সাহেদ যাতে আর সুযোগ না পায় সেটা আমরা দেখবো: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

প্রকাশ: ১৫ জুলাই ২০২০     আপডেট: ১৫ জুলাই ২০২০   

সমকাল প্রতিবেদক

সাহেদ গ্রেপ্তার হওয়ার পর বুধবার দুপুরে সংবাদ সম্মেলন করেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল। ছবি: সংগৃহীত

সাহেদ গ্রেপ্তার হওয়ার পর বুধবার দুপুরে সংবাদ সম্মেলন করেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল। ছবি: সংগৃহীত

করোনা পরীক্ষায় প্রতারণার ঘটনায় র‌্যাবের হাতে গ্রেপ্তার হওয়া রিজেন্ট হাসপাতাল ও রিজেন্ট গ্রুপের চেয়ারম্যান সাহেদ করিম ওরফে মো. সাহেদ যাতে আর প্রতারণা সুযোগ না পায় সে জন্য যথাযথ পদক্ষেপ নেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল।

সাহেদ র‌্যাবের হাতে গ্রেপ্তার হওয়ার পর বুধবার দুপুরে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি একথা বলেন।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, করোনার চিকিৎসা দেওয়া নিয়ে অনেক হাসপাতালই যখন ভয়ের মধ্যে ছিল তখনই সাহেদ এগিয়ে আসে। এটি যে তার একটি চাল ছিল তখন তো কেউ বুঝতে পারেনি। আমিও তার হাসপাতালে চার-পাঁচজন পাঠিয়েছিলাম।

তিনি বলেন, এভাবেই তিনি (সাহেদ) প্রতারণার ফাঁক-ফোকর তৈরি করে বিভিন্নভাবে বিভিন্ন জায়গায় চলে যান। অনেকের সঙ্গেই তার ফটো রয়েছে। এ ধরনের কাজগুলো তিনি সবসময়ই করে এসেছেন- এ জন্যই তিনি এ পর্যন্ত আসতে পেরেছেন।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, সে সবসময়ই ফাঁক-ফোকর খোঁজে- কীভাবে বেরিয়ে যাবে বা প্রতারণাটা করবে। সে অনেক জায়গাতেই প্রতারণা করেছে, কিন্তু পার পায়নি। আমরা তাকে ধরে ফেলেছি। এবার আমরা সবকিছু উদঘাটন করে  বিচারকের কাছে উত্থাপন করবো। সে যাতে আর সুযোগ না পায় সেটা আমরা দেখবো।

তিনি বলেন, অপরাধী দলের হোক, আর যেই হোক, আমাদের প্রধানমন্ত্রী কাউকে ছাড় দিচ্ছেন না। আমাদের দলের হোক, জনপ্রতিনিধি হোক কিংবা সরকারি কর্মকর্তাই হোক, কেউ কিন্তু বাদ যাচ্ছে না।

আবারও নতুন কোনো সাহেদ তৈরি হবে কিনা- এমন প্রশ্নের জবাবে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, প্রতারকরা কিন্তু সবসময়ই কোনো না কোনো একটা কায়দা বের করে নেয়। সে জন্য আমাদের আইনশৃঙ্খলা বাহিনী সবসময়ই সজাগ থাকে। আমরা কিন্তু কাউকে ছাড় দিচ্ছি না, সেটাই আমরা বলছি। যেদিন প্রতারকদের প্রতারণা প্রকাশ হচ্ছে সেদিনই আমরা তাদের ধরছি। আমার মনে হয় এই বার্তাটি সবার কাছেই যাবে।

সাহেদের প্রতারণার সঙ্গে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের কেউ জড়িত থাকলে তার বিরুদ্ধে কোনো পদক্ষেপ নেওয়া হবে কিনা- এমন প্রশ্নের জবাবে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, এখানে অনুসন্ধানের ব্যাপার রয়েছে, তদন্তের ব্যাপার রয়েছে। তদন্তে যদি কেউ দোষী হয়ে থাকে, তার দোষ যদি সামনে এসে যায় তাহলে অবশ্যই (ব্যবস্থা নেওয়া) হবে। আমি তো প্রথমেই বলেছি- কেউ বাদ যাবে না।