ঢাকা সোমবার, ০৪ মার্চ ২০২৪

টেকসই যোগাযোগের জন্য নদী রক্ষার বিকল্প নেই: নসরুল হামিদ

টেকসই যোগাযোগের জন্য নদী রক্ষার বিকল্প নেই: নসরুল হামিদ

বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ। ফাইল ছবি

সমকাল প্রতিবেদক

প্রকাশ: ২৮ নভেম্বর ২০২৩ | ২০:৪৭

বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বলেছেন, ভবিষ্যৎ প্রজন্মের টেকসই যোগাযোগের জন্য আমাদের নদী রক্ষার কোনো বিকল্প নেই। ইতিহাস, ঐতিহ্যকে ধারণ করে পুরনোকে নিয়েই আমাদেরকে নতুনের কথা বলতে হবে। মানবসভ্যতার ক্রমবিকাশে নদীর ভূমিকা সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ।

মঙ্গলবার কেরানীগঞ্জের জিনজিরায় হামিদুর রহমান সাংস্কৃতিক কেন্দ্রে আলিয়স ফ্রঁসেজ ঢাকার সহযোগিতায় ‘নদীর ঐতিহ্য: পুরান ঢাকা থেকে শেখা’ প্রদর্শনীর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন।

নসরুল হামিদ বলেন, ঢাকা গড়ে উঠেছে বুড়িগঙ্গা নদীকে কেন্দ্র করে। তাই ঢাকার ইতিহাস, ঐহিত্য, অর্থনীতি, সংস্কৃতি ও রাজনীতিতে বুড়িগঙ্গা নদীর বিশাল ভূমিকা রয়েছে। এই প্রদর্শনীটি পুরান ঢাকার সমৃদ্ধ সাংস্কৃতিক ও স্থাপত্য উত্তরাধিকারকে কেন্দ্র করে ইউনিক হেরিটেজ উদ্যোগের ‘রিভার হেরিটেজ’-এর তৃতীয় অধ্যায়ের প্রকল্প।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, এই প্রদর্শনীতে মুম্বাই, ত্রিবান্দ্রম, প্যারিস ও ঢাকার স্থাপত্যবিদ্যার শিক্ষার্থীদের গবেষণামূলক কাজ প্রদর্শিত হবে। ফ্রান্সের বিশিষ্ট স্থপতি ক্লাউদিও সেকি ও ভারতের বিখ্যাত স্থাপত্য পরামর্শক কমলিকা বোসের নেতৃত্বে একটি কর্মশালার আয়োজন করা হয়। যেখানে ৪৯ জন স্থাপত্যবিদ্যার শিক্ষার্থীরা গত ৪ থেকে ১৮ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, পুরান ঢাকার ইতিহাস ও সংস্কৃতি নিয়ে একটি গবেষণামূলক কাজে যুক্ত ছিলেন।

তিনি বলেন, প্রদর্শনীটি সৃজনশীল কাজের প্রদর্শনের চেয়ে বাস্তব জ্ঞান ও অভিজ্ঞতার মাধ্যমে পুরান ঢাকার ইতিহাস ও সংস্কৃতির একটি আখ্যান, যা তরুণ স্থপতিদের অভিজ্ঞতার মাধ্যমে তুলে ধরা হয়েছে। এটি বুড়িগঙ্গা নদীর তীরবর্তী মানুষ ও তাদের ঐতিহ্য তুলে ধরেছে।

অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন আলিয়স ফ্রঁসেজ দো ঢাকার ডিরেক্টর ফ্রাঙ্কইস গ্রসিয়েন, ফ্রান্সের ভিজ্যুয়াল আর্টিস্ট গিইল, রোমানিয়ার পার্ফমিস্ট আর্স্টিস্ট রোমানা, এজেন্সি ফ্রান্স ডেভেলপমেন্টের সেসিলিয়া, কেরানীগঞ্জ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান শাহীন আহমেদ, দক্ষিণ কেরানীগঞ্জ থানা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ম ই মামুন, জিনজিরা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান সাকুর হোসেন সাকু।

ইতিহাস, সংস্কৃতি এবং স্থাপত্য অন্বেষণের এই মিশ্রণে আয়োজিত এই প্রদর্শনীটি চলবে আগামী ৫ ডিসেম্বর পর্যন্ত। প্রতিদিন সকাল ১০টা থেকে বিকাল ৫টা পর্যন্ত সাধারণের জন্য উন্মুক্ত থাকবে প্রদর্শনীটি।

আরও পড়ুন

×