বিশেষ লেখা

আমাদের সকলেরই দায় আছে

প্রকাশ: ০৫ ডিসেম্বর ২০১৮       প্রিন্ট সংস্করণ     

সুলতানা কামাল

ভিকারুননিসা নূন স্কুলের নবম শ্রেণির ছাত্রী অরিত্রি। খবরে প্রকাশ, পরীক্ষার হলে মোবাইল নিয়ে যাওয়ার কারণে তার বাবা-মাকে স্কুল কর্তৃপক্ষ অপমান করে। এই যন্ত্রণা সহ্য করতে না পেরে অরিত্রি আত্মহননের পথ বেছে নেয়। এটা একটা খুবই দুঃখজনক ঘটনা। অরিত্রি যে এভাবে আত্মহত্যা করতে বাধ্য হলো এ জন্য আমাদের সমাজ ব্যবস্থাই সম্পূর্ণ দায়ী। আমরা কেউ এ দায় এড়াতে পারি না। আমরা একে অপরকে অপদস্থ করে পরিস্থিতিকে নিজের আয়ত্তে নিয়ে আসার কৌশলকেই আমাদের সামাজিক সংস্কৃতির বৈশিষ্ট্য হিসেবে গ্রহণ করে নিয়েছি।

এটা আমাদের সাংস্কৃতিক বিপর্যয় বলেই আমি মনে করি। পরীক্ষার হলে মেয়েটির কাছে মোবাইল ফোন পাওয়া যায়।

অভিযোগ আছে, মেয়েটি পরীক্ষায় অসদুপায় অবলম্বন করছিল। ফলে শিক্ষকরা তাকে তিরস্কার করেছেন। পরবর্তী সময়ে তার বাবা-মাকে ডেকে নিয়ে এসে অপমান করা হয়। জানা গেছে, ক্ষমা চেয়েও রেহাই পাননি অরিত্রির বাবা।

আমাদের বিদ্যালয়গুলোতে শিশু-কিশোররা যায় শিক্ষা গ্রহণের উদ্দেশ্যে; আমরা জেনে এসেছি চরিত্র গঠনও তার একটি অবিচ্ছেদ্য অংশ। ছাত্রছাত্রীরা অবশ্যই ভুল করতে পারে, সেটা অন্যায়ের পর্যায়েও পড়তে পারে। শিক্ষকরা তাদের সেই ভুল ধরিয়ে দেবেন, তাকে সঠিক পথে আনার জন্য যা যা করণীয় সবই করবেন, সেটাই প্রত্যাশিত। অন্যায় শুধরাবার কোনো সুযোগই যদি সে না পেল এবং সেটার কারণে তাকে একেবারে আত্মহত্যার পথ বেছে নিতে হলো, তাহলে বুঝতে হবে আমাদের সমস্যা সমাধানের প্রক্রিয়ার মধ্যে মৌলিক কোনো ত্রুটি রয়ে গেছে। তার বড় একটি লক্ষণ হলো শিক্ষকদের আচরণে সহমর্মিতা ও সৌজন্যবোধের অভাব। বড়দের চরিত্রে, বিশেষত বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের সৌজন্যবোধ থাকতে হয়, যাতে সার্বিকভাবে শিক্ষার্থীদের মধ্যে সৌজন্যবোধ তৈরি হয়। শিক্ষকদেরই যদি এর অভাব থাকে; তবে আমাদের শিক্ষার্থীরা কার কাছ থেকে শিখবে, কোথা থেকে শিখবে। সন্তানের অসদাচরণে বিপন্ন বোধ করা বাবাকে যেভাবে ভিকারুননিসা নূন স্কুলের কর্তৃপক্ষ অপমান ও অপদস্থ করল তা আমাদের সামাজিক সংস্কৃতির চরিত্র নিয়ে ভাবিত করে বৈকি।

আমরা যে সমাজে বাস করি, সেখানে একে অপরকে পেছনে ফেলে যেভাবেই হোক নিজের স্বার্থ উদ্ধার করে নেওয়াকেই সাফল্য বলে বাহবা দেওয়া হয়। যে কোনো কৌশলে অন্যের চেয়ে নিজেকে শ্রেয় প্রমাণ করাটাই আমাদের সন্তানদের মূল চ্যালেঞ্জ হিসেবে দাঁড় করিয়ে দিয়েছি আমরা। আমাদের তৈরি সমাজের এই অসম্ভব রেষারেষির নিয়মেই এক পর্যায়ে অরিত্রি আত্মহত্যা করতে বাধ্য হয়েছে।

ভালো ফল করার চাপের মধ্যে বিদ্যালয়গুলোতে শিক্ষার্থীরা কী শিখছে, কতটা শিখছে এবং কীভাবে শিখছে এসব প্রশ্ন বহুদিন ধরে উত্থাপিত হয়ে আসছে। এসব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে প্রচলিত নিয়ম শিক্ষার্থীদের মানস গঠনে কতটা সহায়ক ভূমিকা রাখছে, সেসবও দেখার সময় এসেছে। ভয়মুক্ত সমাজের জন্য আমাদের হাজারো প্রচেষ্টা সত্যিই বিফলে যাবে, যদি আমরা আগামী দিনের প্রতিনিধি এসব কোমলমতি শিক্ষার্থীর জন্য সুষ্ঠু ও সুন্দর শিক্ষার পরিবেশ তৈরি করতে না পারি।

আমাদের নৈতিকতা এতই নিচে নেমে গেছে যে, আমরা দু'দিন যেতে না যেতেই আমাদের সন্তানদের জীবনের এই বিপর্যয়ের কথা ভুলে যাই। এসবের যেন কোনো প্রতিকার নেই। কোনো আইন নেই। দু'দিন পরেই হয়তো অন্য কোনো খবরের কারণে এই ঘটনাটিও সম্পূর্ণভাবে আমাদের বিস্মরণে চলে যাবে। এসব ঘটনা আর আমাদের তেমনভাবে আলোড়িত করবে না। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সমালোচনা চলছে, আমরা অনেকেই অনেক কথা বলব; কিন্তু এসবের কোনো ফলাফল কি আসবে?

প্রতিকারহীন এই নির্লিপ্ততার কারণেই অরিত্রির আত্মহত্যা, যা সামাজিক বিশৃঙ্খলারই অনুষঙ্গ বলে মনে করি। আমাদের আরও বেশি সজাগ ও সচেতন হতে হবে। সংবেদনশীল হতে হবে। অনিয়মের বিরুদ্ধে সোচ্চার হতে হবে। স্বভাব ও আচরণে সৌজন্যবোধের প্রকাশ থাকতে হবে। সুস্থ-স্বাভাবিক ও সুন্দর মানুষ গড়ে তোলার প্রত্যয়ে স্কুল-কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয়গুলোকে আরও বেশি মনোযোগী হতে হবে।

আমাদের পরস্পরের মধ্যে ক্রমাগত দূরত্ব তৈরি করছি, একে অপরের বিরুদ্ধে দেয়ালের পর দেয়াল তুলছি আমরা। তাই যে কোনো পরিস্থিতিতে কাউকে অপমান করতে বিন্দুমাত্র বাধে না আমাদের। দূরত্ব কমিয়ে আমরা একে অপরের সঙ্গে সহযোগিতা ও সহমর্মিতার সূত্রে বাস করার অঙ্গীকারের মধ্য দিয়ে হয়তো এ ধরনের বিপর্যয় ঠেকাতে পারি। মানুষ সে জন্যই সমাজবদ্ধ হয়। সেখানে আমাদের সবারই দায় রয়েছে।
লেখক : মানবাধিকার নেত্রী, তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সাবেক উপদেষ্টা

আরও পড়ুন

'অপ্রতিরোধ্য বাংলাদেশ' গড়বে আওয়ামী লীগ

'অপ্রতিরোধ্য বাংলাদেশ' গড়বে আওয়ামী লীগ

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন সামনে রেখে দুই প্রধান জোটেই চলছে ...

ক্ষমতার ভারসাম্য চায় ঐক্যফ্রন্ট

ক্ষমতার ভারসাম্য চায় ঐক্যফ্রন্ট

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন সামনে রেখে দুই প্রধান জোটেই চলছে ...

যুদ্ধাপরাধীদের সন্তানরাও ভোটের লড়াইয়ে

যুদ্ধাপরাধীদের সন্তানরাও ভোটের লড়াইয়ে

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে একাত্তরে মানবতাবিরোধী অপরাধ মামলার আসামি, যুদ্ধাপরাধে ...

সর্বাত্মক সঙ্গী সোভিয়েত ইউনিয়ন

সর্বাত্মক সঙ্গী সোভিয়েত ইউনিয়ন

বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধে আন্তর্জাতিক পর্যায়ে ভারত প্রত্যক্ষভাবে সবচেয়ে বেশি সহযোগিতা করলেও ...

৩৬৫ দিনই পাশে

৩৬৫ দিনই পাশে

চলতি বছরের ৭ ডিসেম্বর। রাজবাড়ীর গোয়ালন্দের দৌলতদিয়া যৌনপল্লী থেকে জাতীয় ...

নির্বাচনের খরচে চোখ রাখছে দুদক

নির্বাচনের খরচে চোখ রাখছে দুদক

দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) চোখ এখন নির্বাচনী মাঠে। প্রচারণায় অস্বাভাবিক ...

বিএনপি কর্মীদের পিটুনিতে আ.লীগ নেতার মৃত্যু

বিএনপি কর্মীদের পিটুনিতে আ.লীগ নেতার মৃত্যু

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ভোটের প্রচারের দ্বিতীয় দিনে ফরিদপুর-৩ (সদর) ...

জনগণ স্বাধীনতার চেতনার পক্ষে ভোট দেবে: তোফায়েল

জনগণ স্বাধীনতার চেতনার পক্ষে ভোট দেবে: তোফায়েল

জনগণ স্বাধীনতার চেতনার পক্ষে ভোট দেবে বলে মন্তব্য করেছেন বাণিজ্যমন্ত্রী ...