নিয়ম মেনেই সান্ধ্যকালীন কোর্সে ভর্তি: ঢাবি ডিন

পরীক্ষা ছাড়াই ভর্তির সঙ্গে জড়িতদের পদত্যাগ চাইলেন ছাত্রনেতারা

প্রকাশ: ১১ সেপ্টেম্বর ২০১৯      

বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিবেদক

যথাযথ নিয়ম মেনেই শিক্ষার্থীদের সান্ধ্যকালীন কোর্সে ভর্তি করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ব্যবসায় শিক্ষা অনুষদের ডিন অধ্যাপক শিবলী রুবাইয়াতুল ইসলাম। বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের এই অনুষদের সান্ধ্যকালীন কোর্সগুলোয় ভর্তির জন্য কোনো লিখিত পরীক্ষার প্রয়োজন নেই বলেও জানান তিনি।

মঙ্গলবার অনুষদের হাবিবুল্লাহ বাহার সম্মেলন কক্ষে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা বলেন তিনি। ডাকসুতে নির্বাচিত আট নেতাসহ ছাত্রলীগের ৩৪ নেতার চিরকুটে ভর্তি বিতর্কের বিষয়টির ব্যাখ্যা দিতে এ সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়।

এদিকে,  বুধবার এই ভর্তির সঙ্গে জড়িতদের শাস্তি দাবি করেছেন বিভিন্ন ছাত্র সংগঠনের নেতারা। এদিন পৃথক কর্মসূচিতে এ দাবি জানায় ছাত্রদল, প্রগতিশীল ছাত্রজোট এবং কোটা সংস্কার আন্দোলনকারীদের প্ল্যাটফর্ম বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র অধিকার পরিষদ।

মঙ্গলবারের সংবাদ সম্মেলনে ডিন অধ্যাপক শিবলী রুবাইয়াতুল ইসলাম বলেন, সান্ধ্যকালীন প্রোগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের নয়, এটা অনুষদের নিজস্ব প্রোগ্রাম। আসন খালি থাকা সাপেক্ষে সেখানে বিশ্ববিদ্যালয় থেকে পাস করা শিক্ষার্থীদের সার্কুলারের বাইরেও ভর্তি করানোর সুযোগ রয়েছে। এক্ষেত্রে লিখিত পরীক্ষা বাধ্যতামূলক নয়। তাছাড়া শিক্ষার্থীরা একবার লিখিত পরীক্ষা দিয়ে ভর্তি হলে দ্বিতীয়বার দেওয়ার যৌক্তিকতা নেই। তাই তাদের সান্ধ্যকালীন প্রোগ্রামে ভর্তি পরীক্ষা দেওয়ার প্রয়োজন পড়ে না। মৌখিক পরীক্ষার মাধ্যমে যাচাই-বাছাই করে পড়াশোনার সুযোগ দেওয়ার বিষয়টি দেড় বছর আগে অনুমোদিত হয়। তবে বিশ্ববিদ্যালয়ের বাইরের ভর্তিচ্ছু আবেদনকারীদের যথাযথ লিখিত ও মৌখিক পরীক্ষার বিধানটি চালু রয়েছে।

তিনি বলেন, এখানে কোনো প্রকার অনিয়ম করা হয়েছে বলে যে তথ্য দেওয়া হয়েছে, তা সঠিক নয়। তিনি বলেন, ছাত্রদের আর্থিক অসচ্ছলতা, শারীরিক সমস্যা কিংবা পরিবারের প্রয়োজনে দিনের বেলায় অনেকেই চাকরি করে থাকেন। তাদের বিষয় বিবেচনা করে শুধু মৌখিক পরীক্ষার মাধ্যমে ভর্তি করা হয়। অভিযোগ ওঠা ছাত্রদের বেলায় এটাই হয়েছে।

একটি শীর্ষ জাতীয় দৈনিক পত্রিকায় প্রকাশিত খবরে 'চিরকুটের' বিষয়ে তিনি বলেন, এখনতো চিরকুট দেওয়ার প্রয়োজন নেই। এখন টেলিফোন আছে, মোবাইল আছে। যদি ভিসি স্যার কোনো চিরকুট আমাকে দিয়ে থাকেন, তাহলে তো প্রমাণ থেকে গেল। আমার মনে হয় না চিরকুট দিয়ে ভিসি স্যার এমন বোকামি করবেন।

ছাত্রদলের বিক্ষোভ মিছিল : বুধবার দুপুরে একই দাবিতে বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে বিক্ষোভ মিছিল করেছে ছাত্রদল। বিশ্ববিদ্যালয়ের রাজু ভাস্কর্যের সামনে থেকে মিছিলটি শুরু হয়ে বঙ্গবন্ধু টাওয়ারের সামনে গিয়ে শেষ হয়। বিশ্ববিদ্যালয় সভাপতি আল মেহেদী তালুকদারের নেতৃত্বে মিছিলে ডাকসু নির্বাচনে ছাত্রদল মনোনীত জিএস প্রার্থী খন্দকার আনিসুর রহমান অনিক, বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রদলের যুগ্ম সম্পাদক রাশেদ ইকবাল খান, সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক হাসানুর রহমানসহ সংগঠনটির ৫০ জনের মতো নেতাকর্মী অংশ নেন। সেখান থেকে তারা উপাচার্য ও ডিনের পদত্যাগসহ ভর্তি হওয়া ছাত্রলীগ নেতাদের ডাকসুর পদ থেকে অব্যাহতি ও তাদের ছাত্রত্ব বাতিলের দাবি জানান।

প্রগতিশীল ছাত্রজোটের সংবাদ সম্মেলন : অন্যদিকে দুপুরের দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র শিক্ষক কেন্দ্রের (টিএসসি) সঞ্জীব চত্বরে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে পরীক্ষা ছাড়াই ভর্তি এবং সম্প্রতি বেগম রোকেয়া হলে নিয়োগ-বাণিজ্যের ঘটনার সঙ্গে জড়িতদের পদত্যাগের দাবি জানিয়েছে প্রগতিশীল ছাত্রজোট।

সংবাদ সম্মেলনে জোট নেতারা চার দফা দাবি জানান। দাবিগুলো হলো- রোকেয়া হলের নিয়োগ-বাণিজ্যে জড়িত থাকায় অভিযুক্ত হল প্রাধ্যক্ষ জিনাত হুদা এবং পরীক্ষা ছাড়াই ভর্তি প্রক্রিয়ায় জড়িত থাকার অভিযোগে উপাচার্য ও ব্যবসায় শিক্ষা অনুষদের ডিনের পদত্যাগ, পরীক্ষা ছাড়া ভর্তি হওয়া আট ডাকসু নেতার পদত্যাগ, রোকেয়া হলের নিয়োগ-বাণিজ্যে জড়িত থাকায় অভিযুক্ত হল সংসদের ভিপি ইশরাত জাহান তন্বী ও জিএস সায়মা আক্তার প্রমির পদত্যাগ এবং পরীক্ষা ছাড়া ভর্তি হওয়া আট ডাকসু নেতা ও নিয়োগ-বাণিজ্যে অভিযুক্ত মোট দশ শিক্ষার্থীর ছাত্রত্ব বাতিল।

এ সময় দাবিগুলো সামনে রেখে প্রচারমূলক কর্মসূচি পালনের ঘোষণা দেন জোটনেতৃবৃন্দ। এ উপলক্ষে আজ বৃহস্পতিবার দুপুরে ক্যাম্পাসে 'গানের মিছিল' এবং ১৫ সেপ্টেম্বর 'দুর্নীতির ভূত তাড়ানো' শীর্ষক অনুষ্ঠান পালনের ঘোষণা দেন তারা।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন ছাত্র ইউনিয়নের বিশ্ববিদ্যালয় শাখার সাধারণ সম্পাদক রাগিব নাঈম। এতে সমাজতান্ত্রিক ছাত্রফ্রন্ট বিশ্ববিদ্যালয় শাখার সভাপতি সালমান সিদ্দিকী, বামজোটের কর্মী মীম আরাফাত মানব এবং রোকেয়া হলের নিয়োগ-বাণিজ্যে অভিযোগকারী শিক্ষার্থী শ্রবণা শফিক দীপ্তি উপস্থিত ছিলেন।

সাধারণ ছাত্র অধিকার পরিষদের মানববন্ধন : বুধবার দুপুরে বিশ্ববিদ্যালয়ের অপরাজেয় বাংলার সামনে আয়োজিত এক মানববন্ধনে উপাচার্য অধ্যাপক মো. আখতারুজ্জামান ও অনুষদের ডিন অধ্যাপক শিবলী রুবাইয়াতুল ইসলামের পদত্যাগসহ তিন দফা দাবি জানায় সাধারণ ছাত্র অধিকার পরিষদ। তাদের অন্য দাবির মধ্যে রয়েছে অবৈধভাবে ভর্তি হওয়া ৩৪ জনকে অছাত্র ঘোষণা করা এবং অবৈধ ছাত্রত্ব নিয়ে যারা ডাকসুতে নির্বাচিত হয়েছেন তাদের পদ শূন্য ঘোষণা করে উপনির্বাচন দেওয়া।

মানববন্ধনে পরিষদের আহ্বায়ক হাসান আল মামুন, যুগ্ম আহ্বায়ক ফারুক হাসান, বিন ইয়ামিন মোল্লা, সোহরাব হোসেনসহ বিশ্ববিদ্যালয়ের শতাধিক শিক্ষার্থী অংশ নেন। এতে হাসান আল মামুন বলেন, ৩৪ জনকে নিয়ম লঙ্ঘন করে ভর্তি করা হয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন সাধারণ ছাত্রদের দিকে নজর না দিয়ে ছাত্রলীগের প্রতিনিধিত্ব করছে। ছাত্রলীগ কোনো অপকর্ম করলে প্রশাসন তার বিচার করে না।