বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্র মেহেদী হত্যা

এক টুকরো কাগজ থেকেই উদ্‌ঘাটন হত্যা রহস্য

প্রকাশ: ১৫ অক্টোবর ২০২০       প্রিন্ট সংস্করণ

আতাউর রহমান

রাজধানীর হাতিরঝিলের লেকের পাশে বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্র আজিজুল ইসলাম মেহেদীর লাশের কাছে পড়ে ছিল এক টুকরো কাগজ। তাতে লেখা একটি মোবাইল ফোন নম্বর। সেই নম্বরের সূত্র ধরেই শেষ পর্যন্ত উদ্‌ঘাটন হলো খুনের রহস্য। পাসপোর্টের টাকার লেনদেন নিয়ে দ্বন্দ্বের জেরে খুন করা হয়েছে চট্টগ্রামের তরুণ মেহেদীকে। হত্যাকারী তারই বাল্যবন্ধু আহসান উল্লাহ। তাকে সহায়তা করেছে আলাউদ্দিন, তামিম ও রহিম নামের তিনজন। গতকাল বুধবার এ চারজনকে গ্রেপ্তারের পর পুলিশ সূত্রে মিলেছে এসব তথ্য।
নিহত মেহেদী আন্তর্জাতিক ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়, চট্টগ্রামের ইংরেজি বিভাগের মাস্টার্সের ছাত্র ছিলেন। চাকরির ভাইভা ও পাসপোর্ট-সংক্রান্ত ঝামেলা মেটাতে গত শনিবার তিনি চট্টগ্রাম থেকে ঢাকায় এসে বন্ধু আহসানের বাসায় উঠেছিলেন। মেধাবী ছাত্র মেহেদী গত বছর স্কলারশিপ নিয়ে কানাডায় গিয়েছিলেন। তার বাবা ফখরুল ইসলাম যুক্তরাষ্ট্রপ্রবাসী। গত সোমবার সকালে হাতিরঝিল থেকে পুলিশ তার লাশ উদ্ধার করে।
পুলিশ জানিয়েছে, গ্রেপ্তার আহসান গুলশানের একটি রেস্টুরেন্টে এক্সিকিউটিভ শেফ এবং তামিম একই রেস্টুরেন্টে শেফ হিসেবে কর্মরত। দু'জন খিলক্ষেতে একই বাসায় থাকেন। আহসানের আত্মীয় আলাউদ্দিন পেশায় পুরোনো গাড়ির ব্যবসায়ী হলেও মূলত পাসপোর্ট অফিসের দালাল। রহিম আলাউদ্দিনের মাইক্রোবাসের চালক। গতকাল তাদের আদালতে হাজির করা হলে মূল হোতা আহসান স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দিও দিয়েছেন। অপর তিনজনকে বিভিন্ন মেয়াদে রিমান্ডে পেয়েছে পুলিশ।
পুলিশের তেজগাঁও বিভাগের ডিসি হারুন অর রশীদ জানান, মেহেদী হত্যার ঘটনাটি ক্লু-লেস ছিল। পুলিশ মাত্র দু'দিনের ভেতর চাঞ্চল্যকর এই হত্যাকাণ্ডের রহস্য উদ্‌ঘাটন ও আসামিদের গ্রেপ্তার করতে সক্ষম হয়েছে।
যে কারণে খুন :গ্রেপ্তার আহসানকে উদ্ৃব্দত করে হাতিরঝিল থানা পুলিশ জানায়, মেহেদী তিনটি পাসপোর্টের নাম সংশোধন করতে আলাউদ্দিন ও আহসানকে দুই লাখ ৮০ হাজার টাকা দেন। দুই সপ্তাহের মধ্যে পাসপোর্টগুলো দেওয়ার কথা থাকলেও তারা তা দিতে পারেননি। এ নিয়ে তাদের সঙ্গে মেহেদীর বিরোধ তৈরি হয়।
আহসানকে টাকা ও পাসপোর্ট ফেরত দিতে চাপ দেন মেহেদী। নইলে তার কর্মস্থলে ও পুলিশের কাছে বিষয়টি জানাবেন বলেও হুঁশিয়ার করেন। একপর্যায়ে মেহেদীকে খুনের পরিকল্পনা করেন আহসান ও আলাউদ্দিন।
খুন ও লাশ গুমের চেষ্টা :আহসান পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদ ও আদালতে দেওয়া স্বীকারোক্তিতে বলেছেন, মেহেদী শনিবার রাত ১১টার দিকে ঢাকায় পৌঁছে তার খিলক্ষেতের বাসায় গেলে পরিকল্পনার অংশ হিসেবে তাকে খাবারের সঙ্গে ঘুমের ট্যাবলেট মিশিয়ে দেওয়া হয়। রাত দেড়টার দিকে ঘুমন্ত অবস্থায় তাকে শ্বাসরোধে হত্যা করে হাত-পা রশি দিয়ে বেঁধে বিছানার চাদর, মশারি ও পলিথিনে মোড়ানো হয়। তখন আকস্মিকভাবে পাশের কক্ষ থেকে তামিম তার কক্ষে এসে ঘটনাটি দেখে ফেলেন। দু'জনই ফেঁসে যাবে- এমন ভয়ে তামিমও তাকে সহায়তা করেন।
আহসান আরও জানান, পরিকল্পনা করে আলাউদ্দিন জরুরি কাজের কথা বলে সিলেটে চলে যান। তবে হত্যার পর তাকে ফোনে ঘটনা জানানো হয়। এরপর লাশ গুম করতে রোববার ভোরে আলাউদ্দিন একটি গাড়ি পাঠান। লাশের পুঁটলি গাড়িতে তোলার সময়ে চালক তাতে কী আছে, দেখতে চান। ধরা পড়ার ভয়ে পুঁটলি খুলতে না চাইলে চালক চলে যান। তখন সকাল হয়ে যাওয়ায় মেহেদীর লাশের পুঁটলি আবার বাসায় নিয়ে খাটের নিচে রেখে দেন। এরপর তারা দু'জনেই গুলশানে রেস্টুরেন্টে কাজে চলে যান। ওই দিন গভীর রাতে আলাউদ্দিন আবার মাইক্রোবাস পাঠান। সোমবার ভোর ৪টার দিকে তারা সেই মাইক্রোবাসে তুলে হাতিরঝিলের নির্জন জায়গায় লাশের পুঁটলি ফেলে রেখে যান।
ছেঁড়া কাগজের সূত্রে রহস্য উদ্‌ঘাটন :পুলিশের তেজগাঁও শিল্পাঞ্চল জোনের অতিরিক্ত উপকমিশনার হাফিজ আল ফারুক সমকালকে বলেন, হত্যাকারীরা মেহেদীর লাশটি প্রথমে রাস্তায় ফেলে দিতে চেয়েছিল। যাতে তার স্বজনরা ভাবতে থাকেন ছিনতাইকারীদের হাতে সে খুন হয়েছে। পরে সিদ্ধান্ত বদল হয়। এরপর একটি কাগজে মেহেদীর ফোন নম্বর লিখে তার ফোনসেটের সঙ্গেই রেখে দেয়। আহসান পরিকল্পনা করেছিলেন, কোনো পথচারীর মোবাইল ফোন থেকে ওই নম্বরে ফোন দেবেন, যাতে ঘটনাটি ভিন্ন খাতে চলে যায় এবং তারা আড়ালে থেকে যান। কিন্তু লাশটি হাতিরঝিলে ফেলার সময়ে চালক রহিম তাড়াহুড়া করতে থাকলে আহসান মাইক্রোবাসের জানালা দিয়ে ফোনসেটটি ছুড়ে মারেন। সেটি লেকের পানিতে পড়ে গেলেও কাগজটি উড়ে লেকের পাড়ে গিয়ে পড়ে। শেষ পর্যন্ত ওই কাগজের ফোন নম্বরের সূত্র ধরেই মেহেদীর পরিচয় আর খুনিদের শনাক্ত করা সম্ভব হয়।
মোমের আগুনে বিকৃত করে দেওয়া হয় মুখমণ্ডল :হাফিজ আল ফারুক বলেন, আহসান ও আলাউদ্দিন ধরা পড়া এড়াতে নানা ফন্দি এঁটেছিল। যাতে মেহেদীর লাশ কেউ চিনতে না পারে, তার পরিচয় যাতে শনাক্ত না হয়- সে জন্য সব ব্যবস্থাই করেছিল। খুনের পর মোমের আগুনে মেহেদীর মুখমণ্ডল পুড়িয়ে দেওয়া হয়েছিল। ফিঙ্গারপ্রিন্ট দিয়ে জাতীয় পরিচয়পত্রের মাধ্যমে যাতে পরিচয় শনাক্ত না হয়, সে জন্য মেহেদীর হাতের আঙুলগুলো বিকৃত করে দেওয়া হয়েছিল।
যেভাবে আলাউদ্দিনের সঙ্গে ঘনিষ্ঠতা আহসানের :আহসান জানিয়েছেন, তিনি পাঁচ বছর মালয়েশিয়ায় থেকে গত বছর দেশে ফিরে আসেন। চলতি বছরের মার্চে ৬৫ হাজার টাকা বেতনে গুলশানে একটি রেস্টুরেন্টে প্রধান শেফের চাকরি নেন। করোনার জন্য রেস্টুরেন্ট বন্ধ হয়ে গেলে আর্থিক সংকটে পড়েন। তখন পূর্বপরিচিত আত্মীয় আলাউদ্দিনের কাছে টাকা ধার চান। আলাউদ্দিন ধার না দিয়ে তাকে পাসপোর্টের তথ্য সংশোধন করার জন্য লোক খুঁজে দিতে বলেন। এতে যে টাকা পাওয়া যাবে, তা দু'জনে ভাগ করে নেওয়ার চুক্তি হয়। আগারগাঁও পাসপোর্ট অফিসের একজন উচ্চমান সহকারীর মাধ্যমে তারা টাকার বিনিময়ে পাসপোর্টের তথ্য সংগ্রহ করতেন।