সাংবাদিকদের আলাদা পাস লাগবে না: তথ্যমন্ত্রী

প্রকাশ: ২৬ মার্চ ২০২০   

সমকাল প্রতিবেদক

ফাইল ছবি

ফাইল ছবি

করোনাভাইরাসের কারণে সারাদেশে ১০ দিনের ছুটির সময় সাংবাদিকদের দায়িত্ব পালন করতে আলাদা পাস বা পরিচয়পত্র প্রয়োজন হবে না বলে জানিয়েছেন তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ। তিনি বলেন, সাংবাদিকদের যে কার্ড রয়েছে, সেটিই যথেষ্ট। যদি সাংবাদিকদের মিডিয়া হাউস থেকে বলে দেওয়া হয়, তিনি অন ডিউটি, তাহলে সেটিই যথেষ্ট। এটির জন্য আলাদা কোনো কার্ড দেওয়ার প্রয়োজন নেই। একজন সাংবাদিক যখন অন ডিউটিতে থাকেন, তখন তাকে সহযোগিতা করা প্রয়োজন।

বুধবার সচিবালয়ে বাংলাদেশ সেক্রেটারিয়েট রিপোর্টার্স ফোরামের নেতাদের কাছে হ্যান্ড স্যানিটাইজার ও মাস্ক বিতরণ অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন।

তথ্যমন্ত্রী বলেন, এ দুর্যোগ সম্মিলিতভাবে মোকাবিলা করতে হবে। সাংবাদিকদের সংবাদ সংগ্রহে বিভিন্ন জায়গায় যেতে হয়, সেজন্য তারাও কিন্তু করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকির মধ্যে থাকেন। সাংবাদিকদের পার্সোনাল প্রটেকশনের কিছু সরঞ্জাম দেওয়া হলো।

এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, দুর্নীতির মামলায় দণ্ডিত বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার দণ্ডের কার্যকারিতা স্থগিত করে শর্তসাপেক্ষে তাকে মুক্তি দেওয়া হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা উদারতা ও মহানুভবতা দেখিয়েছেন। বিএনপি যে নেতিবাচক ও ধ্বংসাত্মক রাজনীতি করে, তা থেকে বের হয়ে আসবে বলে তিনি আশা প্রকাশ করেন।

খালেদা জিয়ার মুক্তিতে করোনাভাইরাস থেকে দেশ মুক্তি পাবে- বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলামের এমন দাবির বিষয়ে তথ্যমন্ত্রীর প্রতিক্রিয়া জানতে চাইলে তিনি বলেন, করোনাভাইরাস একটি বৈশ্বিক দুর্যোগ, এর সঙ্গে খালেদা জিয়ার মুক্তির কোনো সম্পর্ক নেই। কিন্তু এটি যদি বিএনপি মহাসচিব বলে থাকেন তাহলে আশা করব, এ ধরনের দায়িত্বহীন কথা কেউ আর বলবেন না।

তথ্যমন্ত্রী আরও বলেন, করোনাভাইরাস মোকাবিলায় ছুটি ও গণপরিবহন বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। মানুষের চলাচল বন্ধ হলে করোনাভাইরাস সংক্রমণ রোধ হয়। বিশেষ করে চীন- দক্ষিণ কোরিয়া এ ব্যবস্থা নিয়ে অনেকটা সফল হয়েছে।


করোনা মোকাবিলায় সতর্ক থাকুন : করোনাভাইরাস নিয়ে গুজবে আতঙ্কিত না হয়ে এর মোকাবিলায় সতর্ক থাকতে দেশবাসীর প্রতি আহ্বান জানিয়ে ড. হাছান মাহমুদ বলেন, আতঙ্কিত হলে সমস্যার সমাধান হবে না। গুজবে কান দিলে চলবে না। স্বাস্থ্যবিধি সতর্কভাবে মেনে চলতে হবে।

বুধবার আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনার ধানমন্ডির রাজনৈতিক কার্যালয়ে বিভিন্ন সামাজিক, রাজনৈতিক সংগঠন ও সাংবাদিকদের মধ্যে মাস্ক ও হেপিসল বিতরণকালে তথ্যমন্ত্রী এসব কথা বলেন। আওয়ামী লীগের ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ উপকমিটির উদ্যোগে এসব করোনাভাইরাস প্রতিরোধ সামগ্রী বিতরণ অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।

এ সময় আরও উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগের ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ বিষয়ক সম্পাদক সুজিত রায় নন্দী।