বিরোধীদলীয় উপনেতা ও জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান জিএম কাদের বলেছেন, স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের অনিয়ম, দুর্নীতির কথা প্রতিদিন খবরে আসছে, আলোচিত হচ্ছে। কোনো ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে কিনা, জনগণ জানছে না। দুর্নীতির জন্য সরকারের অর্জন ম্লান হয়ে যাচ্ছে। বৃহস্পতিবার সংসদে সমাপনী ভাষণে তিনি এসব কথা বলেন। প্রধানমন্ত্রী এ বিষয়ে ব্যবস্থা নেবেন বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন বিরোধীদলীয় উপনেতা। 

তিনি বলেন, করোনাভাইরাস চিকিৎসার হাসপাতাল বন্ধ করলে জনগণকে মৃত্যুর মুখে ঠেলে দেওয়া হবে। কারণ করোনার প্রভাব এখনও দেশে বিদ্যমান। কবে পরিত্রাণ পাওয়া যাবে, সেটাও নিশ্চিত নয়। সরকারি সব হাসপাতালে করোনা রোগীর চিকিৎসার ব্যবস্থা নেওয়ার দাবি জানিয়ে তিনি বলেন, যেখানে নেই, সেখানে নতুনভাবে সৃষ্টি করা হোক।

দেশে বিচারবহির্ভূত হত্যার পরিসংখ্যান তুলে ধরে জাপা চেয়ারম্যান বলেন, বিচারবহির্ভূত হত্যা বন্ধ করা যাচ্ছে না। এটা বন্ধ করা সমাজ ও রাষ্ট্রের জন্য চ্যালেঞ্জ হয়ে যাচ্ছে। অবস্থা এমন পর্যায়ে পৌঁছেছে যে, প্রায়ই কোথাও না কোথাও গুলিবিদ্ধ লাশ পড়ে থাকছে। অনেক ক্ষেত্রে বাড়ি থেকে তুলে নেওয়ার পর লাশ পাওয়া যাচ্ছে। ভুক্তভোগী পরিবার ও আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর তথ্যের মধ্যে গরমিল দেখা যাচ্ছে।

সরকারি বিভিন্ন বাহিনীর বিচারবহির্ভূত হত্যার সঙ্গে জড়িত থাকার কথা তুলে ধরে জিএম কাদের বলেন, মাদকবিরোধী অভিযান, চরমপন্থিদের দমন, সন্ত্রাস দমন, ধর্মীয় উগ্রপন্থি দমনের নামে পরিচালিত কথিত বন্দুকযুদ্ধের নামে বিচারবহির্ভূত হত্যা সংঘটিত হয়। এখন রাজনৈতিক কর্মী, বিভিন্ন পেশার কর্মজীবীরা আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর রোষের শিকার হয়ে বন্দুকযুদ্ধ, গুমের ভিকটিম হচ্ছে। তিনি বলেন, বেআইনি কাজ বেআইনিভাবে প্রতিরোধ ন্যায়বিচারের পরিপন্থি। এ ধরনের ব্যবস্থা সভ্য সমাজে আছে কিনা, সেটা বিবেচনা করা দরকার।