প্রাথমিক শিক্ষকদের নির্বাচন ছাড়া অন্য কাজে নয়

১৩ রকমের কাজ করানো হয় বর্তমানে

প্রকাশ: ১০ ফেব্রুয়ারি ২০২০     আপডেট: ১০ ফেব্রুয়ারি ২০২০       প্রিন্ট সংস্করণ

সাব্বির নেওয়াজ

নির্বাচনের ভোটগ্রহণ বাদে পাঠদান-বহির্ভূত অন্য সব কাজ থেকে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের বিরত রাখতে উদ্যোগ নিয়েছে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়। মূল কাজ শিক্ষকতার চেয়ে অন্যান্য কাজে শিক্ষকরা বেশি জড়িয়ে পড়ায় প্রাথমিক শিক্ষা ব্যাহত হচ্ছে বলে মনে করে তারা। টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা অর্জনের জন্য মানসম্মত শিক্ষা নিশ্চিতে এটি হুমকি বলে বিবেচনা করা হচ্ছে। সরকারের বিভিন্ন মন্ত্রণালয় ও বিভাগের সচিবদের কাছে চিঠি দিয়ে প্রাথমিক শিক্ষকদের কোনো বাড়তি দায়িত্ব না দিতে সম্প্রতি অনুরোধ জানিয়েছে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়। বর্তমানে ৬৫ হাজার ৯০২টি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় রয়েছে সারাদেশে। তিন লাখ ৭৫ হাজার সহকারী শিক্ষক ও ৪২ হাজার প্রধান শিক্ষক রয়েছেন এগুলোতে। প্রধান শিক্ষকের পদ শূন্য থাকা বাকি বিদ্যালয়গুলোতে চলতি দায়িত্ব দিয়ে চালানো হচ্ছে।

শিক্ষকদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, বর্তমানে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের ১৩ ধরনের কাজে ব্যস্ত থাকতে হয়। এতে বিদ্যালয়গুলোর একাডেমিক কার্যক্রম ব্যাহত হয়। এসব কাজের মধ্যে রয়েছে ভোটার  তালিকা প্রণয়ন ও  হালনাগাদ করা, ভোটগ্রহণ, শিশু জরিপ, কৃষিশুমারি, আদমশুমারি, উপবৃত্তি তালিকা প্রণয়ন ও প্রাপ্তিতে সহযোগিতা, খোলাবাজারে চাল বিক্রি তদারকি, ভিটামিনযুক্ত বিস্কুুট শিশুদের খাওয়ানো ও হিসাব সংরক্ষণ, কাঁচা-পাকা ল্যাট্রিনের হিসাব-তথ্য সংগ্রহ করা, কৃমির ট্যাবলেট, ভিটামিন এ ক্যাপসুলসহ স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের দেওয়া নানা কাজ, রাজনৈতিক ব্যক্তিবর্গসহ প্রাথমিকের অনুষ্ঠানে হাজিরা ছাড়াও নানা কাজ শিক্ষকদের দিয়ে করানো হয়।

ঝালকাঠি জেলার কীর্তিপাশা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক শিমুল সুলতানা হ্যাপী সমকালকে বলেন, 'প্রধান শিক্ষকসহ বেশিরভাগ বিদ্যালয়ে শিক্ষক সংখ্যা চার থেকে পাঁচজন। পাঁচটি শ্রেণিতে ক্লাস নিতে হয় নানা বিষয়ে তাদের। প্রধান শিক্ষককে প্রশাসনিক নানা দায়িত্ব পালনের জন্য উপজেলা ও জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসে যেতে হয় প্রায়ই। ক্লাস নিতে হয়। বাকি চার শিক্ষকের মধ্যে যদি কেউ প্রশিক্ষণে থাকেন, মাতৃত্বকালীন ছুটিতে যান, তবে দুই থেকে তিনজন শিক্ষক দিয়ে পুরো স্কুল চালাতে হয়। ক্লাসরুমে পাঠদানের বাইরেও শিক্ষা-সংক্রান্ত নানা কাজেই শিক্ষকের অনেক সময় দিতে হয়। পরীক্ষা নেওয়া, খাতা দেখা, প্রাথমিক সমাপনী, বিদ্যালয়ের ক্যাচমেন্ট এরিয়া জরিপ, ভর্তিসহ নানা কাজ শিক্ষকদেরই করতে হয়।'

মন্ত্রণালয় সূত্র জানায়, এ পরিস্থিতি থেকে উত্তরণের জন্য গত ২৭ জানুয়ারি সব মন্ত্রণালয়ের সচিবের দৃষ্টি আকর্ষণ করে আধা সরকারি পত্র দিয়েছেন প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. আকরাম-আল-হোসেন। চিঠিতে বলা হয়, শিক্ষকদের পেশাগত দক্ষতা বৃদ্ধির জন্য ৯ মাসব্যাপী সিইনএড প্রশিক্ষণের পরিবর্তে দেড় বছরব্যাপী ডিপিইনএড প্রশিক্ষণ দেওয়ার ফলে শিক্ষকদের মধ্যে উল্লেখযোগ্য অংশ প্রশিক্ষণ গ্রহণে ন্যস্ত থাকে।

সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের জন্য নতুন পদ সৃজন ও নতুন শিক্ষক নিয়োগ করা সত্ত্বেও শিক্ষক-ছাত্র অনুপাত ১ :৩৬। আর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ৭০ ভাগ মহিলা শিক্ষক। তাদের ছয় মাসব্যাপী মাতৃত্বকালীন ছুটি, প্রশিক্ষণ ইত্যাদির কারণে পদস্থ শিক্ষকদের মধ্যে প্রকৃত শিক্ষক সংখ্যা প্রায়শই কম থাকে। ফলে প্রায় সব শিক্ষককে অতিরিক্ত ক্লাস গ্রহণসহ শিখন কার্যক্রমে অতিরিক্ত সময় নিয়োজিত থাকতে হয়। এর মধ্যেই শিখন বা বিদ্যালয় সম্পৃক্ত নয়, এরূপ সরকারি কার্যক্রম সম্পাদনে বিভিন্ন মন্ত্রণালয়/বিভাগ কর্তৃক প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের দায়িত্ব প্রদান করা হয়। ফলে শিক্ষকদের শিখন কার্যক্রমে পর্যাপ্ত সময় প্রদান ও শিখন মান বজায় রাখা কঠিন হয়ে পড়েছে।

চিঠিতে আরও বলা হয়, মানসম্মত শিক্ষা নিশ্চিত করতে এবং প্রাথমিক শিক্ষার অগ্রযাত্রাকে আরও বেগবান করতে শিক্ষকদের শিখন কার্যক্রমে নিয়োজিত থাকার পরিবেশ ও সুযোগ নিশ্চিত করা প্রয়োজন। এ ক্ষেত্রে বিদ্যালয় বা শিখন সংশ্নিষ্ট নয়, এরূপ কার্যক্রমে শিক্ষকদের বিরত রাখা প্রয়োজন। এ প্রেক্ষাপটে শুধু নির্বাচন কার্যক্রম ছাড়া অন্যান্য কার্যক্রম থেকে প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের দায়িত্ব প্রদান না করার বিষয়টি সক্রিয় বিবেচনাযোগ্য বলে মনে করি। এ ক্ষেত্রে সংশ্নিষ্ট সচিবের ব্যক্তিগত হস্তক্ষেপ কামনা করা হয় এ চিঠিতে।

রংপুর ক্যাডেট কলেজ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক রওশন আরা বীথি সমকালকে বলেন, মূল প্রফেশনের বাইরে বাড়তি কাজ মানেই বাড়তি চাপ। সেই চাপের বিষয়টি অনুভব করে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় যে পদক্ষেপ নিয়েছে, তা নিঃসন্দেহে সাধুবাদ জানানোর মতো। আশা করি অন্যান্য মন্ত্রণালয়ও এ বিষয়টি উপলব্ধি করবে।

সাধারণ প্রাথমিক শিক্ষকরা জানান, প্রতি মাসে ছাত্র হাজিরা খাতায় নাম ওঠানো, বিদ্যালয়ে শিক্ষার্থীদের দৈনন্দিন উপস্থিতি-অনুপস্থিতি হিসাব সংরক্ষণ, হোম ভিজিট, উপকরণ তৈরি, দৈনিক পাঠ পরিকল্পনা তৈরি, বার্ষিক প্রাথমিক বিদ্যালয় শুমারি তথ্য, প্রাথমিক শিক্ষক সমাপনী সার্টিফিকেট লেখা, বছরে তিনটি পরীক্ষা ছাড়াও মডেল টেস্ট, সমাপনী ও জেএসসি পরীক্ষার নির্ভুল তথ্য পূরণসহ বিশাল কাজ শিক্ষকদের করতে হয়। এর পরও স্কুলের বাইরে নানা ধরনের কাজ করতে গিয়ে পাঠদান ব্যাহত হচ্ছে।