১০ জনকে তলব করেছে দুদক

বিমানের সাবেক এমডির বিরুদ্ধে ঘুষ নেওয়ার অভিযোগ

প্রকাশ: ২২ জুলাই ২০১৯     আপডেট: ২২ জুলাই ২০১৯      

সমকাল প্রতিবেদক

এ এম মোসাদ্দেক আহমেদ -ফাইল ছবি

ক্যাডেট পাইলট নিয়োগে ঘুষ নেওয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের সাবেক এমডি ও সিইও এ এম মোসাদ্দেক আহমেদের বিরুদ্ধে। ঘুষের টাকায় তার অবৈধ সম্পদ অর্জনের তথ্য-প্রমাণও রয়েছে দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) হাতে।

মোসাদ্দেক আহমেদের বিরুদ্ধে অনিয়ম, ঘুষ ও দুর্নীতির একটি অভিযোগ আসার পর যাচাই-বাছাই শেষে এ ব্যাপারে অনুসন্ধান শুরু হয়েছে। দুদকের বিশেষ অনুসন্ধান ও তদন্ত-২ বিভাগ এ অভিযোগ অনুসন্ধান করছে। বিভাগের সহকারী পরিচালক মো. সাইফুল ইসলামকে অনুসন্ধানের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে।

সুষ্ঠু অনুসন্ধানের লক্ষ্যে দুদক বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের বর্তমান ছয় পরিচালক, সাবেক এমডিসহ ১০ জনকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য তলব করেছে। সহকারী পরিচালক মো. সাইফুল ইসলাম স্বাক্ষরিত আলাদা চিঠিতে তাদের আগামী ২৮ থেকে ৩০ জুলাই রাজধানীর সেগুনবাগিচায় দুদকের প্রধান কার্যালয়ে হাজির হতে বলা হয়েছে।

এর মধ্যে তিন পরিচালককে ২৮ জুলাই ও পরের দিন ২৯ জুলাই আরও তিন পরিচালককে ডাকা হয়েছে। ২৮ জুলাই ডাকা হয়েছে পরিচালক (প্রশাসন) ড. পার্থ কুমার পন্ডিত, পরিচালক (ইঞ্জিনিয়ারিং মেটারিয়াল ম্যানেজমেন্ট) সাজ্জাদুর রহিম ও পরিচালক (কাস্টমার সার্ভিস) মমিনুল ইসলামকে। ২৯ জুলাই ডাকা হয়েছে পরিচালক (ফ্লাইট অপারেশন্স) ক্যাপ্টেন ফারহাত হাসান জামিল, পরিচালক (মার্কেটিং অ্যান্ড সেলস) মো. আশরাফুল আলম ও পরিচালক (প্ল্যানিং) এয়ার কমডোর মাহবুব জামান খানকে।

এ ছাড়া জিএম (প্রশাসন) বুশরা ইসলামকে ডাকা হয়েছে ২৮ জুলাই। ২৯ জুলাই ডাকা হয়েছে চিফ ফাইন্যান্সিয়াল কর্মকর্তা বিনীত সুধ এবং চিফ অব ট্রেনিং ক্যাপ্টেন ফজল মাহমুদ চৌধুরীকে। প্রতিষ্ঠানের সাবেক এমডি ও সিইও আবুল মুনীম মুসাদ্দিক আহমেদকে ডাকা হয়েছে আগামী ৩০ জুলাই।