অত্রিক: করোনাযুদ্ধে এবার এগিয়ে এলেন বাংলাদেশের লেখকেরা

প্রকাশ: ২২ মে ২০২০     আপডেট: ২২ মে ২০২০   

অনলাইন ডেস্ক

করোনার এই সংকটকালীন সময়ে এক মানবিক পৃথিবীর লক্ষ্যে কাজ করে যাচ্ছে অজস্র তরুণ। বাংলাদেশে ‘মিশন সেভ বাংলাদেশ’, ‘বিদ্যানন্দ ফাউন্ডেশন’-এর মতো সমন্বিত উদ্যোগের নজির তো আছেই, ব্যক্তিপর্যায়েও অনেকেই নিজের সাধ্যের সবটুকু দিয়ে পাশে দাঁড়াচ্ছেন মানুষের। বাংলাদেশের বেশ কয়েকজন জনপ্রিয় ও মেধাবী লেখক এবার এমনই এক উদ্যোগে শামিল হলেন। কাঁটাতারের বেড়া ডিঙিয়ে সেই উদ্যোগে একাত্মতা ঘোষণা করেছেন কলকাতার কয়েকজন লেখকও।

ঘটনা খুলে বলা যাক। ফেসবুকে ব্যাঙ্গাত্মক লেখনীর কারণে দারুণ জনপ্রিয় সোহাইল রহমান বেশ কয়েকদিন ধরে ভাবছিলেন, করোনার এই সংকটকালীন সময়ে লেখালেখির সঙ্গে সম্পৃক্ত মানুষদের কিছু করার সুযোগ আছে কিনা। অনেক ভেবে সমমনা কয়েকজনকে ফেসবুকে নক করলেন। পেলেন অপ্রত্যাশিত সাড়া। তারা সিদ্ধান্ত নিলেন একটি ‘অনলাইন ম্যাগাজিন’ করবেন। একে একে উদ্যোগে শামিল হলেন সাদাত হোসাইন, ওবায়েদ হক, ইশতিয়াক আহমেদ, কাসাফাদ্দৌজা নোমান, রাসয়াত রহমান জিকো, মাহরীন ফেরদৌস, জয়নাল আবেদিনসহ আরও অনেকগুলো নাম। কলকাতা থেকে শামিল হলেন বিখ্যাত ইউটিউবার কিরণ দত্ত, দেবতোশ দাসসহ আরও অনেকেই। শেষ পর্যন্ত আলোর মুখ দেখে ৩৪২ পৃষ্ঠার 'অত্রিক' ম্যাগাজিন।

ম্যাগাজিন তো হলো, সেই ম্যাগাজিনের মাধ্যমে ফান্ডরেইজিং করতে দরকার প্রমাণিত একটি প্ল্যাটফর্ম। এজন্য তারা অনেক যাচাই-বাছাই করে বেছে নিলেন প্রায় ছয় বছর ধরে দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলে কাজ করার অভিজ্ঞতাসম্পন্ন 'লাইটার ইয়ুথ ফাউন্ডেশন'কে। তাদের দেশজুড়ে রেজিস্টার্ড ভলান্টিয়ার আছে প্রায় ২৫০ জন, যেকোনো দুর্যোগে যারা সাহায্য করতে ছুটে যায় দেশের এক প্রান্ত থেকে আরেক প্রান্তে। আপদকালীন সহায়তা করা ছাড়াও সংগঠনটির অন্যতম বৈশিষ্ট্য বছরজুড়ে সার্ভে করে একেবারেই অস্বচ্ছল পরিবারগুলোকে স্বাবলম্বী করা। এখন পর্যন্ত সংগঠনটি ৭৩টি পরিবারকে স্বাবলম্বী করেছে সেলাইমেশিন, মুদি দোকান, রিকশা, ভ্যান, ইঞ্জিনচালিত নৌকা, কুটির শিল্পের সরঞ্জাম ও গবাদি পশুর মাধ্যমে।

লাইটার ইয়ুথ ফাউন্ডেশনের ওয়েবসাইট ও ফেসবুক পেজ থেকে মাত্র ৫০ টাকা শুভেচ্ছামূল্যের বিনিময়ে সংগ্রহ করা যাচ্ছে ম্যাগাজিনটি। কেউ কেউ শুভেচ্ছামূল্যের চেয়েও বেশি দামে কিনে নিচ্ছেন ম্যাগাজিনটি। দুই দিনেই ফান্ডে এসেছে ৭৩ হাজার ৩১৩ টাকা। টাকার অংক না জমিয়ে এক দিন বাদেই লাইটারের সদস্যরা ছুটে যাচ্ছে বান্দরবাবের লামায় গজালিয়া ইউনিয়নের মুরং সম্প্রদায়ের ৫৪টি পরিবার ও চুয়াডাঙ্গার আলমডাঙ্গায় ঘূর্ণিঝড় আম্পানে ক্ষতিগ্রস্ত ৫০টি পরিবারের মাঝে ত্রাণ বিতরণে। প্রতিটি পরিবারকে দেওয়া হবে চাল ৪ কেজি, ডাল ১ কেজি, পেঁয়াজ ১ কেজি, আলু ২ কেজি, তেল ১ লিটার, মুড়ি হাফ কেজি ও ১টি সাবান। এভাবে দেশের নানা প্রান্তে যতগুলো পরিবারকে সাহায্য করা সম্ভব ম্যাগাজিনটি বিক্রির মাধ্যমে, করতে চায় লাইটার। আয়োজকরাও সাধ্যমত প্রচারণা করে যাচ্ছেন।

চাইলে আপনিও শামিল হতে পারেন এই অসাধারণ উদ্যোগে। আপনাকে কষ্ট করে শুধু লাইটার ইয়ুথ ফাউন্ডেশনের ফেসবুক পেজে নক দিতে হবে, তারাই আপনাকে বলে দিবে কীভাবে অতি সহজেই আপনি ডোনেট করতে পারেন। চাইলে সরাসরি ওয়েবসাইট থেকেও ডোনেট করতে পারবেন। লাইটার ইয়ুথ ফাউন্ডেশনের ফেসবুক পেজ- www.facebook.com/lighterfoundationbd। ওয়েবসাইট- www.lighterbd.org। সংবাদ বিজ্ঞপ্তি