অবৈধ সম্পদ অর্জন

ডিআইজি মিজানসহ ৪ জনের বিরুদ্ধে দুদকের মামলা

প্রকাশ: ২৪ জুন ২০১৯     আপডেট: ২৪ জুন ২০১৯      

বিশেষ প্রতিনিধি

পুলিশের ডিআইজি মো. মিজানুর রহমান -ফাইল ছবি

উচ্চ পদে থেকে ক্ষমতার অপব্যবহার ও দুর্নীতির মাধ্যমে অবৈধ সম্পদ অর্জনের অভিযোগে পুলিশের ডিআইজি মো. মিজানুর রহমান, তার স্ত্রীসহ চারজনের বিরুদ্ধে সোমবার মামলা করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)।

সেই সঙ্গে দুদকের এক পরিচালককে ৪০ কোটি টাকা ঘুষ দেওয়ার অভিযোগ নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য মিজানকে তলব করেছে দুদক।

সোমবার কমিশনের সভায় অনুমোদনের পর পরিচালক মনজুর মোরশেদ বাদী হয়ে দুদকের সমন্বিত জেলা কার্যালয় ঢাকা -১ এ মামলাটি দায়ের করেন বলে দুদকের জনসংযোগ শাখার উপ-পরিচালক প্রণব কুমার ভট্টাচার্য জানিয়েছেন। এরআগে রোববার দুদক চেয়ারম্যান ইকবাল মাহমুদের সভাপতিত্বে কমিশন সভায় এ মামলার অনুমোদন দেওয়া হয়।

তিনি বলেন, সম্পদের তথ্য গোপন এবং অবৈধ সম্পদ অর্জনের অভিযোগে পুলিশের ডিআইজি মিজানুর রহমান, তার স্ত্রী সোহেলিয়া আনার রত্না, ছোট ভাই মাহবুবুর রহমান এবং ভাগ্নে পুলিশের এসআই মাহমুদুল হাসানের বিরুদ্ধে মামলাটি করা হয়েছে। দুদকের নিজস্ব অফিসে এটি প্রথম মামলা। দুদক আইনের বিধিমালা অনুমোদনের পর তা গেজেট আকারে প্রকাশিত হওয়ায় এখন থেকে থানায় না গিয়ে নিজ কার্যালয়ে বসেই মামলা করতে পারবেন দুদক কর্মকর্তারা। মামলা রেকর্ড করার জন্য দুদকের ঢাকা বিভাগীয় কার্যালয়-১-এর কর্মকর্তাকে দায়িত্ব দেওয়া হয়। তিনিই থানার আদলে মিজানের বিরুদ্ধে মামলাটি রেকর্ড করেন।

গত দেড় বছরের অনুসন্ধান শেষে দিনদুপুরে রাজধানীর ব্যস্ত রাস্তা থেকে এক নারীকে তুলে নিয়ে বিতর্কিত হওয়া ডিআইজি মিজানের বিরুদ্ধে অনুসন্ধান প্রতিবেদন রোববারের কমিশন সভায় পেশ করা হয়। চেয়ারম্যান ও দুই কমিশনার প্রতিবেদনটির বিভিন্ন দিক চুলচেরা বিশ্নেষণ করে মামলার অনুমোদন দেন। অনুসন্ধান প্রতিবেদনে মিজানসহ চার অভিযুক্তের বিরুদ্ধে তিন কোটি ২৮ লাখ ৬৮ হাজার পাঁচ টাকার জ্ঞাত আয়বহির্ভূত সম্পদ অর্জনের অভিযোগ আনা হয়েছে।

দুদকের অনুসন্ধানে মিজানের স্ত্রী রত্না রহমান ওরফে সোহেলিয়া আনার রত্নার নামেও অবৈধ সম্পদের তথ্য-প্রমাণ মিলেছে। মিজানের বিরুদ্ধে মামলার পর তার স্ত্রীর অবৈধ সম্পদ অর্জনের অভিযোগটি অনুসন্ধান করা হবে।

বিষয় : দুদক দুর্নীতি দমন কমিশন ডিআইজি মিজান