ঢাকায় বুধবার চামড়া পণ্যের প্রদর্শনী উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী

প্রকাশ: ২৬ অক্টোবর ২০১৯   

সমকাল প্রতিবেদক

ফাইল ছবি

ফাইল ছবি

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আগামী বুধবার বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে (বিআইসিসি) চামড়ার পাদুকা ও চামড়াপণ্যের প্রদর্শনী উদ্বোধন করবেন। তবে তিন দিনের মূল প্রদর্শনী আগামী বৃহস্পতিবার রাজধানীর ইন্টারন্যাশনাল কনভেনশন সিটি বসুন্ধরায় (আইসিসিবি) শুরু হবে। 

লেদারগুডস অ্যান্ড ফুটওয়্যার ম্যানুফ্যাকচারার্স অ্যান্ড এপপোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশন (এলএফএমইএবি) এবং বাণিজ্য মন্ত্রণালয় যৌথভাবে এ প্রদর্শনীর আয়োজন করছে।

শনিবার রাজধানীর সোনারগাঁও হোটেলে চামড়ার পাদুকা ও চামড়াপণ্যের প্রদর্শনী উপলক্ষে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে সরকারের বাণিজ্য সচিব ড. মো. জাফর উদ্দিন এসব তথ্য জানান। 

তিনি জানান, ইইউর বাইরেও এশিয়ামুখী নতুন নতুন বাজার খোঁজা হচ্ছে। লাতিন আমেরিকার বিভিন্ন দেশের সঙ্গে মুক্তবাণিজ্য চুক্তি (এফটিএ) করা হচ্ছে।

সচিব বলেন, বাংলাদেশের পণ্য রপ্তানির প্রধান বাজার ইউরোপীয় ইউনিয়ন (ইইউ)। এই জোটের ২৮ দেশে বর্তমানে শুল্ক্কমুক্ত রপ্তানি সুবিধা ভোগ করছে বাংলাদেশ। স্বল্পোন্নত দেশের (এলডিসি) কাতার থেকে উত্তরণের পর ইইউতে শুল্ক্কমুক্ত সুবিধা জিএসপি থাকবে না। জিএসপি প্লাস নীতির আওতায় এ সুবিধা অব্যাহত রাখার সুযোগ আছে। 

এ সুবিধা পেতে সরকারের পক্ষ থেকে সব ধরনের প্রয়োজনীয় উদ্যোগ নেওয়ার কথা জানিয়ে বাণিজ্য সচিব বলেন, আইন ও নীতি সংস্কার করা হয়েছে। ইইউর পরামর্শ অনুযায়ী এ আইনের আরও সংশোধনী আনা হবে। অন্যান্য বিষয়কেও গুরুত্ব দিয়ে বিবেচনা করা হচ্ছে। গত সপ্তাহে ঢাকায় ইইউর প্রতিনিধি দলের সঙ্গে এ বিষয়ে বিস্তারিত আলোচনা হয়েছে।

সংবাদ সম্মেলনে ঢাকায় নিযুক্ত জার্মানির রাষ্ট্রদূত পিটার ফ্যারেনহলটজ বলেন, ইইউর বড় বাজার অব্যাহত রাখতে এলডিসি উত্তর জিএসপি প্লাস সুবিধা আদায়ে এখনই উদ্যোগ নিতে হবে। এ বিষয়ে ইইউর বিভিন্ন আহ্বান এবং পরামর্শ গুরুত্বের সঙ্গে বিবেচনা করার কথা বলেন তিনি।

চামড়া খাতের অন্যতম বড় প্রতিষ্ঠান অ্যাপেপ ফুটওয়্যারের ব্যবস্থাপনা পরিচালক সৈয়দ নাসিম মঞ্জুর বলেন, বৈশ্বিক প্রতিযোগিতায় সামর্থ্য দেখাচ্ছে চামড়া খাত। কমপ্লায়েন্ট ও বিশ্বমানের অনেক কারখানা আছে এ দেশে। সম্ভাবনা কাজে লাগাতে পারলে বেকার সমস্যার বাস্তবতায় মূল শিল্প ও পশ্চাৎ সংযোগ শিল্প হিসেবে হাজার হাজার কর্মসংস্থান সৃষ্টি করতে পারে চামড়া খাত। তবে প্রতিবন্ধকতা হিসেবে একগুচ্ছ সমস্যা তুলে ধরেন তিনি। এর মধ্যে বন্দর সমস্যায় আমদানি-রপ্তানিতে অহেতুক সময় ব্যয়, নীতির ধারাবাহিকতার অভাব, ব্যবসা পরিচালনা ব্যয় বৃদ্ধি, বিদেশি বিনিয়োগের স্বল্পতা ইত্যাদি। 

তিনি জানান, পাকিস্তানেও ব্যাংক ঋণে সুদের হার ৩ শতাংশের কম। অথচ বাংলাদেশে ১১ শতাংশেরও বেশি। এসব সমস্যা সমাধানে ব্যবস্থা নিতে সরকারের প্রতি আহ্বান জানান তিনি।

এলএফএমইএবির সভাপতি সাইফুল ইসলাম চামড়াপণ্যের বাণিজ্য পরিস্থিতি ব্যাখ্যা করে বলেন, চামড়া উৎপাদনে বিশ্বের ষষ্ঠ হলেও রপ্তানিতে বাংলাদেশ এখনও ২১তম। আমদানি-রপ্তানি ব্যয় কমিয়ে আনতে চট্টগ্রাম বন্দর পরিচালনা বিদেশি ব্যবস্থাপনায় আনতে সরকারের প্রতি আহ্বান জানান তিনি।

সংবাদ সম্মেলনে আরও জানানো হয়, ৩০টি দেশের ব্র্যান্ড এবং ক্রেতা প্রতিনিধি এবারের প্রদর্শনীতে তাদের অংশগ্রহণ নিশ্চিত করেছেন। চামড়া খাতের আন্তর্জাতিক বিশেষজ্ঞদের সমন্বয়ে বেশ কয়েকটি সেমিনারের আয়োজন থাকবে। প্রতিদিন সকাল ১১টা থেকে সন্ধ্যা ৭টা পর্যন্ত প্রদর্শনী সবার জন্য উন্মুক্ত থাকবে। কোনো রকম ফি ছাড়াই প্রদর্শনীতে প্রবেশ করা যাবে।