ঢাকা মঙ্গলবার, ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০২৪

‘ড. ইউনূসকে হয়রানি বন্ধ করুন’

আলোচনা সভায় বক্তারা

‘ড. ইউনূসকে হয়রানি বন্ধ করুন’

ড. মুহাম্মদ ইউনূস। ফাইল ছবি

সমকাল প্রতিবেদক

প্রকাশ: ০৯ সেপ্টেম্বর ২০২৩ | ১৩:৩৯ | আপডেট: ০৯ সেপ্টেম্বর ২০২৩ | ১৩:৩৯

শান্তিতে নোবেলজয়ী ড. মুহাম্মদ ইউনূসকে দেশের গর্ব উল্লেখ করে তাঁকে হয়রানি বন্ধে সরকারের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন বিশিষ্টজন। তারা বলেন, দেশের বাইরে গেলেই বোঝা যায় সারাবিশ্বের মানুষ তাঁকে কতটা সম্মান করে। তাঁর গ্রামীণ ক্ষুদ্রঋণ প্রকল্প দারিদ্র্য বিমোচন, শিক্ষা এবং নারীর ক্ষমতায়নে অনেক বড় ভূমিকা রেখেছে।

শনিবার বিকেলে ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটিতে বাংলাদেশ পেশাজীবী অধিকার পরিষদের আয়োজনে ‘বিচারিক হয়রানি এবং ড. মুহাম্মদ ইউনূস’ শীর্ষক এক আলোচনা সভায় এ আহ্বান জানান তারা।

বাংলাদেশ কল্যাণ পার্টির চেয়ারম্যান মেজর জেনারেল (অবসরপ্রাপ্ত) সৈয়দ মুহাম্মদ ইবরাহিম বলেন, ড. ইউনূস ব্যক্তি আক্রোশের শিকার। সরকারকে এ হয়রানি বন্ধের আবেদন জানাচ্ছি।

সুপ্রিম কোর্টের সিনিয়র আইনজীবী ও গণফোরামের সাধারণ সম্পাদক সুব্রত চৌধুরী বলেন, দেশের বিচারব্যবস্থা নিয়ন্ত্রণে এখন বিচার লীগ তৈরি করা হচ্ছে। যে অব্যবস্থাপনায় সরকার দেশকে রেখে যাচ্ছে, তা ঠিক করতে জনগণকে অনেক কাঠখড় পোড়াতে হবে।

সরকারের পক্ষে প্রশংসা করে নামপরিচয়হীন লেখকদের লেখার কথা উল্লেখ করে আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন আলোকচিত্রী শহিদুল আলম বলেন, এটা আমাদের দৈন্যদশা। ড. মুহাম্মদ ইউনূস সারাবিশ্বে সম্মানিত ব্যক্তি। দেশের বাইরে গেলে বোঝা যায় আন্তর্জাতিক অঙ্গনে তিনি কতটা সম্মানিত। তাঁকে হয়রানির প্রতিবাদ জানাই।

বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দলের আইনবিষয়ক সম্পাদক কায়সার কামাল বলেন, খালেদা জিয়া ও তারেক রহমানের মতো একইভাবে ড. ইউনূসও বিচারিক হয়রানির শিকার। এর বিরুদ্ধে সবাইকে দাঁড়াতে হবে।

সভায় গণঅধিকার পরিষদের সভাপতি নুরুল হক নুর বলেন, ড. ইউনূস ক্ষুদ্রঋণের মাধ্যমে দারিদ্র্য দূরীকরণ, শিক্ষা ও নারীর ক্ষমতায়নসহ দেশের জন্য তাৎপর্যপূর্ণ অবদান রেখেছেন। কিন্তু দুঃখজনক, তাঁর মতো একজন সম্মানিত ব্যক্তিকে সরকার হয়রানি করছে।

পেশাজীবী অধিকার পরিষদের আহ্বায়ক জাফর মাহমুদের সভাপতিত্বে এবং সদস্য সচিব মু. নিজাম উদ্দিনের সঞ্চালনায় আলোচনা সভায় বক্তব্য দেন ব্রতীর নির্বাহী পরিচালক শারমিন মুরশিদ, বিকল্পধারার সভাপতি রাষ্ট্রবিজ্ঞানী নুরুল আমিন বেপারী, গণঅধিকার পরিষদের সাধারণ সম্পাদক মুহাম্মদ রাশেদ খান, অ্যাডভোকেট খালিদ হোসেন প্রমুখ।

আরও পড়ুন

×