বাংলাদেশে কুমন পদ্ধতির বিস্তার ঘটাবে ব্র্যাক: ফজলে হাসান আবেদ

প্রকাশ: ১১ ফেব্রুয়ারি ২০১৯      

অনলাইন ডেস্ক

অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন ব্র্যাকের প্রতিষ্ঠাতা ও চেয়ারপারসন স্যার ফজলে হাসান আবেদ

ব্র্যাকের প্রতিষ্ঠাতা ও চেয়ারপারসন স্যার ফজলে হাসান আবেদ বলেছেন, বাংলাদেশের শিশুদের সহজে গণিত শেখাতে কুমন পদ্ধতির বিস্তার ঘটাবে ব্র্যাক।সোমবার দুপুরে টোকিওতে জাপানভিত্তিক আন্তর্জাতিক শিক্ষা প্রতিষ্ঠান কুমনের ৬০তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

টোকিওর প্যাসিফিকো ইয়োকোহামা এক্সিবিশন হলে অনুষ্ঠানটি শুরু হয় বাংলাদেশ সময় দুপুর একটায় এবং শেষ হয় বিকেল চারটায়। এর মূল উপজীব্য ছিল-কুমন পদ্ধতির আন্দর্জাতিক বিস্তান, শিক্ষণের বিবর্তন ও বিকাশ এবং জ্ঞানের প্রসার। এই অনুষ্ঠানে পৃথিবীর বিভিন্ন দেশ থেকে কুমনের প্রাক্তন ও বর্তমান শিক্ষক ও শিক্ষার্থীরা অংশ নেন। 

এতে সভাপতিত্ব করেন কুমন ইনস্টিটিউট অফ এডুকেশনের প্রেসিডেন্ট হিদেনোরি ইকেগামি।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে স্যার আবেদ বলেন, 'কুমন শুরু হয়েছিল একজন স্নেহশীল বাবার সন্তানকে গণিত শেখানোর চেষ্টা হিসেবে। আজ তা জাপানসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশের লাখ লাখ শিশুকে গণিত ও পড়তে শেখানোর আন্দোলনে রূপ নিয়েছে। ২০১৩ সালে টোকিওতে কুমনের প্রেসিডেন্টের সঙ্গে আমার ও লেডি আবেদের সাক্ষাৎ হয়। সেসময় তিনি ব্র্যাকের কিছু স্কুলে কুমন পদ্ধতি পরীক্ষামূলকভাবে চালু করার আগ্রহ প্রকাশ করেন। 

এরপর আমরা একটি পাইলট প্রকল্প গ্রহণ করি, যা থেকে প্রমাণিত হয় যে আমাদের দেশের দরিদ্রতম শিশুরা এ পদ্ধতির মাধ্যমে আরও ভালভাবে গণিত শিখতে পারছে। গত দুবছরে আমরা কুমনের সঙ্গে যৌথ উদ্যোগে ঢাকায় দুটি শিক্ষাকেন্দ্র প্রতিষ্ঠা করেছি।'

সভাপতির বক্তব্যে কুমন ইনস্টিটিউট অফ এডুকেশনের প্রেসিডেন্ট হিদেনোরি ইকেগামি প্রতিষ্ঠানের ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা এবং এর শিক্ষক ও কর্মীদের বিভিন্ন চ্যালেঞ্জ থেকে উত্তরণের উপায় নিয়ে আলোচনা করেন।

উল্লেখ্য, ১৯৫৮ সালে জাপানী গণিত শিক্ষক তরম্ন কুমন সহজে গণিত ও ভাষা শিক্ষার একটি পদ্ধতি উদ্ধাবন করেন, যা কুমন পদ্ধতি নামে পরিচিতি পায়। কয়েক দশক জাপানে এ পদ্ধতির প্রসার ঘটার পর তা বিভিন্ন দেশে বিস্তার লাভ করে। সংবাদ বিজ্ঞপ্তি