করোনায় থমকে গেছে জীবন। থেমে গেছে রোজগার। কষ্টের দিনে দিশাহীন নিম্ম আয়ের মানুষ ও হতদরিদ্ররা। সামনের দিনগুলো কীভাবে কাটবে, তাই নিয়ে যত দুঃচিন্তা। এমন সংকটে সহায়তার হাত বাড়িয়ে পথে নেমেছেন মানবিক কিছু মানুষ। সংকটেও আলোর পথ দেখাচ্ছেন তারা। 

নোয়াখালীতে খাদ্য-সংহতি তহবিল, দিনমজুর-শ্রমজীবীদের খাদ্য উপহার 

খাদ্য সংকট মোকাবেলায় নোয়াখালীতে দিনমজুর-শ্রমজীবী মানুষকে খাদ্য উপহার দেওয়া শুরু করছে উন্নয়ন সংগঠন পার্টিসিপেটরি রিসার্চ অ্যাকশান নেটওয়ার্ক (প্রান) ও বন্ধন। মঙ্গলবার সকালে নোয়াখালী প্রেসক্লাব চত্ত্বরে নোয়াখালী পৌরসভার মেয়র শহিদ উল্যাহ খান সোহেল, নোয়াখালী সরকারি কলেজের অধ্যক্ষ আল-হেলাল-মোশারফ হোসেন ও চৌমুহনী সরকারি এসএ কলেজের অধ্যক্ষ আবুল বাসার প্রাথমিকভাবে ১০০টি পরিবারের মধ্যে এই উপহার তুলে দেন।

আয়োজকদের পক্ষে প্রাণের প্রধান নির্বাহী নুরুল আলম মাসুদ জানান, করোনা পরিস্থিতিতে ঘরে আটকেপড়া শ্রমজীবী-দিনমজুর মানুষের খাদ্য সংকট মোকাবেলায় উন্নয়ন সংগঠন প্রানের আহ্বানে স্থানীয়ভাবে একটি খাদ্য-সংহতি তহবিল গঠিত হয়েছে। সমাজের বিভিন্ন মানুষের অনুদানে পরিচালিত এই তহবিল থেকে পরিবার প্রতি ১৭ কেজি খাবার এবং পরিচ্ছন্নতা উপকরণ প্রদান করা হবে এবং করোনা পরিস্থিতি স্বাভাবিক না হওয়া পর্যন্ত দিনমজুর-শ্রমজীবী মানুকে খাদ্য-উপহার প্রদান করবে।যার যা সামর্থ আছে, সেই অনুযায়ী এমন ছোট ছোট উদ্যোগ নিয়ে সবাই এগিয়ে এলে সংকট কাটিয়ে উঠতে পারবে মানুষ-এমন মত অতিথিদের।

রাজধানীর দরিদ্র মানুষের পাশে শাহিন

আবু সায়েম শাহিন নিজের এলাকা মোহাম্মদপুরসহ আশেপাশের বিভিন্ন এলাকায় গত ২৬ মার্চ থেকেই হতদরিদ্রের মাঝে চাল-ডাল-আলু-তেলসহ বিভিন্ন খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করছেন। ব্যাক্তিগত ব্যবসা ও বিভিন্ন সামাজিক সংগঠনের সঙ্গে যুক্ত মোহাম্মদপুর থানা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আবু সায়েম শাহিন জানান, রাজধানীতে অনেক হতদরিদ্র ও ছিন্নমূল মানুষ আছেন। এই সময়ে সময়ে তাদের খাবারের খুব প্রয়োজন। এরকম মানুষদের শনাক্ত করে তাদের বাড়ি এবং আবাসস্থলে খাবার পৌঁছে দেওয়া হচ্ছে। এরই মধ্যে মোহাম্মদপুর ও মিরপুরের বিভিন্ন জায়গায় এই খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করা হয়েছে।'

কোম্পানীগঞ্জে হতদরিদ্রদের পাশে সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান বাদল

হতদরিদ্র মানুষের পাশে দাঁড়িছেন নোয়াখালী জেলার কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান ও জেলা আ’লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মিজানুর রহমান বাদল। তার এনজিও সংস্থা 'বসতির' পক্ষ থেকে উপজেলার প্রত্যেকটি ইউনিয়নে হতদরিদ্রদের মাঝে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ কার্যক্রম শুরু হয়েছে। মঙ্গলবার সকাল ১০টায় উপজেলার ১নং সিরাজপুর ইউনিয়নের সিরাজপুর উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে খাদ্য সামগ্রী বিতরণের মাধ্যমে এ কার্যক্রমের উদ্বোধন করা হয়। এ সময় মিজানুর রহমান বাদল উপস্থিত থেকে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করেন।তিন বলেন, প্রাথমিকভাবে উপজেলার ৮টি ইউনিয়ন ও একটি পৌরসভায় ৩ হাজার পরিবারের মাঝে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করবো। দেশের পরিস্থিতি বিবেচনা করে পরবর্তীতে এ পরিধি আরো বাড়ানো হবে। এটি আমার দায়িত্ব ও কর্তব্যের মধ্যেই পড়ে।