এনডিসি কমান্ড্যান্ট হিসেবে দায়িত্ব পালন শুরু করেছেন লেফটেন্যান্ট জেনারেল আতাউল হাকিম সারওয়ার হাসান (এসবিপি, এসজিপি, এনডিসি, এএফডাব্লিউসি, পিএসসি, পিএইচডি)। চাকরি জীবনে তিনি সেনাবাহিনীর বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ পদে দায়িত্ব পালন করেছেন। তিনি পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের জন্য রিমোট প্রক্টরিং ও প্ল্যাগারিজম চেকারের সুবিধা সংবলিত বিশ্বের সর্বোচ্চ মানের কমপ্রেহেনসিভ লার্নিং ম্যানেজম্যান্ট সিস্টেম ডেভেলপ করেন।

১৯৮৪ সালের ২১ ডিসেম্বর বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর পদাতিক কোরে কমিশন পাওয়া এ সেনা কর্মকর্তা চলতি বছরের মার্চে বাংলাদেশ ইউনিভার্সিটি অব প্রফেশনালসের (বিইউপি) উপাচার্যের দায়িত্ব পালন করেন। এছাড়া তিনি যশোরে সেনাবাহিনীর ৫৫ পদাতিক ডিভিশনের জেনারেল অফিসার কমান্ডিং (জিওসি) এবং ঢাকার এরিয়া কমান্ডার (লজিস্টিকস) হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন। রামু সেনানিবাস ১০ পদাতিক ডিভিশনের প্রতিষ্ঠাকালীন জিওসি হিসেবে দায়িত্ব পালন করা এ সেনা কর্মকর্তা সেনা সদর দপ্তরেও ছিলেন। তিনি যুক্তরাষ্ট্রের সেন্ট্রাল কমান্ড হেডকোয়ার্টারের কম্বাইন্ড প্ল্যানিং গ্রুপের স্ট্র্যাটেজিক প্ল্যানার হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন।

ইরাকে জাতিসংঘ শান্তি মিশনে একজন সিনিয়র অপারেশন্স অফিসার হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন লে. জেনারেল সারওয়ার হাসান। তার জন্ম ও বেড়ে ওঠা ঢাকাতেই। তিনি ডিফেন্স স্টাডিজ (ন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি), ওয়ার স্টাডিজ এবং সিকিউরিটি স্টাডিজ (বাংলাদেশ ইউনিভার্সিটি অব প্রফেশনালস) এ তিনটি বিষয়ে মাস্টার্স ডিগ্রি অর্জন করেছেন। এ সেনা কর্মকর্তা বাংলাদেশের ডিফেন্স সার্ভিসেস কমান্ড অ্যান্ড স্টাফ কলেজ এবং ব্রাজিল স্টাফ কলেজের স্নাতক। 

লে. জেনারেল সারওয়ার হাসান ব্রাজিলের রিও-ডি-জেনেরিওর ভাষা ইনস্টিটিউট থেকে পর্তুগিজ ভাষা শিখেছেন। তিনি ২০০৪ সালে আর্মড ফোর্সেস ওয়্যার কোর্স এবং ২০১৩ সালে ন্যাশনাল ডিফেন্স কোর্স সম্পন্ন করেন। এ সেনা কর্মকর্তা জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় থেকে সিকিউরিটি স্টাডিজে পিএইচডি করেছেন। 

লেফটেন্যান্ট জেনারেল আতাউল হাকিম সারওয়ার হাসানের স্ত্রী ফারজানা হাসান শহীদ আনোয়ার গার্লস স্কুল অ্যান্ড কলেজের শিক্ষক। এ দম্পতির দুই ছেলে রয়েছে।

জেনারেল হাসান ব্রাজিল, আর্জেন্টিনা, উরুগুয়ে, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, কানাডা, যুক্তরাজ্য, ফ্রান্স, ইতালি, স্পেন, কুয়েত, ইরাক, ভারত, মায়ানমার, শ্রীলঙ্কাসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশ ভ্রমণ করেছেন। আইএসপিআর