ঢাকা বুধবার, ২২ মে ২০২৪

মার্কিন দলের সঙ্গে বৈঠক

রাজনৈতিক দলগুলোর মধ্যে সংলাপ চান গণমাধ্যম প্রতিনিধিরা

রাজনৈতিক দলগুলোর মধ্যে সংলাপ চান গণমাধ্যম প্রতিনিধিরা

ফাইল ছবি

সমকাল প্রতিবেদক

প্রকাশ: ১০ অক্টোবর ২০২৩ | ১৬:১৪ | আপডেট: ১০ অক্টোবর ২০২৩ | ১৬:২৯

জাতীয় নির্বাচন প্রশ্নে রাজনৈতিক দলগুলোর মধ্যে আলোচনার তাগিদ দিয়েছেন গণমাধ্যম ব্যক্তিত্বরা। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিনিধি দলের সঙ্গে এক বৈঠকে তারা বলেছেন,  নির্বাচন নিয়ে দু’পক্ষের অবস্থান আলাদা। এ সমস্যার সমাধান করতে হলে দু’পক্ষকেই আলোচনায় বসতে হবে।

রাজধানীর গুলশানের একটি হোটেলে সফররত মার্কিন প্রতিনিধি দলের সঙ্গে বৈঠকে তারা এ মতামত তুলে ধরেন। দেশের গণমাধ্যম প্রতিনিধি দলের পক্ষে ঘণ্টাব্যাপী বৈঠকে অংশ নেন ঢাকা ট্রিবিউনের প্রধান সম্পাদক জাফর সোবহান, বিজনেস স্ট্যান্ডার্ড সম্পাদক ইনাম আহমেদ ও প্রথম আলোর যুগ্ম সম্পাদক সোহরাব হাসান। অন্যদিকে মার্কিন পর্যবেক্ষক দলে ছিলেন রিক ইনডারফার্ত, মারিয়া চিন আবদুল্লা, মারিও মাইত্রি, জেমি ক্যানডেস সাক্স স্পাইকারম্যান, আকাশ কুল্লুরি, বোনি গ্লিক, জামিল জাফের, জো কাও প্রমুখ।

বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের জাফর সোবহান বলেন, মার্কিন প্রতিনিধিরা কিছু জানতে চাননি। তবে তারা বাংলাদেশে একটি ভালো নির্বাচন চান, এটি বলেছেন। সুষ্ঠু নির্বাচন চান– সেটা কীভাবে হতে পারে, সে জন্য রাজনীতিবিদসহ বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষের সঙ্গে তারা বসেছেন বলে জানিয়েছেন।

মিডিয়ার সঙ্গেও কিছু কথা বলতে চেয়েছেন জানিয়ে তিনি বলেন, ‘তারা আমাদের ধারণা জানতে চেয়েছেন। আমরা বলেছি, আমরাও সুষ্ঠু নির্বাচন চাই। আমরা সবাই স্বাধীনতা চাচ্ছি ভালোভাবে রিপোর্ট প্রকাশের।’ গণমাধ্যমে প্রতিবেদন প্রকাশে কোনো বাধার কথা বলেছেন কিনা– এমন প্রশ্নে জাফর সোবহান বলেন, ‘বাধা রয়েছে এমন কিছু আমরা তাদের বলিনি।’ জাতীয় নির্বাচনের পদ্ধতি প্রসঙ্গে আপনারা কোনো প্রস্তাব দিয়েছেন কিনা– এমন প্রশ্নে তিনি বলেন, ‘আমরা বলেছি, দুই দলকে বসতে হবে, অর্থাৎ ক্ষমতাসীন দল ও বিরোধী দল একসঙ্গে বসবে। নির্বাচন প্রক্রিয়া প্রশ্নে ঐকমত্যে পৌঁছাবে। সংলাপের মাধ্যমে ঐকমত্য হলে সবার জন্যই ভালো হবে।’

এ সময় সোহরাব হাসান বলেন, যুক্তরাষ্ট্রের প্রাক-নির্বাচনী পর্যবেক্ষক দল নির্বাচনের পরিবেশ সম্পর্কে জানতে চেয়েছেন। তবে নির্বাচনের কী পরিবেশের কথা জানানো হয়েছে, তা উল্লেখ করেননি তিনি। সোহরাব হাসান বলেন, ‘আমাদের গণমাধ্যমের স্বাধীনতা বিষয়ে কথা হয়েছে। নির্বাচনের কথাও বলা হয়েছে। আমরা মাঠে যা দেখছি, যা শুনছি, তা বলার চেষ্টার করেছি। যে বাধা আছে, তা অতিক্রম করার চেষ্টা আছে আমাদের সাংবাদিক বন্ধুদের।’

মিডিয়ার স্বাধীনতা নিয়ে কোনো পক্ষ উদ্বেগ প্রকাশ করেছে কিনা– এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি আরও বলেন, এখানে মিডিয়া নিয়ে কোনো আলোচনা হয়নি। আলোচনা হয়েছে প্রাক-নির্বাচন পরিস্থিতি নিয়ে।

নির্বাচনে সহিংসতার আশঙ্কা নারী এমপিদের

গণমাধ্যম প্রতিনিধি দলের সঙ্গে বৈঠক শেষে নারী সংসদ সদস্যদের সঙ্গে মার্কিন প্রতিনিধি দলের বৈঠক হয়। এতে অংশ নেন আওয়ামী লীগের সেলিমা আহমাদ, জাতীয় পার্টির শেরীফা কাদের ও নাজমা আক্তার, জাসদের আফরোজা হক রীনা ও বিএনপির সাবেক সংসদ সদস্য নিলুফার চৌধুরী মনি। বৈঠকে আসন্ন জাতীয় নির্বাচনে সহিংসতার শঙ্কা প্রকাশ করেছে নারী প্রতিনিধি দল।

বৈঠক শেষে সেলিমা আহমাদ সাংবাদিকদের বলেন, বৈঠকে নির্বাচন কতটা নারী সহায়ক এবং সংসদে নারীদের অংশগ্রহণ কীভাবে বাড়ানো যায়, সে বিষয়ে আলোচনা হয়েছে। তিনি বলেন, নির্বাচনের পরিবেশ নিজেদেরই করতে হবে। বিদেশিরা করে দেবে না– এটা তিনি বৈঠকে বলেছেন। তিনি আরও বলেন, নির্বাচনে সহিংসতার আশঙ্কা রয়েছে কিনা বৈঠকে এমন প্রশ্ন এসেছে। প্রতিটি নির্বাচনে কমবেশি সহিংসতা হয়– এ কথা তারা উল্লেখ করেছেন। তবে এতে আতঙ্কিত হওয়ার কিছু নেই। নির্বাচন পদ্ধতি প্রসঙ্গে সেলিমা আহমাদ বলেন, সংবিধান অনুযায়ী নির্বাচন হবে।

নির্বাচনে সহিংসতার বিষয়ে বৈঠকে আফরোজা হক রীনা বলেছেন,  রাজনৈতিক দলগুলোকে সিদ্ধান্ত নিতে হবে, তারা সহিংসতা প্রতিরোধ করতে চায় কিনা। নির্বাচন কমিশন ও আইনশৃঙ্খলা বাহিনী ঠিকভাবে কাজ করলে সহিংসতা হবে না; সুষ্ঠু নির্বাচন করা সম্ভব হবে। নির্বাচনকালীন সরকার প্রশ্নে তিনি বলেন, আগামী নির্বাচন সংবিধান অনুযায়ী এবং সংবিধান মেনেই হবে। এর বাইরে যাওয়ার সুযোগ নেই।

নিলুফার চৌধুরী মনি বলেন, নারীর ক্ষমতায়ন, নির্বাচন ঘিরে সহিংসতা হবে কিনা সে ব্যাপারে আলোচনা হয়েছে। পর্যবেক্ষক দল নিজেরাও সহিংসতা নিয়ে শঙ্কা প্রকাশ করেছে। বৈঠকে মতামত দেওয়া প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘আমি বলেছি, এ সরকারের অধীনে কোনো সুষ্ঠু নির্বাচন হবে না। নারীদের ভোটকেন্দ্র যাওয়ার আগেই নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে হবে।’

আরও পড়ুন

×