প্রধানমন্ত্রী চীন যাচ্ছেন পহেলা জুলাই

প্রকাশ: ১১ জুন ২০১৯      

কূটনৈতিক প্রতিবেদক

ফাইল ছবি

চীনের প্রেসিডেন্ট শি জিনপিংয়ের আমন্ত্রণে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আগামী পহেলা জুলাই পাঁচ দিনের চীন সফরে যাচ্ছেন।

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বশীল সূত্র এ তথ্য নিশ্চিত করেছে। এর আগে পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেন সাংবাদিকদের জানিয়েছিলেন প্রধানমন্ত্রীর চীন সফর জুলাইয়ের প্রথম সপ্তাহে অনুষ্ঠিত হতে পারে।

মঙ্গলবার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সূত্র সমকালকে নিশ্চিত করেছে, পহেলা জুলাই থেকে ৫ জুলাই পর্যন্ত প্রধানমন্ত্রীর চীন সফরের তারিখ নির্ধারিত হয়েছে। সফরকালে প্রধানমন্ত্রী চীনের প্রেসিডেন্ট শি জিনপিংয়ের সঙ্গে দ্বিপক্ষীয় বৈঠক করবেন। সফরসূচি এবং দ্বিপক্ষীয় বৈঠকের আলোচ্যসূচি চূড়ান্ত করতে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় কাজ করছে।

সূত্র জানায়, প্রধানমন্ত্রীর চীন সফর বর্তমান আঞ্চলিক ও বিশ্ব রাজনীতির বাস্তবতায় অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ হিসেবে বিবেচিত হচ্ছে। চীনের প্রেসিডেন্টের সঙ্গে দ্বিপক্ষীয় বৈঠকে 'বেল্ট অ্যান্ড রোড ইনিশিয়েটিভ' এবং রোহিঙ্গা ইস্যু আলোচনার কেন্দ্রবিন্দু থাকবে বলে প্রাথমিকভাবে নির্ধারিত হয়েছে।

সূত্র আরও জানায়, বর্তমানে চীন বিশ্ববাণিজ্য কূটনীতিতে প্রধানতম উদ্যোগ হিসেবে 'বেল্ট অ্যান্ড রোড ইনিশিয়েটিভ'কে সামনে এনেছে। এ কর্মসূচিতে বাংলাদেশকে গুরুত্বপূর্ণ অংশীদার হিসেবে পেতে চাচ্ছে চীন। বাংলাদেশও এরই মধ্যে চীনের এ উদ্যোগের সঙ্গে যুক্ত থাকার কথা জানিয়েছে। বেইজিংয়ে দুই দেশের শীর্ষ নেতার দ্বিপক্ষীয় বৈঠকে 'বেল্ট অ্যান্ড রোড ইনিশিয়েটিভ'-এর নানা বিষয় এবং এর আলোকে আঞ্চলিক ও বিশ্বরাজনীতিতে যৌথ স্বার্থসংশ্নিষ্ট বিষয়গুলো নিয়ে আলোচনা হবে।

রোহিঙ্গা ইস্যুতে আলোচনা সম্পর্কে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সূত্র জানায়, রোহিঙ্গা সংকট মোকাবেলায় চীনের অবস্থান অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। এখন পর্যন্ত চীনের অবস্থান মিয়ানমারের পক্ষেই যাচ্ছে বলে ধারণা রয়েছে। দ্বিপক্ষীয় বৈঠকে রোহিঙ্গা ইস্যুটি বাংলাদেশ বিস্তারিতভাবে তুলে ধরবে। আশা করা হচ্ছে প্রধানমন্ত্রীর চীন সফরের পর রোহিঙ্গা সংকট সমাধানে চীনের অবস্থান ও সমর্থনের বিষয়ে ইতিবাচক অগ্রগতি হবে।

 চীন সফরে একাধিক মন্ত্রী এবং বাণিজ্য প্রতিনিধি দল অন্তর্ভুক্ত হওয়ার কথা রয়েছে।

চীনের প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং ২০১৬ সালের অক্টোবরে ঢাকা সফর করেন। সে সময়ই তিনি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে চীন সফরে আমন্ত্রণ জানান।

বিষয় : প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা