বন্দর নগরী চট্টগ্রামে শিক্ষা উপমন্ত্রী ব্যারিস্টার মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল করোনাভাইরাসের টিকা নেওয়ার মাধ্যমে আনুষ্ঠানিকভাবে শুরু করা হয়েছে টিকা প্রদান কার্যক্রম। 

রোববার সকাল পৌনে ১১টায় চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ (চমেক) হাসপাতালে তিনি টিকা নেন। এরপর একে একে টিকা নেন স্বাস্থ্য প্রশাসনের কর্মকর্তাসহ আরও অনেকে। টিকা নেওয়া সবাই সুস্থ আছেন। 

চট্টগ্রাম মহানগরের পাশাপাশি রোববার সকাল থেকে জেলার ১৪টি উপজেলায় টিকাদান কর্মসূচি শুরু হয়েছে।

আনুষ্ঠানিকভাবে টিকাদান কর্মসূচি উদ্বোধনের পর সাবেক মন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন এমপি, চমেক হাসপাতালের পরিচালক বিগ্রেডিয়ার জেনারেল এসএম হুমায়ুন কবির, চট্টগ্রাম বিভাগীয় স্বাস্থ্য পরিচালক ডা. হাসান শাহরিয়ার কবির, সিভিল সার্জন ডা. শেখ ফজলে রাব্বি, চসিকের প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. সেলিম আকতার চৌধুরী, ডা. বিদ্যুৎ বড়ুয়া, চট্টগ্রাম রেঞ্জের ডিআইজি আনোয়ার হোসেনসহ আরও অনেকে টিকা নেন।এরপর তাদের সবাইকে পর্যবেক্ষণ ইউনিটে রাখা হয়। 

টিকা নেওয়ার পর শিক্ষা উপমন্ত্রী সাংবাদিকদের বলেন, টিকা নেওয়ার পর নিয়ম অনুযায়ী আধাঘণ্টা অপেক্ষা করেছি। তবে কোনো রকম সমস্যা অনুভব করিনি। আমি ছাড়াও প্রথমদিনে আরও অনেকে টিকা নিয়েছেন। 

তিনি বলেন, টিকা কর্মসূচিকে পুঁজি করে একটি মহল অপপ্রচার চালাচ্ছে। তারা দেশের রাজনৈতিক পরিস্থিতিকে উত্তপ্ত করার অপচেষ্টা করছে। তবে যতই অপপ্রচার করা হোক না কেন উন্নয়নের রাজনীতি ও প্রগতির রাজনীতিকে তারা কখনও বাধাগ্রস্ত করতে পারবে না। প্রধানমন্ত্রীর হাত ধরে আমরা এগিয়ে যাবই। 

চট্টগ্রামের সিভিল সার্জন ডা. শেখ ফজলে রাব্বি বলেন, আমিসহ টিকা গ্রহণ করা সবাই ভালো আছেন। মহানগরের পাশাপাশি ১৪টি উপজেলায় টিকাদান কর্মসূচি শুরু হয়েছে। কর্মসূচিকে সফল করতে সব ধরনের প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছে স্বাস্থ্য প্রশাসন।