বিশ্বের সবচেয়ে ব্যয়বহুল শহরের তালিকার শীর্ষে যৌথভাবে রয়েছে ফ্রান্সের প্যারিস, হংকং ও সুইজারল্যান্ডের জুরিখ। এরপরেই তালিকায় সিঙ্গাপুরের অবস্থান।

জীবনযাপনে খরচের হিসাবের ভিত্তিতে তৈরি করা লন্ডনভিত্তিক গবেষণা সংস্থা দ্য ইকোনমিস্ট ইন্টেলিজেন্স ইউনিটের বার্ষিক জরিপে এ তথ্য জানানো হয়েছে। সংস্থাটি ১৩৩টি শহরের ওপর জরিপ করেছে। 

তালিকায় পঞ্চম স্থানে রয়েছে যৌথভাবে জাপানের ওসাকা ও ইসরায়েলের তেল আবিব। 

দ্য ইকোনমিস্ট ইন্টেলিজেন্স ইউনিটের করা ওই বার্ষিক জরিপে বলা হয়েছে, সিঙ্গাপুরে জীবনযাপনের ব্যয় কমেছে। করোনার কারণে দেশটিতে বিদেশি কর্মীর সংখ্যা কমেছে। ১৭ বছরের মধ্যে শহরটির জনসংখ্যা এবারে সবচেয়ে কমেছে। 

ব্যয়বহুল শীর্ষ ১০ শহরের তালিকায় জেনেভার অবস্থান ৭ম আর ৯ম অবস্থানে রয়েছে কোপেনহেগেন। নিউইয়র্ক সিটি ও লস অ্যাঞ্জেলেসের অবস্থান যথাক্রমে ৮ম ও ১০ম স্থানে।

সমীক্ষায় দেখা গেছে, করোনার কারণে বিশ্বব্যাপী ইলেকট্রনিক্সের দাম বেড়েছে। তবে কমেছে পোশাকের দাম। প্রধান খাদ্য আইটেমগুলির দাম একই রয়েছে। তবে প্রসাধনী, তামাক এবং অ্যালকোহলের দাম বেড়েছে।  

জীবনযাপনে ব্যয়বহুল শহরের তালিকায় গতবছর থেকেই অবস্থান হারাচ্ছে আমেরিকা, আফ্রিকা, পূর্ব ইউরোপ। তবে, পশ্চিম ইউরোপের শহরগুলো ক্রমেই ব্যয়বহুল হয়ে উঠছে।

এবারের তালিকায় ২০ ধাপ নিচে নেমে গেছে ব্যাংকক। এই শহরের বর্তমান অবস্থান ৪৬তম। তালিকায় সিডনির অবস্থান ১৫ নম্বরে। লন্ডন ২০ তম, মস্কো আছে ১০৬ নম্বরে ও দিল্লির অবস্থান ১২১-এ। 

দ্য ইকোনমিস্ট ইন্টেলিজেন্স ইউনিটের বিশ্বব্যাপী কস্ট অব লিভিং বিভাগের প্রধান উপাসনা দত্ত জানান, কয়েক বছর ধরে এই তালিকায় এশিয়ার দেশগুলো শীর্ষে থাকলেও এবার করোনার ধাক্কায় কিছুটা ওঠানামা হয়েছে দেশগুলোর অবস্থানের। 

তিনি বলেন, করোনা মহামারি ভোক্তাদের আচরণকে বদলে দিয়েছে। কারণ বাড়ি থেকে কাজ করার জন্য ইলেকট্রনিক্স ডিভাইসের দাম বেড়েছে। আবার লকডাউনের কারণে রেস্তোরাঁয় না যাওয়ায় খাবারের দাম একই রয়েছে।