শিক্ষার্থীদের শিক্ষাজীবন শেষে চাকরি পাওয়ার উপযুক্ত হিসেবে গড়ে তোলার লক্ষ্যে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে (ঢাবি) উদ্বোধন হলো ‘ট্রান্সফরমেশন টু প্রোফেশনাল’ শীর্ষক কর্মশালা। শনিবার রাতে বিশ্ববিদ্যালয়ের নবাব নওয়াব আলী চৌধুরী সিনেট ভবনের অ্যালামনাই ফ্লোরে এ কর্মশালা উদ্বোধন করা হয়। ঢাকা ইউনিভার্সিটি অ্যালামনাই অ্যাসোসিয়েশন এবং ঢাকা ইউনিভার্সিটি সোসাইটি ফর হিউম্যান রিসোর্স ম্যানেজমেন্টের যৌথ উদ্যোগে এটি হচ্ছে।

আগামী ৩১ জানুয়ারি শুরু হয়ে ছয় সপ্তাহ চলবে কর্মশালার ক্লাস। অ্যালামনাইয়ের বৃত্তিপ্রাপ্ত ১ হাজার ৩০০ শিক্ষার্থীর মধ্যে স্নাতকোত্তরের ৬০ জন শিক্ষার্থীকে নিয়ে প্রথম পর্যায়ের কর্মশালা হবে।

অ্যালামনাই সভাপতি এ. কে. আজাদের সভাপতিত্বে এবং মহাসচিব রঞ্জন কর্মকারের সঞ্চালনায় কর্মশালা উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে অতিথি ছিলেন- লেখক ও কলামিস্ট সৈয়দ আবুল মকসুদ। এতে বক্তব্য রাখেন, অ্যালামনাইয়ের সিনিয়র সহ-সভাপতি মোল্লা মোহাম্মদ আবু কাওছার, সহ-সভাপতি আনোয়ার-উল-আলম চৌধুরী (পারভেজ) এবং সোসাইটির সভাপতি মোহাম্মদ নজরুল ইসলাম। কোর্স সম্পর্কে ধারণা দেন সোসাইটির সাধারণ সম্পাদক মো. ইফতেখারুল আলম শিহাব। ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন অ্যালামনাইয়ের দপ্তর সম্পাদক মো. শরিফুর রহমান রহমান।

সৈয়দ আবুল মকসুদ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রথম সমাবর্তনের ঘটনা উল্লেখ করে বলেন, সেই সময় ভালো কাপড়ের অভাবে গ্রাজুয়েটরা গভর্নরের কাছ থেকে সনদ নিতে যেতে পারেনি। কিন্তু তোমরা অনেক ভাগ্যবান। তোমরা এখন অনেক সুবিধা পাচ্ছো, যা ষাটের দশকে আমরা পাইনি। তোমরা এখান থেকে ডিগ্রি নিয়ে জীবনে অনেক বড় স্থানে যেতে পারবে। তবে বড় ক্ষেত্রে যাওয়ার পরে যেন দেশ এগিয়ে যায়।

অ্যালামনাইয়ের সভাপতি এ. কে. আজাদ শিক্ষার্থীদের উদ্দেশে বলেন, তোমাদের মধ্যে কী শক্তি আছে তা আবিষ্কার করার চেষ্টা করো। অ্যালামনাই থেকে তোমরা যে বৃত্তি পেয়েছো তা না পেলেও পড়াশোনা চালাতে পারতে। তবে অ্যালামনাইয়ের বৃত্তির মাধ্যমে তোমাদের পড়াশোনায় সহায়তা হয়েছে। এছাড়া এই সংগঠনের মাধ্যমে তোমরা মানুষের সঙ্গে কথা বলতে পেরেছ। নিজেদের জড়তা কাটাতে পেরেছ।

অ্যালামনাইয়ের বৃত্তির ইন্টারভিউ বোর্ডের দু'টি ঘটনা তুলে ধরে তিনি বলেন, যারা স্নাতক শেষ করেছো, তারা পরিবার থেকে টাকা না নেওয়ার সিদ্ধান্ত নাও। এখন থেকেই তোমরা জীবনের লক্ষ্য ঠিক করে ফেলো। প্রয়োজনে কোথাও কাজ করে অভিজ্ঞতা নেওয়ার চেষ্টা করো।

এ. কে. আজাদ বলেন, সমাজে চলতে হলে তোমাদের আত্মনির্ভরশীল হতে হবে। তোমাদের প্রতিভাকে আবিষ্কার করতে হবে। সময় নষ্ট করা যাবে না। বরং তোমরা জীবনে যা হতে চাও তার জন্য এখন থেকেই প্রস্তুতি নাও। সফল তোমরা হবেই। এ সময় তিনি শিক্ষার্থীদের প্রতিটা ক্ষেত্রে সৎ থাকার পরামর্শ দেন।