১৫৬৭৬৯), নিকটতম গণফোরামের এ এইচ এম খালেকুজ্জামান (৩৪০৬৩); ময়মনসিংহ-৯ বিজয়ী আওয়ামী লীগের আনোয়ারুল আবেদিন খান তুহিন (২২৭০৪৮), নিকটতম বিএনপির খুররম খান চৌধুরী (২০৮৫৮); ময়মনসিংহ-১০ বিজয়ী আওয়ামী লীগের ফাহমী গোলন্দাজ বাবেল (২৮১২৩০), নিকটতম এলডিপির সৈয়দ মাহবুব মোরশেদ (৩১৭৫); ময়মনসিংহ-১১ বিজয়ী আওয়ামী লীগের কাজিম উদ্দিন আহমেদ ধনু (২২২২৪৮), নিকটতম বিএনপির ফকরুদ্দিন আহমেদ (২৬৮৯৬); নেত্রকোনা-১ আসনে বিজয়ী আওয়ামী লীগের মানু মজুমদার (২৩৯৭৩৮), নিকটতম বিএনপির ব্যারিস্টার কায়সার কামাল (১৬৩৩২); নেত্রকোনা-২ বিজয়ী আওয়ামী লীগের আশরাফ আলী খান খসরু (২৮৩৪৯৬), নিকটতম বিএনপির ডা. আনোয়ারুল হক (৩০৫৭৩); নেত্রকোনা-৩ বিজয়ী আওয়ামী লীগের অসীম কুমার উকিল (২৭০০৭৯), নিকটতম বিএনপির ডা. রফিকুল ইসলাম হিলালী (৭২২৮); নেত্রকোনা-৪ বিজয়ী আওয়ামী লীগের রেবেকা মমিন (২০৫০৯৫), নিকটতম বিএনপির তাহমিনা জামান শ্রাবণী (৩৮৬০৫); নেত্রকোনা-৫ বিজয়ী আওয়ামী লীগের ওয়ারেসাত হোসেন বেলাল (১৬৭৫৬২), নিকটতম বিএনপির আবু তাহের তালুকদার (১৫৮৮২)।
শেরপুর-১ বিজয়ী আওয়ামী লীগের আতিউর রহমান আতিক (২৮৭৪৫২), নিকটতম বিএনপির সানসিলা জেবরিন প্রিয়াংকা (২৭৬৪৩); শেরপুর-২ বিজয়ী আওয়ামী লীগের মতিয়া চৌধুরী (৩০০৪১২), নিকটতম বিএনপির ফাহিম চৌধুরী (৭৫৭০); শেরপুর-৩ বিজয়ী আওয়ামী লীগের প্রকৌশলী একেএম ফজলুল হক চান (২৫১৯৩৬), নিকটতম বিএনপির মাহমুদুর হক রুবেল (১২৪৯১)।

জামালপুর-১ বিজয়ী আওয়ামী লীগের আবুল কালাম আজাদ (২৭৪৬০৫), নিকটতম ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের আব্দুল মজিদ (৫২২৪); জামালপুর-২ বিজয়ী আওয়ামী লীগের ফরিদুল হক খান (১৮০৪১৮), নিকটতম বিএনপির সুলতান মাহমুদ বাবু (১৬৭২১); জামালপুর-৩ বিজয়ী আওয়ামী লীগের মির্জা আজম (৩৮৬৮২৮), নিকটতম বিএনপির মোস্তাফিজুর রহমান বাবলু (৪৬৫৬); জামালপুর-৪ বিজয়ী আওয়ামী লীগের মুরাদ হাসান (২১৭১৯৮), নিকটতম জাতীয় পার্টির মোখলেছুর রহমান (১৫৯৩); জামালপুর-৫ আওয়ামী লীগের মোজাফফর হোসেন (৩৭১৪৩৪), নিকটতম বিএনপির শাহ মো. ওয়ারেছ আলী মামুন (৩৪০৮৭)।

বিষয় : একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন আওয়ামী লীগ সংসদ নির্বাচন