ঢাকা সোমবার, ২০ মে ২০২৪

করোনার প্রভাব: হজ নিবন্ধনে তৃতীয় দফা সময় বাড়ল

করোনার প্রভাব: হজ নিবন্ধনে তৃতীয় দফা সময় বাড়ল

ফাইল ছবি

সমকাল প্রতিবেদক

প্রকাশ: ০৮ এপ্রিল ২০২০ | ১০:১৫ | আপডেট: ৩০ নভেম্বর -০০০১ | ০০:০০

হজ নিবন্ধনে তৃতীয় দফা সময় বাড়ানো হলো। বিশ্বব্যাপী করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবে হজ নিবন্ধন চলছিল ধীরগতিতে। 

দফায় দফায় হজযাত্রী নিবন্ধনের কথা বলা হলেও সংখ্যা তেমন বাড়েনি। এ কারণে সময় বাড়ানো হয় ২৫ মার্চ ও এরপর ৮ এপ্রিল পর্যন্ত। কিন্তু করোনাভাইরাস মহামারিতে রূপ নেওয়ায় এবার হজ নিবন্ধনের জন্য ১৬ এপ্রিল পর্যন্ত সময় বাড়িয়েছে সরকার। 

বুধবার ধর্ম মন্ত্রণালয়ের হজ শাখা থেকে সরকারি ও বেসরকারি ব্যবস্থাপনার হজযাত্রী নিবন্ধন সংক্রান্ত জরুরি বিজ্ঞপ্তি জারি করা হয়।চাঁদ দেখা সাপেক্ষে আগামী ৩০ জুলাই অর্থাৎ ৯ জিলহজ এবার হজ হবে। সে অনুযায়ী ২৩ জুন হজ ফ্লাইট শুরু হবে। 

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ২০২০ সালে হজ করতে আগ্রহী অনেকে নিবন্ধনের জন্য পাসপোর্ট জমা দিলেও দীর্ঘ ছুটির কারণে ব্যাংক থেকে নিবন্ধন ভাউচার নিতে পারেননি। তাদের কথা বিবেচনা করেই সময় বাড়ানো হলো।

যারা সরকারি ব্যবস্থাপনায় হজ করতে প্রাক-নিবন্ধন করেছেন এবং নতুন যারা প্রাক-নিবন্ধন ও নিবন্ধন করতে চান, তাদের সবার জন্যই এ সুযোগ প্রযোজ্য। আর যারা বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় প্রাক-নিবন্ধন করেছেন, তাদের মধ্যে ছয় লাখ ৭২ হাজার ১৯৯ ক্রমিক পর্যন্ত যারা আছেন, 'আগে আসলে আগে নিবন্ধন' ভিত্তিতে তাদের নিবন্ধন করা হবে। পাসপোর্ট ভেরিফিকেশনের সুবিধার্থে ১৫ এপ্রিলের মধ্যে সংশ্নিষ্ট নিবন্ধন কেন্দ্রে পাসপোর্ট দাখিল করতে হবে।

হজযাত্রীদের জন্য সম্প্রতি তিন ধরনের প্যাকেজ মন্ত্রিসভায় অনুমোদন হয়। এর মধ্যে প্রথম প্যাকেজে চার লাখ ২৫ হাজার টাকা, দ্বিতীয় প্যাকেজে তিন লাখ ৬০ হাজার টাকা এবং তৃতীয় প্যাকেজে তিন লাখ ১৫ হাজার টাকা খরচ হবে। বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় হজ করতে আগ্রহীদের নিবন্ধন করতে আপাতত বিমান ভাড়া ও সার্ভিস চার্জ বাবদ এক লাখ ৫১ হাজার ৯৯০ টাকা জমা দিতে হবে। চলতি বছর বাংলাদেশ থেকে এক লাখ ৩৭ হাজার ১৯৮ জন হজে যেতে পারবেন। এর মধ্যে সরকারি ব্যবস্থাপনায় ১৭ হাজার ১৯৮ জন এবং বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় এক লাখ ২০ হাজার জন হজে যাওয়ার সুযোগ পাবেন। তবে বিশ্বব্যাপী করোনাভাইরাস মহামারি আকার ধারণ করায় হজ হবে কিনা তা সার্বিক পরিস্থিতির ওপর নির্ভর করছে।

ইতোমধ্যে ভাইরাস সংক্রমণ এড়াতে বিদেশিদের ওমরাহ হজের অনুমতি এবং আন্তর্জাতিক ফ্লাইট চলাচল অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ করেছিল সৌদি আরব সরকার। এখন মক্কা ও মদিনা রয়েছে লকডাউনে। মসজিদুল হারাম ও মসজিদে নববিতে জামাতে নামাজ পড়াও বন্ধ করা হয়েছে। জনসমাগম যাতে না হতে পারে, সেজন্য পবিত্র দুই নগরীতে দু'দিনের কারফিউ জারি করেছিল দেশটির সরকার। যে কারণে এখনই হজের পরিকল্পনা চূড়ান্ত না করে পরিস্থিতি স্পষ্ট না হওয়া পর্যন্ত অপেক্ষা করার পরামর্শ দিয়েছে সৌদি আরবের ধর্ম মন্ত্রণালয়।

এদিকে আগেই সরকারের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, করোনাভাইরাসের কারণে নিবন্ধন করা হজযাত্রীরা হজে যেতে না পারলে, তাদের জমা দেওয়া টাকা ফেরত দেওয়া হবে।





আরও পড়ুন

×