নুসরাত হত্যা: রাষ্ট্রপক্ষের যুক্তিতর্ক শেষ, আসামিদের সর্বোচ্চ শাস্তি দাবি

প্রকাশ: ১৬ সেপ্টেম্বর ২০১৯      

নিজস্ব প্রতিবেদক, ফেনী

নুসরাত জাহান রাফি- ফাইল ছবি

ফেনীর মাদ্রাসাছাত্রী নুসরাত জাহান রাফি হত্যা মামলার ১৬ আসামির প্রত্যেকের সর্বোচ্চ শাস্তি দাবি করেছে রাষ্ট্রপক্ষ। রাষ্ট্রপক্ষের যুক্তিতর্কের শেষ দিনে সোমবার কৌঁসুলিরা দাবি করেছেন, তারা আদালতে সন্দেহাতীতভাবে অভিযোগ প্রমাণ করতে সক্ষম হয়েছেন। তারা প্রত্যেক আসামিকে ফৌজদারি দণ্ডবিধি অনুযায়ী এক লাখ টাকা জরিমানা করে তা নুসরাতের পরিবারকে প্রদানের দাবি করেছেন। 

আদালত আসামিপক্ষের যুক্তিতর্ক গ্রহণের জন্য মঙ্গলবার দিন ধার্য করেছেন।ফেনীর নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের বিচারক মামুনুর রশিদের আদালতে যুক্তিতর্ক শুরুর আগে এজলাসে পিবিআই প্রজেক্টরের মাধ্যমে নুসরাতের শেষ ভিডিও রেকর্ড ও আসামি শাহাদাত হোসেন শামীমের সঙ্গে অন্য আসামির কথোপকথনের অডিও রেকর্ড শোনায়। এ সময় আসামিপক্ষের আইনজীবীদের অডিও-ভিডিওর রেকর্ড সংগ্রহের সুযোগ দেন আদালত।

রাষ্ট্রপক্ষে বাদীর আইনজীবী আক্রারুজ্জামান ১২ আসামির স্বীকারোক্তিতে বাকি চার আসামির নাম উঠে আসা প্রসঙ্গে হাইকোর্ট ও সুপ্রিম কোর্টের বিভিন্ন রায়ের কপি উপস্থাপন করেন। তিনি বলেন, কেউ স্বীকারোক্তি না দিলেও অন্য আসামির বক্তব্যে নাম এলে তাদেরও শাস্তি দেওয়ার নজির রয়েছে। এ ছাড়া সব অডিও-ভিডিও ও আসামিদের কথোপকথন সাক্ষ্য হিসেবে গ্রহণ করার এখতিয়ার আদালতের রয়েছে। এ ব্যাপারে রাষ্ট্রপক্ষ উচ্চ আদালতের আদেশের কপি আদালতকে সরবরাহ করে।

রাষ্ট্রপক্ষ দাবি করেছে, সাক্ষ্য-প্রমাণ, ঘটনার পারিপার্শ্বিকতা ও আসামিদের স্বীকারোক্তিতে নুসরাত হত্যায় ১৬ আসামির জড়িত থাকার বিষয় সন্দেহাতীতভাবে প্রমাণিত হয়েছে। রাষ্ট্রপক্ষ বলে, নুসরাতকে পুড়িয়ে মারা দেশের অন্যতম জঘন্যতম হত্যাকাণ্ড। দেশ ও বিদেশে এ হত্যাকাণ্ড ব্যাপকভাবে আলোচিত হয়েছে। এখন এটা প্রতিষ্ঠিত করতে হবে যে, আমাদের দেশে ন্যায়বিচার রয়েছে।