'ইসলামী খেলাফত' প্রতিষ্ঠার লক্ষে জঙ্গিবাদে জড়ায় দুই তরুণ

প্রকাশ: ২৮ আগস্ট ২০২০     আপডেট: ২৮ আগস্ট ২০২০   

সমকাল প্রতিবেদক

গ্রেপ্তার দুই জঙ্গি- ফাইল ছবি

গ্রেপ্তার দুই জঙ্গি- ফাইল ছবি

বাংলাদেশে 'ইসলামী খেলাফত' আইন প্রতিষ্ঠার লক্ষ্য নিয়ে নানা ধরনের কর্মকাণ্ডে অংশ নিতো ঝিনাইদহ থেকে গ্রেপ্তার নিষিদ্ধ ঘোষিত জঙ্গি সংগঠন ‘আনসার আল ইসলাম’-এর দুই সদস্য। তারা চেয়েছিল, দেশে 'ইসলামী খেলাফত' প্রতিষ্ঠিত হোক।

বুধবার এই দুই জঙ্গি একথা স্বীকার করেছে বলে পুলিশ জানিয়েছে। গ্রেপ্তার তরুণরা হলো- মো. ইনামুল হক (২৪) ও মো. সিরাজুল ইসলাম (২৩)।

গত ২৩ আগস্ট তাদের গ্রেপ্তার করে পুলিশের অ্যান্টি টেররিজম ইউনিটের (এটিইউ) একটি দল। ঢাকা থেকে যাওয়া অ্যান্টি টেররিজম ইউনিটের সহকারী পুলিশ সুপার শফিকুল ইসলামের নেতৃত্বে এই বিশেষ অভিযান পরিচালিত হয়।

গ্রেপ্তার দুই জঙ্গির স্বীকারোক্তির বরাত দিয়ে পুলিশ জানিয়েছে, ইনামুল ও সিরাজুল বাংলাদেশে ইসলামী খেলাফত আইন প্রতিষ্ঠার জন্য নানা ধরনের কর্মকাণ্ডে জড়িত ছিল। তারা বর্তমান সরকারের শাসন ব্যবস্থা পছন্দ করে না, এজন্য কটূক্তিমূলক পোস্ট করতো বলে জানিয়েছে।

স্বীকারোক্তিতে জঙ্গিরা জানিয়েছে, তাদের বিশ্বাস- 'জান্নাতে যাওয়ার জন্য শহীদি মৃত্যু হলেও উত্তম।' মানুষকে বিভিন্ন বিষয়ে উদ্ভুদ্ধ করতে তারা পোস্ট করতো। তাদের বক্তব্য - 'রাষ্ট্র যার; তার বিধানেই চলবে।'

এদিকে গ্রেপ্তারের পরদিন পুলিশ তাদের আদালতে নিলে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ইনামুলের তিন দিনের এবং সিরাজুলের দুই দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন বিচারক। ইনামুল হরিণাকুণ্ডু লালন শাহ কলেজের দর্শন বিভাগের স্নাতক চূড়ান্ত বর্ষের ছাত্র। আর সিরাজুল ঝিনাইদহ কেসি কলেজে বিএ তৃতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী। তাদের কাছ থেকে ২টি মোবাইল ফোন, ২৪টি সিমকার্ড, ৫টি মেমোরি কার্ড, বিপুল পরিমাণ বৈদ্যুতিক তার, মোবাইল সার্কিট, মোডিফাইড মোবাইলের চার্জার, বাসায় তৈরি রিচার্জেবল টর্চলাইট, মোবাইলের ব্যাটারি, বৈদ্যুতিক সুইচ উদ্ধার করা হয়।

ইনামুল হক ফেসবুকে ‘আমি যোদ্ধা নবীর উম্মত’ নামক আইডি এবং সিরাজুল ইসলাম ‘সত্যের সন্ধানে সেই যুবক’ নামক আইডি থেকে জিহাদী প্রশিক্ষণ ও শারীরিক কসরতের বিভিন্ন ছবি ও ভিডিও শেয়ার করতো। জিজ্ঞাসাবাদে তারা জানিয়েছে, নিষিদ্ধ ঘোষিত জঙ্গি সংগঠন আনসার উল্লাহ বাংলা টিমের প্রতিষ্ঠাতা মুফতি জসিম উদ্দিন রাহমানির অডিও-ভিডিও লেকচার শুনে সেগুলো সমর্থন করতো।

এটিইউর পুলিশ সুপার (গণমাধ্যম) আসলাম খান বলেন, সরকারবিরোধী নানা ধরনের কর্মকাণ্ডে জড়িত থাকার স্বীকার করেছে গ্রেপ্তার দুই জঙ্গি। তাদের ভাষ্য অনুযায়ী, তারা বাংলাদেশে ইসলামী খেলাফত আইন প্রতিষ্ঠা করতে চেয়েছিল। আদালতের মাধ্যমে এই দুই জঙ্গিকে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।