করোনাভাইরাস প্রতিরোধ ও নিয়ন্ত্রণ কার্যক্রমের অংশ হিসেবে দেশের কারাগারগুলোকে নিরাপদ ও করেনাভাইরাস সংক্রমণের ঝুঁকিমুক্ত রাখতে কাজ করছে বাংলাদেশ রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটি।

ইন্টারন্যাশনাল কমিটি অব দ্য রেড ক্রসের (আইসিআরসি) সহযোগিতায় রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটির পারিবারিক যোগাযোগ পুনঃস্থাপন বিভাগ দেশের ৬৪টি জেলার মধ্যে ৫৯টি জেলা কারাগারে ইতিমধ্যে বিশেষ কার্যক্রম শুরু করেছে। কারাগারের অভ্যন্তরের বন্দিদের করোনাভাইরাসের সংক্রমণ থেকে মুক্ত রাখা এবং বাহির থেকে যেন কেউ জীবাণু নিয়ে ভেতরে প্রবেশ করতে না পারে সেদিকে বিশেষ লক্ষ্য রাখা এই কার্যক্রমের মূল উদ্দেশ্য বলে রেড ক্রিসেন্টের পক্ষ থেকে জানানো হয়।

গত ৫ এপ্রিল থেকে ঢাকা কারাগারে এবং ৯ এপ্রিল থেকে সারা দেশের কারাগারগুলোতে এই কার্যক্রম শুরু করে রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটি।

বাংলাদেশ রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটির পারিবারিক যোগাযোগ পুনঃস্থাপন বিভাগ জানায়, ইতিমধ্যে আইসিআরসি দেশের প্রতিটি কারাগারে রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটির সহযোগিতায় ‘সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণ ও প্রতিরোধ’ জীবাণুনাশক স্প্রে সরঞ্জামাদি, হ্যান্ড সেনিটাইজার, ফুট-বাথসহ প্রয়োজনীয় নিত্য-ব্যবহার্য সামগ্রী ও সচেতনতামূলক লিফলেট সরবরাহ করেছে। বাংলাদেশ রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটির স্বেচ্ছাসেবকরা এই কার্যক্রমটি সঠিকভাবে বাস্তবায়নে কারা কর্তৃপক্ষকে সহযোগিতা করছে।

পাশাপাশি সোসাইটির প্রশিক্ষিত স্বেচ্ছাসেবকরা কারাগারের ভেতরে প্রবেশকারীদের মধ্যে স্বাস্থ্য সুরক্ষা উপকরণ ব্যবহার নিশ্চিতকরণ, সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখাসহ সচেতনতা বৃদ্ধি কার্যক্রম অব্যাহত রেখেছে।

রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটি জানায়, বাংলাদেশ রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটি ও ইন্টারন্যাশনাল কমিটি অব দ্য রেড ক্রস এই কার্যক্রমটি বাস্তবায়নের মধ্য দিয়ে দেশের কারাগারগুলোতে করোনাভাইরাস সংক্রমণের ঝুঁকি কমিয়ে আনতে সক্ষম হবে।

অপরদিকে, সারা দেশে জনসচেতনতা বৃদ্ধিতে জনগণের মধ্যে পারস্পারিক সামাজিক ও শারীরিক দূরত্ব বজায় রাখা ও নিয়মিত হাত ধোয়ার অভ্যাস গড়ে তুলতে বেসিন স্থাপন করাসহ হাসপাতাল, হাটবাজার, মসজিদ, মন্দির, গীর্জাসহ জনসমাগমস্থলকে জীবাণুমুক্ত করতে জীবাণুনাশক স্প্রে কার্যক্রম অব্যাহত রেখেছে বাংলাদেশ রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটি।

এছাড়াও, চট্টগ্রাম জেলা ও সিটি রেড ক্রিসেন্ট ইউনিট নিজ উদ্যোগে চট্টগ্রামের অসহায় ও নিম্ন আয়ের মানুষদের মাঝে খাদ্য সহায়তা প্রদান করেছে। সংবাদ বিজ্ঞপ্তি