রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) উপাচার্য অধ্যাপক এম আবদুস সোবহান, উপ-উপাচার্য অধ্যাপক চৌধুরী জাকারিয়াসহ 'দুর্নীতির' সঙ্গে জড়িত প্রশাসনের ব্যক্তিদের অপসারণ দাবি করা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগারের পেছনে আমতলায় কয়েকটি বাম ছাত্র সংগঠন মিলে গড়া সন্ত্রাস ও দুর্নীতিবিরোধী ঐক্যের ব্যানারে সংবাদ সম্মেলন করে এ দাবি জানানো হয়। সাত দিনের মধ্যে দাবি না মানা হলে 'রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় বাঁচাও' ব্যানারে লাগাতার কর্মসূচির হুঁশিয়ারি দেওয়া হয়।

সংবাদ সম্মেলনে রাবি শাখা ছাত্র ফেডারেশনের সভাপতি মহাব্বত হোসেন মিলন লিখিত বক্তব্যে বলেন, 'দুর্নীতিবাজ ব্যক্তিদের প্রশাসনের দায়িত্বে রেখে বিশ্ববিদ্যালয় আর এক দিনও চলতে পারে না। এত বড় অপরাধ করার পরও তাদের শিক্ষকতা করার নৈতিক অধিকার নেই। তাই দ্রুত উপাচার্য, উপ-উপাচার্যসহ দুর্নীতিবাজ ব্যক্তিদের প্রশাসনিক দায়িত্ব থেকে অপসারণ ও বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বহিস্কার করতে হবে।'

সম্মেলনে আরও বলা হয়, উপাচার্য ও উপ-উপাচার্যের দুর্নীতি প্রমাণিত। কিন্তু তারা কোন অদৃশ্য শক্তির কারণে এখনও স্বপদে বহাল আছেন- বুঝে উঠতে পারছি না। দুর্নীতিবাজ ব্যক্তিদের মাধ্যমে বিশ্ববিদ্যালয় চলতে পারে না।

সংবাদ সম্মেলনে দুর্নীতিবাজদের অপসারণ না করা পর্যন্ত সব নিয়োগ স্থগিত রাখা, গণতান্ত্রিক উপায়ে উপাচার্য ও উপ-উপাচার্য নির্বাচন করা, বিশ্ববিদ্যালয়কে স্থানীয় রাজনৈতিক হস্তক্ষেপ থেকে মুক্ত রাখাসহ বেশ কয়েকটি দাবি জানানো হয়। এ সময় উপস্থিত ছিলেন ছাত্র অধিকার পরিষদ রাবি শাখার আহ্বায়ক মুর্শেদুল আলম, সাংগঠনিক সম্পাদক আমান উল্লাহ, দপ্তর সম্পাদক রাকিব হাসান, বাংলাদেশ ছাত্র ফেডারেশনের সদস্য আজিজুল মানিক প্রমুখ।