বাংলাদেশের ইউনাইটেড কমিউনিস্ট লীগের সম্পাদকমণ্ডলীর সদস্য, বাংলাদেশ কৃষক খেতমজুর সমিতির কেন্দ্রীয় নেতা ও দক্ষিণাঞ্চলের বিশিষ্ট কমিউনিস্ট নেতা কমরেড আজিজুর রহমান আর নেই (ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাহি রাজিউন)। তার বয়স হয়েছিল ৭৬ বছর।

বৃহস্পতিবার দুপুর ১টায় রাজধানীর সোহরাওয়ার্দী হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যুবরণ করেন তিনি। কমরেড আজিজুর রহমান কিছুদিন ধরে হৃদরোগে ভুগছিলেন। 

কমরেড আজিজুর রহমান ষাটের দশকে স্কুলে পড়ার সময়ই পূর্ব পাকিস্তান ছাত্র ইউনিয়নের সঙ্গে যুক্ত হন। তিনি ছাত্রাবস্থাতেই পূর্ব পাকিস্তান কমিউনিস্ট পার্টির (অবিভক্ত) রাজনীতির সঙ্গে সম্পৃক্ত হন। তিনি খুলনা পলিকেটনিক ইন্সটিটিউটের সহ-সভাপতি হিসেবে তিনবার নির্বাচিত হয়েছিলেন। এরপর তিনি পূর্ব পাকিস্তান ছাত্র ইউনিয়নের (মেনন গ্রুপ) সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেন। তিনি দীর্ঘদিন খুলনা অঞ্চলে কৃষক শ্রমিক ও কমিউনিস্ট রাজনীতিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছেন। ১৯৬৯ সালে পাকিস্তান সরকার তাকে গ্রেপ্তার করে। ১৯৭১ এর ১৭ ডিসেম্বর তিনি কারামুক্ত হন।

বাংলাদেশের ইউনাইটেড কমিউনিস্ট লীগের সাধারণ সম্পাদক কমরেড মোশাররফ হোসেন নাননু এক বিবৃতিতে আজিজুর রহমানের মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করেছেন। তিনি বলেন, তার মৃত্যু বাংলাদেশের কমিউনিস্ট আন্দোলনের জন্য এক বিশাল ক্ষতি।

এছাড়ও আজিজুর রহমানের মৃত্যুতে জাতীয় মুক্তি কাউন্সিল সভাপতি বদরুদ্দীন উমর ও সম্পাদক ফয়জুল হাকিম গভীর শোক প্রকাশের পাশাপাশি তার পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানিয়েছেন। গণমাধ্যমে পাঠানো এক বিবৃতিতে তারা বলেছেন, আজিজুর রহমানের মৃত্যু এদেশের শ্রমিক-কৃষকের মুক্তি সংগ্রামের এক বড় ক্ষতি। 

শুক্রবার সকাল ১১টায় কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে কমরেড আজিজুর রহমানের প্রতি শ্রদ্ধা জানানো হবে বলেও জানানো হয়েছে বিবৃবিতে।