বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৫তম শাহাদত বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস-২০২০ উপলক্ষে বাংলাদেশ হাউজ বিল্ডিং ফাইনান্স কর্পোরেশনের উদ্যোগে গত ২৭ আগস্ট (বৃহস্পতিবার) এক ভার্চুয়াল আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়। বিএইচবিএফসি'র ইতিহাসে প্রথমবারের মত একসাথে ৪৫০ জনের অধিক কর্মকর্তা-কর্মচারী স্বতন্ত্র ডিভাইস ব্যবহার করে সরাসরি উক্ত ভার্চুয়াল সভায় অংশগ্রহণ করে। 

অনুষ্ঠানে ব্যবস্থাপনা পরিচালক দেবাশীষ চক্রবর্ত্তীর সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে সংযুক্ত ছিলেন পরিচালনা পর্ষদের সম্মানিত চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. মো. সেলিম উদ্দিন, এফসিএ,এফসিএমএ। বিশেষ অতিথি হিসেবে সংযুক্ত থেকে বক্তব্য রাখেন পরিচালনা পর্ষদের সম্মানিত সদস্য নীলুফার আহমেদ, জনাব মো. মনিরুজ্জামান, ড. মো. হুমায়ুন কবীর চোধুরী ও  তপন কুমার ঘোষ। তারা বঙ্গবন্ধুর সংগ্রামী জীবন ও আদর্শের ওপর গুরুত্বপূর্ণ আলোচনা করেন।

প্রধান অতিথি ড. মো সেলিম উদ্দিন বলেন, বঙ্গবন্ধুর জন্ম না হলে বাংলাদেশ স্বাধীন হতো না। ঘাতকরা সপরিবারে বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করে মনে করেছিল ইতিহাস থেকে বঙ্গবন্ধুর নাম মুছে যাবে, কিন্তু তাদের সে আশা পূরণ হয়নি। বঙ্গবন্ধু ছিলেন একটি আদর্শ, একটি প্রতিষ্ঠান, বাঙালি জাতির মুক্তিদাতা। স্বাধীনতার জন্য বঙ্গবন্ধুকে অনেক ত্যাগ স্বীকার করতে হয়েছে। সহ্য করতে হয়েছে জেল, জুলুম ও অত্যাচার। জীবনের শ্রেষ্ঠ সময়গুলো তিনি বাঙালি জাতির মুক্তির জন্য জেলে কাটিয়েছেন। যারা স্বাধীনতা মেনে নিতে পারেনি তারাই পরাজয়ের প্রতিশোধ নিতে ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও তার পরিবারের সকল সদস্যকে হত্যা করে।

তিনি সকলকে বঙ্গবন্ধুর আদর্শে অনুপ্রানিত হয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার গৃহিত অর্থনীতি মুক্তির সংগ্রামে নিজেদের নিয়োজিত রাখার আহ্বান জানান।

বিএইচবিএফসি'র ব্যবস্থাপনা পরিচালক জনাব দেবশীষ চক্রবর্ত্তী বলেন, বঙ্গবন্ধু, বাংলাদেশ ও স্বাধীনতা এ তিনটি শব্দ ওতপ্রোতভাবে জড়িত। মাত্র ৫৫ বছরের জীবনে বঙ্গবন্ধু এদেশের মাটি মানুষকে গভীর ভালবাসার বন্ধনে আবদ্ধ করেছেন। তাই এদেশের প্রতিটি মানুষ সশ্রদ্ধচিত্তে আজও বঙ্গবন্ধুকে স্মরণ করে।

তিনি স্বাধীনতার সূতিকাগার বলে পরিচিত ধানমন্ডির ৩২ নম্বর বঙ্গবন্ধুর বাড়ি এবং বর্তমান প্রধানমন্ত্রীর সুধাসদনের বাড়িটি বিএইচবিএফসি'র ঋণে নির্মিত হওয়ায় বিএইচবিএফসি পরিবার আজও গর্ববোধ করে বলে উল্লেখ করেন।

অনুষ্ঠানের শুরুতে স্বাগত বক্তব্য রাখেন বিএইচবিএফসি'র উপব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. শাহজাহান। এতে  আরো বক্তব্য রাখেন মহাব্যবস্থাপক চানু গোপাল ঘোষ ও আতিকুল ইসলাম। এছাড়া অফিসার কল্যাণ সমিতি, বঙ্গবন্ধু পরিষদ, বঙ্গমাতা পরিষদ ও শ্রমিক লীগের নেতৃবৃন্দ সভায় বক্তব্য রাখেন। সঞ্চালক হিসেবে সভাটি পরিচালনা করেন সহকারী মহাব্যবস্থাপক মো. নজরুল ইসলাম। সভায় বিএইচবিএফসি'র সদর দফতর ও মাঠ পর্যায়ের সকল স্তরের কর্মকর্তা-কর্মচারীবৃন্দ অংশগ্রহণ করেন।