প্রাথমিক ও ইবতেদায়ি সমাপনী পরীক্ষায় আর শিক্ষার্থীদের বহিষ্কার হতে হবে না। সমাপনী পরীক্ষার পরিচালনাবিধির ১১ নম্বর ধারা (শৃঙ্খলা-সংক্রান্ত) রদ করেছে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়।

কোমলমতি শিশু শিক্ষার্থীদের বহিষ্কার করা নিয়ে এ বছর বেশ কয়েকজন অভিভাবক উচ্চ আদালতে রিট মামলা করেন। এতে আদালত প্রাথমিক শিক্ষা সচিব ও প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালকসহ সংশ্লিষ্টদের ওপর রুল জারি করেন। এ পরিস্থিতিতে শিশু শিক্ষার্থীদের বহিষ্কারের ধারাটিই তুলে দিল মন্ত্রণালয়।

প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের উপপরিচালক (সংস্থাপন) দেলোয়ার হোসেন বৃহস্পতিবার জানান, বহিষ্কার-সংক্রান্ত ওই নির্দেশাবলি রহিত করা হয়েছে। এখন থেকে প্রাথমিক সমাপনীতে অংশ নেওয়া শিক্ষার্থীদের আর বহিষ্কারের সুযোগ থাকল না।

সমাপনী পরীক্ষা নিয়ে সরকারি নির্দেশনার ১১ নম্বর অনুচ্ছেদে 'শৃঙ্খলা লঙ্ঘনকারীর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা' নেওয়ার কথা বলা ছিল। এই অনুচ্ছেদের আওতায় পরীক্ষা কেন্দ্রে কোনো শিক্ষার্থী একে অন্যের সঙ্গে কথা বললে, অননুমোদিত কাগজপত্র বা বস্তু সঙ্গে রাখলে, অন্যকে দেখানোর কাজে সহযোগিতা করলে, উত্তরপত্র ছাড়া অন্য কিছুতে লিখে আনলে তাকে ওই বিষয়সহ অন্যান্য বিষয়ের পরীক্ষা থেকে বহিষ্কার অথবা পরীক্ষা বাতিল করা হতো।

তবে ওই অনুচ্ছেদ বাতিল হলেও খুদে শিক্ষার্থীরা যেন কোনো অসাধু পন্থা অবলম্বন না করতে পারে, সে বিষয়ে সরকারের উচ্চ পর্যায়ের কমিটি বসে করণীয় নির্ধারণ করবে বলে প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের এক কর্মকর্তা জানিয়েছেন।