দুই জোটে আসন ভাগাভাগি

শরিকদের সঙ্গে সমঝোতায় হিমশিম বিএনপি

নির্বাচন ২০১৮

প্রকাশ: ০৬ ডিসেম্বর ২০১৮       প্রিন্ট সংস্করণ     

কামরুল হাসান

দফায় দফায় বৈঠক করেও একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আসন বণ্টন নিয়ে সমঝোতায় পৌঁছতে পারছে না বিএনপি জোট। জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট ও ২০ দলীয় জোটের শরিক দলগুলোর সঙ্গে আসন বণ্টন করতে গিয়ে হিমশিম খাচ্ছে জোটের প্রধান শরিক বিএনপি। যোগ্য ও শক্তিশালী প্রার্থীদের মনোনয়ন দেওয়া নিয়ে ঐকমত্যে পৌঁছাতে পারছে না দলটি।

দুই জোটকে ৫০ থেকে ৫৫টি আসন ছাড়তে চাইছে বিএনপি। তবে নিজেদের প্রার্থীকে যোগ্য দাবি করে আরও আসন চাইছে জোটের শরিকরা। আজ বৃহস্পতিবার ঐক্যফ্রন্টের স্টিয়ারিং কমিটির বৈঠকে চূড়ান্ত ফয়সালা হবে বলে জোটের নেতারা আশা করছেন।

বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর সাংবাদিকদের জানিয়েছেন, চূড়ান্ত প্রার্থী তালিকা গুছিয়ে আনা হয়েছে। দু-একদিনের মধ্যে জোটের চূড়ান্ত প্রার্থী তালিকা প্রকাশ করা হবে। ঐক্যফ্রন্টের নেতা ও নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না সমকালকে বলেন, আসন বণ্টনের বিষয়টি সমাধানের চূড়ান্ত পথে রয়েছে। কাল (বৃহস্পতিবার) বিকেলে ঐক্যফ্রন্টের স্টিয়ারিং কমিটির বৈঠক রয়েছে। সেখান থেকেই গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত আসতে পারে। বৃহস্পতিবার অথবা শুক্রবার ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থী ঘোষণা করা হবে বলেও জানান তিনি।

বিএনপি সূত্র জানায়, আসন বণ্টন নিয়ে ২০ দলীয় জোটের চেয়ে ঐক্যফ্রন্টে সমস্যা বেশি হচ্ছে। ঐক্যফ্রন্টের শরিক গণফোরাম, জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল-জেএসডি, কৃষক শ্রমিক জনতা লীগ ও নাগরিক ঐক্য পঞ্চাশের বেশি আসন চাইছে। এর মধ্যে গণফোরামের আসন সংখ্যা বেশি।

বিষয়টি সমাধান করতে গতকাল বুধবার দুপুরে ঐক্যফ্রন্টের শীর্ষ নেতা ও গণফোরাম সভাপতি ড. কামাল হোসেনের সঙ্গে একান্তে বৈঠক করেন মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। পরে নাগরিক ঐক্যসহ অন্যান্য দলের সঙ্গেও ধারাবাহিক বৈঠক করেন বিএনপির শীর্ষ নেতারা। এর আগেও দফায় দফায় এসব দলের নেতাদের সঙ্গে বৈঠক করে দলটি। তবে এখনও কোনো চূড়ান্ত সমাধান আসেনি।

সূত্র জানায়, নির্বাচনকে নিজেদের অস্তিত্ব রক্ষার লড়াই বলে মনে করছে বিএনপি। সে ক্ষেত্রে দলটি নির্বাচনে জয়লাভকেই সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিচ্ছে। তাই জয় পেতে তারা জনপ্রিয় ও দক্ষ নেতাকে মনোনয়ন দিতে চায়। জোটের শরিক দলের নেতাকে মনোনয়ন দেওয়া হলে বিএনপির নেতাকর্মীদের কাছে তা কতটুকু গ্রহণযোগ্যতা পাবে, তার হিসাবও করা হচ্ছে। প্রয়োজনে নির্বাচিত হতে পারলে রাষ্ট্র পরিচালনায় শরিক দলগুলোকে গুরুত্ব দেবে তারা। কিন্তু আবেগের বশে কোনো নেতাকে মনোনয়ন দিয়ে হারের ঝুঁকি বাড়াতে রাজি নয় বিএনপির শীর্ষ নেতারা।

সূত্র আরও জানায়, গণফোরামকে ছয়টি আসন দিতে এরই মধ্যে সম্মতি জানিয়েছে বিএনপি। এর মধ্যে দলটির সাধারণ সম্পাদক মোস্তফা মহসিন মন্টুকে ঢাকা-৭, নির্বাহী সভাপতি সুব্রত চৌধুরীকে ঢাকা-৬, রেজা কিবরিয়াকে হবিগঞ্জ-১, সাবেক প্রতিমন্ত্রী অধ্যাপক আবু সাইয়িদকে পাবনা-১ ও সুলতান মোহাম্মদ মনসুরকে মৌলভীবাজার-২, মেজর জেনারেল (অব.) আ ম সা আমিনকে কুড়িগ্রাম-২ আসনে চূড়ান্ত মনোনয়ন দেওয়া হবে। তবে দলটির পক্ষে আরও ১২টি আসন দাবি করা হচ্ছে। তা নিয়েই দরকষাকষি চলছে।

গণফোরামকে দেওয়া ছয়টি আসনের মধ্যে ঢাকা-৬ নিয়েও সমস্যা তৈরি হয়েছে। তাই এ আসনের বিষয়ে আলোচনা চলছে। বিএনপি মনে করে, আসনটি ছাড়া হলে জয়ের সম্ভাবনা ক্ষীণ। নেতাকর্মীরা স্বতঃস্ম্ফূর্তভাবে সুব্রত চৌধুরীর পক্ষে কাজ করবে কি-না তা নিয়ে সন্দিহান বিএনপি।

দলটির সিনিয়র নেতারা জানান, ঢাকা-৬ বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান সাদেক হোসেন খোকার শক্ত ঘাঁটি হিসেবে পরিচিত। তিনি দেশের বাইরে থাকলেও তার ছেলে ইঞ্জিনিয়ার ইশরাক হোসেন এখান থেকে নির্বাচন করতে চান। তিনি ইতিমধ্যে ড. কামাল হোসেনের সঙ্গেও বৈঠক করেছেন। এ আসনে গণফোরামের কোন ভোটব্যাঙ্ক নেই। বিএনপির নেতাকর্মীদের সক্রিয় করতে না পারলে গনফোরাম প্রার্থীর ভরাডুবি ঘটতে পারে। তাই অন্য কাউকে মনোনয়ন দিয়ে সুব্রত চৌধুরীকে অন্যভাবে মূল্যায়নের আশ্বাস দেওয়া হচ্ছে।

জেএসডিকে ৩টি আসনের বিষয়ে আশ্বাস দিয়েছে বিএনপি। এর মধ্যে দলটির সভাপতি আ স ম আবদুর রবের লক্ষ্মীপুর-৪, সাধারণ সম্পাদক আবদুল মালেক রতনের কুমিল্লা-৪ রয়েছে। তবে দলটির পক্ষে আরও ৪টি আসন দাবি করা হয়েছে। এর মধ্যে ঢাকা-১৪ আসনে কামাল উদ্দিন পাটোয়ারী ও ঢাকা-১৮ আসনে শহিদ উদ্দিন মাহমুদ স্বপন রয়েছেন। এর বাইরে বগুড়া-৭ ও কিশোরগঞ্জ-৩ আসনও তারা দাবি করেছে।

জেএসডি সহসভাপতি তানিয়া রব সমকালকে বলেন, আসন বণ্টনের বিষয়টি এখনও সমাধান হয়নি। তবে হয়ে যাবে। আমরা যোগ্য প্রার্থীদেরই প্রাধান্য দেব। গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারে আমরা যে কোনো ত্যাগ স্বীকারে প্রস্তুত।

কৃষক শ্রমিক জনতা লীগকে ২টি আসন দিতে চাইছে বিএনপি। তা হলো- টাঙ্গাইল-৪ ও টাঙ্গাইল-৮। তবে দলটির পক্ষ থেকে আরও ৩টি আসন দাবি করা হয়েছে। সেগুলো হলো- টাঙ্গাইল-৭, টাঙ্গাইল-৫ এবং গাজীপুর-৩।

নাগরিক ঐক্যকে ২টি আসন দেওয়ার বিষয়ে নিশ্চয়তা দেওয়া হয়েছে। তা হলো দলটির আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্নার জন্য বগুড়া-২ এবং দলটির নেতা এস এম আকরামের জন্য নারায়ণগঞ্জ-৫। তবে তাদের পক্ষে আরও ৪টি আসন দাবি করা হচ্ছে। তবে সেসব আসনে দলটির প্রার্থীর থেকে বিএনপির প্রার্থী অনেক শক্তিসালী।

আসন বণ্টনে ২০ দলীয় জোটর শরিকদের মধ্যে সমস্যা না থাকলেও অস্বস্তিতে রয়েছে বিএনপি। এর মধ্যে জামায়াতের সঙ্গে ২৫টি আসনে সমঝোতা করে দলটির প্রার্থীদের ধানের শীষে মনোনয়ন দিয়েছে বিএনপি। এর মধ্যে দিনাজপুর-১ আসনে জামায়াত নেতা মুহম্মদ হানিফের প্রার্থিতা বাতিল হয়েছে। তিনি আপিল করেছেন।

নিবন্ধন হারানো জামায়াত আরও তিনটি আসন চাইছে। সে আসনগুলো হলো- চাঁপাইনবাবগঞ্জ-৩, পাবনা-১, রাজশাহী-১। রাজশাহী-১ আসনে স্বতন্ত্র প্রার্থী হয়েছিলেন জামায়াতের নায়েবে আমির মুজিবুর রহমান। তার মনোনয়নপত্র বাতিল হয়েছে। তিনি আপিল করেছেন। পাবনা-১ চান মানবতাবিরোধী অপরাধের দায়ে দণ্ডিত মতিউর রহমান নিজামীর ছেলে ব্যারিস্টার নাজিবুর রহমান মোমেন। ঢাকা-১৫ আসন নিয়েও বেকায়দায় আছে বিএনপি। এ আসন থেকে জামায়াতের সেক্রেটারি জেনারেল ডা. শফিকুর রহমান নির্বাচন করতে চান।

এলডিপিকে ৪টি আসন দিয়েছে বিএনপি। এর মধ্যে কর্নেল (অব.) অলি আহমদকে চট্টগ্রাম-১৪, মহাসচিব ড. রেদোয়ান আহমেদকে কুমিল্লা-৭, আবদুল করিম আব্বাসীকে নেত্রকোনা-১ ও শাহাদাত হোসেন সেলিমকে লক্ষ্মীপুর-১ দেওয়া হয়েছে। দলটি আরও ১টি আসনের জন্য জোর দাবি জানাচ্ছে। চট্টগ্রাম-৭ আসন পেতে গতকাল রাতেও গুলশান কার্যালয়ে বৈঠক করেন নেতারা।

দলটির যুগ্ম মহাসচিব শাহাদাত হোসেন সেলিম জানান, ৪টি আসনের বিষয়ে সমঝোতায় পৌঁছালেও আরও ২টি আসনে তাদের যোগ্য প্রার্থী রয়েছেন। বিএনপির শীর্ষ নেতাদের সঙ্গে বিষয়টি নিয়ে কথা হয়েছে। তারা দেখবেন বলে জানিয়েছেন।

এ ছাড়া জোটের অন্যান্য শরিক দলের মধ্যে জাতীয় পার্টির (কাজী জাফর) ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান ড. টি আই ফজলে রাব্বীর জন্য গাইবান্ধা-৩সহ আরও একটি আসন ছাড়বে বিএনপি। কল্যাণ পার্টির মেজর জেনারেল (অব.) সৈয়দ মুহাম্মদ ইবরাহিম চট্টগ্রাম-৫, বিজেপির আন্দালিভ রহমান পার্থ ভোলা-১, জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের মুফতি ওয়াক্কাস যশোর-৫ এবং শাহীনুর পাশা চৌধুরী সুনামগঞ্জ-৩ আসন পাচ্ছেন। খেলাফত মজলিসের মহাসচিব ড. আহমদ আব্দুল কাদের হবিগঞ্জ-৪, জাগপার শফিউল আলম প্রধানের মেয়ে ব্যারিস্টার তাসমিয়া প্রধান পঞ্চগড়-২, মশিউর রহমান যাদু মিয়ার মেয়ে পিপলস পার্টির রিটা রহমান রংপুর-৩ আসন পাচ্ছেন। এর বাইরে মাইনরিটি জনতা পার্টির সুকৃতি কুমার মণ্ডল যশোর-৪ আসন পেতে জোর চেষ্টা চালাচ্ছেন।

অর্থ আদায়ের 'অদ্ভুত' খাত ভিকারুননিসায়

অর্থ আদায়ের 'অদ্ভুত' খাত ভিকারুননিসায়

"অদ্ভুত অদ্ভুত খাত চালু করে প্রতিনিয়ত অভিভাবকদের পকেট কাটছে ভিকারুননিসা ...

'অপ্রতিরোধ্য বাংলাদেশ' গড়বে আওয়ামী লীগ

'অপ্রতিরোধ্য বাংলাদেশ' গড়বে আওয়ামী লীগ

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন সামনে রেখে দুই প্রধান জোটেই চলছে ...

ক্ষমতার ভারসাম্য চায় ঐক্যফ্রন্ট

ক্ষমতার ভারসাম্য চায় ঐক্যফ্রন্ট

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন সামনে রেখে দুই প্রধান জোটেই চলছে ...

যুদ্ধাপরাধীদের সন্তানরাও ভোটের লড়াইয়ে

যুদ্ধাপরাধীদের সন্তানরাও ভোটের লড়াইয়ে

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে একাত্তরে মানবতাবিরোধী অপরাধ মামলার আসামি, যুদ্ধাপরাধে ...

সর্বাত্মক সঙ্গী সোভিয়েত ইউনিয়ন

সর্বাত্মক সঙ্গী সোভিয়েত ইউনিয়ন

বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধে আন্তর্জাতিক পর্যায়ে ভারত প্রত্যক্ষভাবে সবচেয়ে বেশি সহযোগিতা করলেও ...

৩৬৫ দিনই পাশে

৩৬৫ দিনই পাশে

চলতি বছরের ৭ ডিসেম্বর। রাজবাড়ীর গোয়ালন্দের দৌলতদিয়া যৌনপল্লী থেকে জাতীয় ...

নির্বাচনের খরচে চোখ রাখছে দুদক

নির্বাচনের খরচে চোখ রাখছে দুদক

দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) চোখ এখন নির্বাচনী মাঠে। প্রচারণায় অস্বাভাবিক ...

বিএনপি কর্মীদের পিটুনিতে আ.লীগ নেতার মৃত্যু

বিএনপি কর্মীদের পিটুনিতে আ.লীগ নেতার মৃত্যু

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ভোটের প্রচারের দ্বিতীয় দিনে ফরিদপুর-৩ (সদর) ...