ছাত্রী ও গৃহকর্মীকে যৌন হয়রানি, হাবিপ্রবির শিক্ষক বহিষ্কার

প্রকাশ: ১৫ ফেব্রুয়ারি ২০২০     আপডেট: ১৬ ফেব্রুয়ারি ২০২০   

দিনাজপুর প্রতিনিধি

বহিষ্কৃত শিক্ষক রমজান আলী

বহিষ্কৃত শিক্ষক রমজান আলী

ছাত্রীকে যৌন হয়রানি ও গৃহকর্মীর সঙ্গে অনৈতিক সম্পর্কের ঘটনায় দিনাজপুরের হাজী মোহাম্মদ দানেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (হাবিপ্রবি) শিক্ষক রমজান আলীকে বিশ্ববিদ্যালয় থেকে চূড়ান্ত বহিষ্কার করা হয়েছে। 

শনিবার বিশ্ববিদ্যালয়ের সর্বোচ্চ নীতিনির্ধারণী ফোরাম রিজেন্ট বোর্ডের ৪৯তম সভায় এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। এর আগে তাকে সাময়িক বহিষ্কার করা হয়েছিল। তিনি বায়োকেমিস্ট্রি অ্যান্ড মলিক্যুলার বায়োলজি বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ছিলেন।

রমজান আলীর বিরুদ্ধে ২০১৭ সালের ১৮ জুলাই যৌন হয়রানির অভিযোগ এনে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের কাছে লিখিত অভিযোগ দিয়েছিলেন এক ছাত্রী। লিখিত অভিযোগে ওই ছাত্রী বলেছিলেন, স্ত্রীর অনুপস্থিতিতে রমজান আলী তাকে বিভিন্ন অজুহাতে বাসায় ও বাইরে হোটেলে যেতে চাপ দিতে থাকেন। এতে রাজি না হলে পরীক্ষায় ফেল করিয়ে দেওয়ার হুমকি দেন। লিখিত অভিযোগের সঙ্গে রমজান আলীর সঙ্গে মোবাইল ফোনে কথোপকথনের রেকর্ড জমা দেন ওই ছাত্রী। এদিকে ছাত্রীর সঙ্গে অনৈতিক সম্পর্ক ও যৌতুকের জন্য নির্যাতনের প্রতিকার চেয়ে স্বামীর বিরুদ্ধে ২০১৮ সালের ১৬ জানুয়ারি বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের কাছে লিখিত অভিযোগ দেন রমজান আলীর স্ত্রী।

এ ঘটনায় বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন হাইকোর্টের নির্দেশনায় সাত সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করে। তদন্ত কমিটি রমজান আলীর বিরুদ্ধে ছাত্রীকে যৌন হয়রানি ও তার স্ত্রীর দায়ের করা অভিযোগের সত্যতা পায়। একই সঙ্গে তার বিরুদ্ধে বিশ্ববিদ্যালয়ের আবাসস্থলে গৃহকর্মীর সঙ্গে যৌন সম্পর্ক স্থাপনের প্রমাণও পায় তদন্ত কমিটি। ২০১৮ সালের ২ জুলাই রমজান আলীকে চূড়ান্ত বহিষ্কারের সুপারিশ করে তদন্ত প্রতিবেদন জমা দেওয়া হয়।

এ নিয়ে শিক্ষক-শিক্ষার্থী, মহিলা পরিষদসহ বিভিন্ন সংগঠনের আন্দোলনের পরিপ্রেক্ষিতে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন ওই বছরের ৩০ জুলাই তাকে সাময়িক বহিষ্কার করে। তাকে চূড়ান্ত বহিষ্কার না করায় এ নিয়ে আন্দোলন ও বিভিন্ন গণমাধ্যমে সংবাদ প্রকাশ হওয়ার পরিপ্রেক্ষিতে শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি গত বছরের ৯ জুলাই ইউজিসিকে তদন্ত করে ব্যবস্থা নেওয়ার নির্দেশ দেন। অবশেষে তাকে চূড়ান্ত বহিষ্কার করার সিদ্ধান্ত নিল বিশ্ববিদ্যালয়ের রিজেন্ট বোর্ড।

রমজান আলীকে চূড়ান্ত বহিষ্কারের খবরে দিনাজপুর মহিলা পরিষদের সভাপতি কানিজ রহমান জানান, দেরিতে হলেও বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন সঠিক সিদ্ধান্ত নিয়ে কলঙ্কমুক্ত হয়েছে। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বিশ্ববিদ্যালয়ের এক ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা জানান, রমজান আলীকে চূড়ান্তভাবে বহিষ্কারের সিদ্ধান্ত হয়েছে। এখনও অফিস আদেশ হয়নি।