সংরক্ষিত নারী আসনের তফসিল আগামী সপ্তাহে

মার্চে উপজেলা নির্বাচন, ভোটার হচ্ছেন প্রবাসীরা

প্রকাশ: ১০ জানুয়ারি ২০১৯      

সমকাল প্রতিবেদক

ইসি সচিব হেলালুদ্দীন আহমদ— ফাইল ছবি

জাতীয় সংসদের সংরক্ষিত নারী আসনের নির্বাচনের প্রক্রিয়া শুরু করতে যাচ্ছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। আগামী সপ্তাহে কমিশনের সভায় নির্বাচনের তফসিল চূড়ান্ত করা হবে।

বৃহস্পতিবার আগারগাঁও নির্বাচন ভবনে ইসি সচিব হেলালুদ্দীন আহমদ সাংবাদিকদের এ কথা বলেন।

তিনি আরও জানান, মার্চের প্রথম সপ্তাহ থেকে ধাপে ধাপে উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের ভোট গ্রহণের পরিকল্পনা রয়েছে। এ ছাড়াও বিদেশে গিয়ে প্রবাসী বাংলাদেশিদের ভোটার করার উদ্যোগ গ্রহণ করেছে ইসি। আগামী এপ্রিলে পরীক্ষামূলকভাবে (পাইলটিং) সিঙ্গাপুর প্রবাসী বাংলাদেশিদের ভোটার করা হবে।

নারী আসনের নির্বাচন প্রসঙ্গে ইসি সচিব বলেন, আগামী সপ্তাহে সংরক্ষিত নারী আসনে তফসিল ঘোষণার পরিকল্পনা রয়েছে। একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে প্রাপ্ত আসন অনুসারে সংরক্ষিত ৫০ আসনের মধ্যে এবার আওয়ামী লীগ ৪৩টি, জাতীয় পার্টি চারটি, ঐক্যফ্রন্ট একটি এবং স্বতন্ত্র ও অন্যান্য দল মিলে দুটি আসন পাবে।

সংরক্ষিত নারী আসন বণ্টন আইনে বলা আছে, সংসদের ৩০০ আসনের মধ্যে যে দলের যতটি আসন, তার আনুপাতিক হারে ৫০টি আসন দলগুলোর মধ্যে ভাগ করে দেওয়া হবে। যে দলের অনুকূলে যতটি আসন নির্ধারিত হবে, দলগুলো সেই সব আসনপ্রতি এক বা একাধিক প্রার্থী মনোনয়ন দিতে পারবে। একজন করে প্রার্থী দেওয়া হলে ভোটাভুটির প্রয়োজন হবে না। তবে একাধিক প্রার্থী থাকলে দলের সদস্যদের ভোটে একজন নির্বাচিত হবেন। ২০০৯ ও ২০১৪ সালে দলগুলো থেকে একের অধিক প্রার্থী দেওয়া হয়নি। এ কারণে ভোটাভুটির প্রয়োজন হয়নি।

গত ৩০ ডিসেম্বরের নির্বাচনে নিরঙ্কুশ জয় পায় আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন মহাজোট। এর মধ্যে এককভাবে আওয়ামী লীগ ২৫৭টি, জাপা ২২টি, বিকল্পধারা বাংলাদেশ ২টি, বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টি ৩টি, জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল-জাসদ ২টি, জাতীয় পার্টি-জেপি ১টি এবং তরীকত ফেডারেশন ১টি আসনে জয় পেয়েছে। বিএনপিসহ জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট পায় মাত্র সাতটি আসন। আর স্থগিত ব্রাহ্মণবাড়িয়া-২ আসনের তিনটি কেন্দ্রে ভোটের পর সেখানে জয় পায় বিএনপি।

৩-৪ ধাপে উপজেলায় ভোট: মার্চের প্রথম সপ্তাহ থেকে ধাপে ধাপে পঞ্চম উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের ভোট গ্রহণের পরিকল্পনা করছে ইসি। আগামী সপ্তাহে নির্বাচন কমিশনের সভায় এ বিষয়টি উত্থাপন করা হবে। গতবার সাত ধাপে উপজেলা নির্বাচন অনুষ্ঠিত হলেও এবার ধাপ কমতে পারে। রমজানের আগেই উপজেলা পরিষদের নির্বাচন শেষ করার পরিকল্পনাও হাতে নেওয়া হয়েছে।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে ইসি সচিব হেলালুদ্দীন আহমদ বলেন, ফেব্রয়ারিতে এসএসসি পরীক্ষা, এপ্রিলে এইচএসসি পরীক্ষা, মে মাসের শেষে রমজান। তারা চান রমজানের আগেই উপজেলা পরিষদ নির্বাচন শেষ করতে। উপজেলা নির্বাচনেও ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিন (ইভিএম) ব্যবহার করা হবে। তবে কী পরিসরে তা ব্যবহার করা হবে সে সিদ্ধান্ত হয়নি।

ইসি সূত্রে জানা গেছে, স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয় থেকে তালিকা পাওয়ার পর নির্বাচন উপযোগী উপজেলা নির্দিষ্ট করে তফসিল ঘোষণা করবে ইসি। এবার তিন থেকে চার ধাপে সব উপজেলার নির্বাচন সম্পন্ন করার পরিকল্পনা গ্রহণ করা হয়েছে।

আইন অনুযায়ী এবার উপজেলা চেয়ারম্যান, ভাইস চেয়ারম্যান এবং নারী ভাইস চেয়ারম্যান পদেই দলীয় প্রতীকে নির্বাচন হবে। নিবন্ধিত ৩৯টি রাজনৈতিক দলের প্রার্থীরা দলীয় প্রতীকে নির্বাচনে অংশ নিতে পারবেন। স্বতন্ত্র প্রার্থীরাও নির্বাচনে অংশ নেওয়ার সুযোগ পাবেন।

এপ্রিল থেকে প্রবাসীদের ভোটার কার্যক্রম শুরু: বিদেশে গিয়ে প্রবাসী বাংলাদেশিদের ভোটার করার উদ্যোগ গ্রহণ করেছে ইসি। আগামী এপ্রিলে সিঙ্গাপুরের কয়েকটি স্থানে ভোটার নিবন্ধন ক্যাম্প স্থাপন করে ইসির বিশেষজ্ঞরা প্রবাসীদের ভোটার করার কার্যক্রম শুরু করবেন। সেখানে সফলতা পাওয়া গেলে পরবর্তী সময়ে অন্যান্য দেশে গিয়ে বাংলাদেশিদের ভোটার করা হবে।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে ইসি সচিব হেলালুদ্দীন আহমদ বলেন, সিঙ্গাপুরের পর দুবাইতে প্রবাসীদের ভোটার করার কার্যক্রম শুরু হবে। প্রথমে ৫৭ সদস্যদের দল সিঙ্গাপুর যাবে। অংশীজনদের সঙ্গে মতবিনিময়ের ভিত্তিতে পরে কারিগরি দল পাঠানো হবে। নির্বাচন কমিশন বলছে, ভোটাধিকার প্রয়োগ করা নয়, প্রবাসীদের হাতে এনআইডি কার্ড তুলে দেওয়াই তাদের প্রধান লক্ষ্য। প্রবাসীদের ভোটার করায় সম্মতি রয়েছে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার।

বিষয় : নির্বাচন তফসিল সংরক্ষিত নারী আসন উপজেলা নির্বাচন প্রবাসী ভোটার