স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের দুর্নীতি বন্ধ করুন: পীর সাহেব চরমোনাই

প্রকাশ: ০২ মে ২০২০     আপডেট: ০২ মে ২০২০   

অনলাইন ডেস্ক

ফাইল ছবি

ফাইল ছবি

করোনা মোকাবিলায় স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের কর্মকাণ্ডে গভীর উদ্বেগ ও ক্ষোভ প্রকাশ করে এবং দুর্নীতিবাজদের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের দুর্নীতির বিরুদ্ধে সোচ্চার হওয়া চিকিৎসকদেরকে অনতিবিলম্বে স্বপদে বহাল রাখার দাবি জানিয়েছেন ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ-এর আমীর মুফতী সৈয়দ মুহাম্মদ রেজাউল করীম পীর সাহেব চরমোনাই।

শনিবার এক বিবৃতিতে পীর সাহেব চরমোনাই বলেন, স্বাস্থ্য অধিদপ্তর নিজেদের দুর্নীতি ও লুটপাটের দায় আড়াল করতে এবং তাদের অপরাধের নিশানা ও চিহ্ন মুছে ফেলতে চিকিৎসকদের হুমকি-ধমকি দিচ্ছে, চাপের মধ্যে রাখছে। যা কোনভাবেই মেনে নেয়া যায় না। 

তিনি বলেন, সরবরাহকৃত এন-৯৫ মাস্কের মান নিয়ে প্রশ্ন তোলা মুগদা জেনারেল হাসপাতালের পরিচালকের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা সেই দুর্নীতির বহি:প্রকাশ। 

তিনি বলেন, স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের সরবরাহকৃত নকল ও মানহীন মাস্ক, পিপিই, হ্যান্ড গ্লাভসসহ অন্যান্য সুরক্ষা সামগ্রীর কারণেই চিকিৎসক-নার্স-স্বাস্থ্যকর্মীদের মধ্যে করোনাভাইরাস সংক্রমণের হার মারাত্মক পর্যায়ে উপনীত হয়েছে।

মুগদা জেনারেল হাসপাতালের পরিচালকের বিরুদ্ধে শাস্তিমুলক ব্যবস্থা প্রত্যাহার করে তিনিসহ সব চিকিৎসক-নার্স-স্বাস্থ্যকর্মীদের কাছে স্বাস্থ্যমন্ত্রী ও স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালককে ক্ষমা চাইতে হবে বলেও জানান তিনি।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের কেনাকাটায় জড়িত ‘দুর্নীতিবাজ-লুটেরা’ কর্মকর্তাদের অবিলম্বে অপসারণ করে তাদের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নিতে হবে। সেই সঙ্গে সাধারণ নাগরিকদের চিকিৎসাসেবা নিশ্চিত ও মানসম্মত সেবা চালুর দাবি জানান পীর সাহেব চরমোনাই।

তিনি বলেন, করোনা আক্রান্ত অনেক রোগী চিকিৎসকের অবহেলায় চিকিৎসা ছাড়া মারা যাচ্ছেন এবং অনেকে করোনা পজিটিভ হয়ে এ্যাম্বুলেন্সে করে হাসপাতালে গিয়ে ভর্তি হতে না পেরে সেবা বঞ্চিত হয়ে বাসায় ফিরে যাচ্ছেন। যা দেশের মানুষের ভবিষ্যতে ও রোগ নিয়ন্ত্রণের পরিবর্তে ছড়িয়ে পড়ার আশঙ্কা সৃষ্টি করছে।