কঠিন শর্ত দেওয়ায় ইতালিতে বৈধতার আবেদন করতে পারছে না অনেক অবৈধ অভিবাসী। আবেদনের প্রথম ১০ দিনে মাত্র ১৮ হাজার অভিবাসী আবেদন করেছেন। যেখানে দেশটির সরকার ধারণা করেছিল, ২ লাখ ২০ হাজার আবেদন জমা পড়বে। ফলে বিপুল সংখ্যক অভিবাসীর বৈধতা পাওয়া নিয়ে অনিশ্চয়তা দেখা দিয়েছে। 

 দীর্ঘ আট বছর পর দেশটির সরকার অভিবাসীদের বৈধতা দিতে যাচ্ছে। এজন্য আবেদন গ্রহণ আগামী ১৫ জুলাই পর্যন্ত চলবে। সোমবার ইতালির একটি সংবাদমাধ্যম জানিয়েছে, এবারের ঘোষণায় সরকার ৩ লাখ ৮৭ হাজার অভিবাসীকে বৈধতা দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছিল। এর মধ্যে কৃষিকাজে কর্মরত ৭৬ হাজার অভিবাসী ও বাসাবাড়ির কাজ ও বয়স্কদের সহায়তায় কর্মরত ৩ লাখ ১১ হাজার অভিবাসী বৈধতা পেতে পারেন।

তবে শনিবার দেশটির স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় বলেছে, শর্তপূরণ সাপেক্ষে সবাই বৈধতার আবেদন করতে পারবেন। জমা দেওয়া কাগজপত্র সঠিক হলে সবাই বৈধতা পাবেন। সেখানে সংখ্যা নির্ধারণ করে দেওয়া হচ্ছে না। 

কিন্তু ঘোষিত শর্ত পূরণ করে সবাইকে বৈধতা দেওয়া সম্ভব হবে না বলে আশঙ্কা প্রকাশ করা হয়েছে। কারণ মালিকের ক্ষেত্রে শর্ত দেওয়া হয়েছে বার্ষিক আয় নির্ধারণ করে দিয়ে। আর অভিবাসীদের ক্ষেত্রে কেবল দু'টি খাতের কথা বলা হয়েছে। ফলে অন্যান্য খাতে কর্মরত অভিবাসীরা আবেদন করতে পারছে না।

দেশটিতে বাংলাদেশি অবৈধ অভিবাসী রয়েছে প্রায় ২০ হাজার। বাস্তবতা হচ্ছে, এখানে কৃষিখাতে অধিকাংশ কর্মজীবী ভারতীয় ও তিউনিশিয়ার নাগরিক। বাসাবাড়ির কাজে রয়েছে একচেটিয়া ইউক্রেন ও ফিলিপাইনের নাগরিকরা। বাংলাদেশি অভিবাসীদের অধিকাংশ কাজ করেন বিভিন্ন ব্যবসা প্রতিষ্ঠান, সমুদ্রসৈকতে, হোটেল ও রেস্টুরেন্টে। সরকার বৈধতার যে ঘোষণা দিয়েছে তাতে বাংলাদেশি অনিয়মিতদের বৈধ হওয়ার সুযোগটি কম। যে কারণে আন্দোলনের মাধ্যমে সরকারের এ সিদ্ধান্ত পরিবর্তনের সুযোগ রয়েছে বলে আশা করা হচ্ছে।  

কমিউনিটি নেতারা আশ্বাস দিচ্ছেন, সরকার অনেকটা নমনীয় অবস্থায়। এখন জোরালো আন্দোলন করতে পারলে সরকার আইন পরিবর্তন করতে পারে। সেক্ষত্রে সবাই বৈধতার আবেদন করার সুযোগ পাবেন। 

সরকার ঘোষিত দু'টি খাতের পরিবর্তে সবক্ষেত্রে কর্মরত অভিবাসীদের বৈধতার দাবিতে বেশ কিছুদিন ধরে প্রবাসীরা আন্দোলন করছেন। আগামী শুক্রবার ১৯ জুন তৃতীয় দফায় রোমের মেয়র অফিসের সামনে পিয়াচ্ছা ভেনেচ্ছিয়ার কাম্পোদিওলিও'তে প্রতিবাদ সমাবেশ করবে আন্দোলন বাস্তবায়ন কমিটি। সমাবেশে ইতালির সংসদীয় কর্তৃপক্ষ ও রোম মেয়রের উপস্থিত থাকার কথা বলা রয়েছে।  

এদিকে বৈধতার আবেদন অত্যন্ত ধীরগতিতে এগুচ্ছে। অভিবাসীরা শর্তগুলো পূরণ করে আবেদন করতে পারছে না। ইতালির একটি পত্রিকা 'স্ত্রানিয়েরিইনইতালিয়া' জানায়, আবেদনের প্রথম ১০ দিনে আবেদন জমা পড়েছে ১৮ হাজার। এর মধ্যে ১৩ হাজার আবেদন জমা পড়েছে বৈধতা পাওয়ার জন্য। ৬ হাজার ১৮০টি আবেদন জমা পড়েছে ৬ মাসের বৈধতা প্রাপ্তির জন্য। অথচ সরকার অনুমান করেছিল, এই সময়ে ২ লাখ ২০ হাজার আবেদন জমা পড়বে। এর মধ্যে এক লাখ ৭৬ হাজার অবৈধ অভিবাসীর আবেদন ও ৪৪ হাজার অস্থায়ী বৈধতার আবেদন।