খুলনা বিশ্ববিদ্যালয় (খুবি) শিক্ষক সমিতির কার্যনির্বাহী পরিষদের নির্বাচনে ১৩টি পদের সবকটিতে স্বাধীনতা শিক্ষক পরিষদের (স্বাশিপ) শিক্ষকরা নির্বাচিত হয়েছেন। সভাপতি হয়েছেন আইন ডিসিপ্লিনের প্রফেসর ওয়ালিউল হাসানাত এবং সাধারণ সম্পাদক নগর ও গ্রামীণ পরিকল্পনা ডিসিপ্লিনের প্রফেসর তানজিল সওগাত।

এতে আওয়ামীপন্থি শিক্ষকদের অন্য প্যানেল বঙ্গবন্ধু পরিষদ ও বিএনপিপন্থি ন্যাশনালিস্ট টিচার্স অ্যাসোসিয়েশন ‘করোনায় স্বাস্থ্যঝুঁকি’র কারণ দেখিয়ে এতে অংশ না নেওয়ায় ছয়টি সদস্য পদ ছাড়া বাকি সাতটি পদের প্রার্থীরা বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়েছেন।

ভোটগণনা শেষে সোমবার বিকেলে ফল ঘোষণা করেন প্রধান নির্বাচন কমিশনার প্রফেসর ফিরোজ আহমেদ। এর আগে বিশ্ববিদ্যালয়ের কবি জীবনানন্দ দাশ একাডেমিক ভবনে সকাল ১১টা থেকে দুপুর ৩টা পর্যন্ত ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়। মোট ৪৭৯ ভোটারের মধ্যে ২৩৯ জন ভোটাধিকার প্রয়োগ করেন।

পরিষদের অন্য পদে নির্বাচিতরা হলেন সহ সভাপতি এনভায়রনমেন্টাল সায়েন্স ডিসিপ্লিনের সহযোগী অধ্যাপক মোল্লা মোহাম্মাদ শফিকুর রহমান, যুগ্ম সম্পাদক ফার্মেসি ডিসিপ্লিনের প্রফেসর উৎপল কুমার কর্মকার, কোষাধ্যক্ষ প্রিন্ট মেকিং ডিসিপ্লিনের সহকারী অধ্যাপক মো. নাদিমুদ্দৌলা, সমাজকল্যাণ ও সাংস্কৃতিক সম্পাদক অ্যাগ্রোটেকনোলজি ডিসিপ্লিনের সহকারী অধ্যাপক জয়ন্তী রায় এবং প্রকাশনা সম্পাদক অ্যাগ্রোটেকনোলজি ডিসিপ্লিনের সহযোগী অধ্যাপক প্রশান্ত কুমার দাস।

সদস্য হয়েছেন রসায়নের সহকারী অধ্যাপক জান্নাতুল নাইম, গণিতের প্রফেসর নাজমুল ইসলাম, গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা ডিসিপ্লিনের সহকারী অধ্যাপক শরিফুল ইসলাম, ইংরেজির সহযোগী অধ্যাপক ইউ এইচ রুহিনা জেসমিন, সমাজবিজ্ঞানের সহযোগী অধ্যাপক তুহিন রায় এবং হিউম্যান রিসোর্স ম্যানেজমেন্টের সহকারী অধ্যাপক কাজল কর্মকার।

নবনির্বাচিত সভাপতি প্রফেসর ওয়ালিউল হাসানাত বলেন, খুবির শিক্ষকদের উন্নয়নে দলমত নির্বিশেষে কাজ করব। একইসঙ্গে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষা-গবেষণা তথা সার্বিক মান উন্নয়নে এই কমিটি ভূমিকা রাখবে বলে আশা প্রকাশ করেন তিনি।