নোয়াখালীর বেগমগঞ্জের একলাসপুরে এক গৃহবধূকে বিবস্ত্র করে নির্যাতনের ঘটনায় করা মামলার অন্যতম আসামি ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) সদস্য মোজাম্মেল হোসেন সোহাগকে জামিন দিয়েছেন হাইকোর্ট।

বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিম ও বিচারপতি মো. মোস্তাফিজুর রহমান সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট (ভার্চুয়াল) বেঞ্চ রোববার তার জামিন মঞ্জুর করেন।

জয়কৃষ্ণপুর গ্রামের বাসিন্দা সোহাগ একলাশপুর ইউনিয়ন পরিষদের ৯ নম্বর ওয়ার্ডের সদস্য। আদালতে আসামিপক্ষে ছিলেন আইনজীবী অজি উল্লাহ। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল সারওয়ার হোসেন বাপ্পি।

পরে আসামির আইনজীবী সাংবাদিকদের বলেন, মোজাম্মেল এজাহারভুক্ত নন, তাকে অভিযোগপত্রে আসামি করা হয়েছে। মামলায় বলা হয়েছে, একজন জনপ্রতিনিধি হিসেবে তিনি তার অর্পিত দায়িত্ব পালন করেননি। অর্থাৎ থানায় গিয়ে এজাহার দায়ের করে নাই। ফলে তার বিরুদ্ধে দণ্ডবিধির ২০২ ধারায় অভিযোগ আনা হয়েছে। এ ধারায় সর্বোচ্চ শাস্তি হচ্ছে ছয় মাসের কারাদণ্ড। গত বছর ৬ অক্টোবর গ্রেপ্তার হওয়ার পর থেকে অর্থাৎ তিন মাস ধরে তিনি কারাগারে আছেন। আদালত এ বিষয়টি বিবেচনায় নিয়ে তাকে জামিন দিয়েছেন।

ভুক্তভোগী নারী তার স্বামীর সঙ্গে না থেকে তার ভাইয়ের পরিবারের সঙ্গে বসবাস করতেন। বিবাহ বিচ্ছেদ না হওয়ায় স্বামীর সঙ্গে নিয়মিত যোগাযোগ ছিল তার। গত ২ সেপ্টেম্বর রাতে ওই নারীর স্বামী তার সঙ্গে দেখা করতে বাবার বাড়ি একলাশপুর ইউনিয়নের জয়কৃষ্ণপুর গ্রামে এসে তাদের ঘরে প্রবেশ করেন। বিষয়টি দেখে ফেলেন স্থানীয় মাদক ব্যবসায়ী ও দেলোয়ার।

এরপর ওই দিন রাতে দেলোয়ার তার লোকজন নিয়ে ওই নারীর ঘরে প্রবেশ করে পরপুরুষের সঙ্গে অনৈতিক কাজ করার অভিযোগ এনে তাকে মারধর শুরু করে। একপর্যায়ে পিটিয়ে ওই নারীকে বিবস্ত্র করে ভিডিও ধারণ করেন তারা। পরে ৪ অক্টোবর ওই ভিডিওটি ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়লে দেশব্যাপী তোলপাড় সৃষ্টি হয়।


বিষয় : হাইকোর্ট বেগমগঞ্জ আসামি মোজাম্মেল

মন্তব্য করুন