অনেক শিক্ষার্থীই দেশের বাইরে পড়াশোনার সুযোগ খোঁজেন। শুধু বাংলাদেশে নয়, উচ্চশিক্ষা গ্রহণের দিক থেকে অস্ট্রেলিয়া বর্তমানে বিশ্বের তৃতীয় জনপ্রিয়তম দেশ। বিশ্বের শীর্ষ কয়েকটি বিশ্ববিদ্যালয় রয়েছে অস্ট্রেলিয়ায়। তুলনামূলক অন্যান্য সমমানের দেশের তুলনায় কম খরচে এমন শান্তিপূর্ণ একটি দেশে মানসম্মত শিক্ষার কারণে উচ্চশিক্ষার গন্তব্য হিসেবে দেশটি প্রতিবছর হাতছানি দেয় হাজারো আন্তর্জাতিক শিক্ষার্থীকে। তবে অস্ট্রেলিয়ায় পড়তে আসার আগে কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ দিক খেয়ালে রাখতে উচ্চশিক্ষার ক্ষেত্রে। আমাদের দেশের অনেক শিক্ষার্থীরই পছন্দের দেশ অস্ট্রেলিয়া। উচ্চশিক্ষার জন্য অস্ট্রেলিয়ায় ব্যয়সাপেক্ষ।

তাই মেধাবী শিক্ষার্থীদের জন্য দেশটিতে বৃত্তির এমন সুযোগও রয়েছে, যাতে পড়াশোনা বিনামূল্যে করা তো যায়ই, সঙ্গে সরকার মাসে মাসে নির্দিষ্ট অঙ্কের টাকাও দেয়। তেমনই একটি বৃত্তি 'অস্ট্রেলিয়া অ্যাওয়ার্ডস'। ২০২১-২২ শিক্ষাবর্ষের জন্য এরই মধ্যে আবেদন গ্রহণ শুরু হয়ে গেছে। সরকারি এই বৃত্তির জন্য স্নাতক পাস করা বাংলাদেশি শিক্ষার্থীরা আবেদন করতে পারবেন।

অস্ট্রেলিয়া অ্যাওয়ার্ডস স্কলারশিপ কী

অস্ট্রেলিয়ার ফেডারেল সরকারে পররাষ্ট্র ও বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমে পরিচালিত সরকারি বৃত্তি এই অস্ট্রেলিয়া অ্যাওয়ার্ডস। দেশটির সরকারি বৃত্তিগুলোর মধ্যে সবচেয়ে সম্মানজনক বৃত্তি ধরা হয় এটিকে। আন্তর্জাতিক শিক্ষার্থীদের নিজ দেশের অর্থনৈতিক ও সামাজিক উন্নয়নে পরিবর্তন আনতে দক্ষতা ও জ্ঞান অর্জনের সুবিধার জন্য অস্ট্রেলিয়ার সরকার এই বৃত্তি দেয়। তবে অস্ট্রেলিয়া অ্যাওয়ার্ডস কেবল মাস্টার্স ও পিএইচডি পর্যায়ের জন্য। ২০২১-২২ শিক্ষাবর্ষের জন্য বাংলাদেশি শিক্ষার্থীদেরও আবেদনের আমন্ত্রণ জানিয়েছে অস্ট্রেলিয়া অ্যাওয়ার্ডস কর্তৃপক্ষ।

এবারের বাংলাদেশি আবেদনকারীদের মধ্যে তাদের প্রাধান্য দেওয়া হবে, যারা স্নাতকোত্তর পর্যায়ে একটি দেশের উন্নয়নমূলক বিষয়ে পড়াশোনা করতে ইচ্ছুক। এর মধ্যে স্বাস্থ্য সুরক্ষা, অর্থনীতি, রাষ্ট্রবিজ্ঞান ও প্রশাসনিক বিষয় অন্যতম।

অস্ট্রেলিয়া অ্যাওয়ার্ডসের সুবিধা

যোগ্যতা ও শর্ত সাপেক্ষে অস্ট্রেলিয়া অ্যাওয়ার্ডসে বিভিন্ন সুবিধা দেওয়া হয়। এর মধ্যে সম্পূর্ণ বা আংশিক টিউশন ফি মওকুফ, থাকা-খাওয়া ও চলাচলের খরচ, ফিরতি বিমান ভাড়া, এমনকি পড়াশোনা চলার সময়ের জন্য নির্দিষ্ট পরিমাণ অর্থও অন্তর্ভুক্ত। এ ছাড়া নারী ও বিশেষ চাহিদাসম্পন্ন লোকজনের জন্য রয়েছে অগ্রাধিকার ও বিশেষ সুবিধা।

আবেদনের যোগ্যতা ও সময়সীমা

২০২১-২২ শিক্ষাবর্ষের জন্য অস্ট্রেলিয়া অ্যাওয়ার্ডস বৃত্তিতে শুধু স্নাতকোত্তর পর্যায়ের জন্য আবেদন করা যাবে। এর আওতায় ২০২২ সালের স্নাতকোত্তর ডিগ্রিতে তালিকাভুক্ত হতে আগ্রহী শিক্ষার্থীরা চলতি বছরের ১ ফেব্রুয়ারি থেকে ৩০ এপ্রিল পর্যন্ত আবেদন করতে পারবেন। ইংরেজি ভাষা দক্ষতার প্রমাণস্বরূপ থাকতে হবে আইইএলটিএসে ন্যূনতম ৬.৫ বা পিটিই ন্যূনতম ৫৮।

আবেদনের প্রক্রিয়া

অস্ট্রেলিয়া অ্যাওয়ার্ডস স্কলারশিপ প্রদানকারী সংস্থার ওয়েবসাইটে স্কলারশিপের বিস্তারিত তথ্য ও শর্তাবলি উল্লেখ করা আছে। বাংলাদেশি শিক্ষার্থীদের জন্য আলাদা ওয়েবসাইটও আছে।

ওয়েবসাইটগুলোতে আবেদনপত্র সংগ্রহ করার আগেই স্বয়ংক্রিয়ভাবে তৈরি কিছু প্রশ্নের উত্তর দিয়ে আবেদনকারীর প্রাথমিক যোগ্যতা যাচাই করে নেওয়া হবে। আবেদনকারী প্রাথমিকভাবে যোগ্য হলে তবেই বৃত্তির আবেদনপত্র ও আনুষঙ্গিক কাগজপত্রের নমুনা সংগ্রহ করা যাবে। বিস্তারিত পাওয়া যাবে এই ওয়েব ঠিকানায়।

স্টুডেন্ট ভিসায় আবেদন ও মনোনয়ন

লক্ষ রাখতে হবে, বৃত্তির জন্য আবেদন ও প্রাপ্তি এবং স্টুডেন্ট ভিসা- দুটোর আলাদা সম্পর্ক রয়েছে। বৃত্তি পেলেই স্টুডেন্ট ভিসা নিশ্চিত হয়ে যায় না। এ জন্য সব নথিসহ আলাদা স্টুডেন্ট ভিসার জন্য আবেদন করতে হবে। অভিবাসন বিভাগ আবেদনকারীকে অস্ট্রেলিয়ায় অবস্থানের যোগ্য মনে করলে তবেই স্টুডেন্ট ভিসা পাওয়া যাবে।

https://oasis.dfat.gov.au/