ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটি করপোরেশন নির্বাচনে রিটার্নিং কর্মকর্তা কর্তৃক মনোনয়নপত্র বাতিলের সিদ্ধান্ত চ্যালেঞ্জ করে ঢাকার বিভাগীয় কমিশনারের কাছে আপিল করেছেন ৪৩ জন। এর মধ্যে বৈধ হওয়া অন্যান্য প্রার্থীর বিরুদ্ধেও আপিল করেছেন কয়েকজন সাধারণ ব্যক্তি। 

রোববার আপিল আবেদনের শেষ দিন পর্যন্ত সংশ্নিষ্টরা এই আপিল করেন। ঢাকা উত্তর সিটিতে একজন মেয়র, ১৫ সাধারণ কাউন্সিলর ও দুইজন সংরক্ষিত নারী কাউন্সিলরসহ মোট ১৮ জনের মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়। মনোনয়নপত্র বাতিলের সিদ্ধান্ত চ্যালেঞ্জ করে উত্তরে আপিল করেছেন একজন মেয়র, ১৫ জন সাধারণ কাউন্সিলর ও দুইজন সংরক্ষিত নারী কাউন্সিলর এবং সাধারণ একজন নারী আপিল করেছেন। আর ঢাকা দক্ষিণ সিটিতে ২৬ জন সাধারণ কাউন্সিলর ও দুইজন সংরক্ষিত নারী কাউন্সিলরসহ মোট ২৮ জনের মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়। দক্ষিণে আপিল করেছেন সাধারণ কাউন্সিলর ১৯ ও সংরক্ষিত নারী কাউন্সিলর ২ জন এবং সাধারণ একজন নারী ও দুইজন পুরুষ। বিভাগীয় কমিশনার সূত্রে এসব তথ্য জানা গেছে।

জানা যায়, আপিল আবেদন অনুযায়ী সংশ্নিষ্ট প্রার্থীদের শুনানি শুরু হবে সোমাবার। শেষ হবে মঙ্গলবার। প্রতিদিন সকাল ৯ টা থেকে বিকেল ৫টা পর্যন্ত এই শুনানি চলবে সেগুনবাগিচায় ঢাকার বিভাগীয় কমিশনারের কার্যালয়ে। আপিল কর্তৃপক্ষ হিসেবে ঢাকা বিভাগীয় কমিশনারকে নিয়োগ করেছে নির্বাচন কমিশন।

ঢাকা বিভাগের ভারপ্রাপ্ত কমিশনার মো. সেলিম রেজা সমকালকে বলেন, রিটার্নিং কর্মকর্তার কার্যালয়ে মনোনয়নপত্র বাতিল হওয়া ৪৩ জন প্রার্থী কমিশনারের কার্যালয়ে আপিল করেছেন। তাদের শুনানি সোমবার শুরু হবে, শেষ হবে মঙ্গলবার। প্রথম দিন ২২ জনের শুনানি হতে পারে।

মনোনয়নপত্র বাতিলের সিদ্ধান্ত চ্যালেঞ্জ করে আপিল করা প্রার্থীরা হলেন: উত্তর সিটি করপোরেশনে মেয়র পদে জাতীয় পার্টির প্রার্থী জিএম কামরুল ইসলাম, সাধারণ কাউন্সিলর প্রার্থী ৫২ নম্বর ওয়ার্ডের মির্জা মোহাম্মদ ইলিয়াস, ১১ নম্বরে এস এম রেজাউল ইসলাম, ৫ নম্বরে রুহুল আমিন, ১ নম্বরে এম ফয়সাল আমিন মিলন, ৩৫ নম্বরে সৈয়দ হাসান মাহমুদ, ২৬ নম্বরে নবী সোলাইমান ভূইয়া, ১২ নম্বরে মোহাম্মদ ইকবাল হোসেন তিতু, ১১ নম্বরের দেওয়ান আব্দুল মান্নান, ২৫ নম্বরে মোস্তফা জামান মুন্সি, ২ নং ওয়ার্ডের মনির হোসেন, ৩৯ নম্বরে দেলওয়ার হোসেন, ১৭ নম্বরে ফরিদ উদ্দিন মৃধা, ৯ নম্বরের আমজাদ হোসেন, ৩০ নম্বরে নাছির উদ্দিন, ৩০ নম্বরে ইয়াছিন মোল্লা। এছাড়া সংরক্ষিত নারী কাউন্সিলর পদে ৫ নম্বর ওয়ার্ডের নারগিস বেগম ও নাজমা বেগম এবং একজন সাধারণ নারী আপিল করেছেন।

দক্ষিণে ৭৫ নম্বরে আতাবর রহমান ও আব্দুল্লাহ আল মোমেন, ৫৫ নম্বরে আপেল মাহমুদ, ৫৮ নম্বরে সেলিম রেজা, ২৮ নম্বরে আব্দুর রহিম বাবু, আনোয়ার পারভেজ বাদল ও শাহ আলম লাকি, ৬১ নম্বরে এস এম সোহেল ও বদরুদ্দিন আহমেদ, ৩৫ নম্বরে আবু সাঈদ,৮ নম্বরে আনোয়ার পারভেজ বাদল, ৫৯ নম্বরে হোসেন মিয়া, ১৯ নম্বরে আব্দুল মোতালেব, ২৬ নম্বরে হাসিব উদ্দিন রসি, ৬১ নম্বরে মো. সোহেলস ও মো.পারভেজ চৌধুরী, ৯ নম্বরে মোহাম্মদ শওকত আলী ভূঁইয়া, ৭০ নম্বরে মোহাম্মদ আওলাদ হোসেন, ৩০ নম্বরে মোহাম্মদ ইলিয়াস, ১২ নম্বর ওয়ার্ডের খ ম মামুন রশিদ শুভ্র, ২৯ নম্বরে নাজিম উদ্দিন নাজু, সাধারণ ব্যক্তি হিসেবে আপিল করেছেন ফরিদ উদ্দিন আহমেদ রতন ও মো. কুরবান আলী। এছাড়া সংরক্ষিত ৪ নম্বর নারী কাউন্সিলর প্রার্থী ইসরাত সরকার ঝুনা ও মল্লিকা জামান মুক্তা এবং সাধারণ নারী হাসিনা আলম।