করোনাভাইরাস মহামারি পরিস্থিতিতে আদেশ অমান্য করে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের (জাবি) আবাসিক হলে অবস্থান নেওয়া শিক্ষার্থীদের সোমবার সকাল ১০টার মধ্যে হল ছাড়ার নির্দেশ দিয়েছিল বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। কিন্তু হল ছাড়ছেন না শিক্ষার্থীরা।

সোমবার দুপুর ১২টা পর্যন্ত এ ধরনের কোনো সিদ্ধান্ত নেননি শিক্ষার্থীরা। এ কারণে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টরিয়াল টিম ও হল প্রশাসন হল ছাড়ার নির্দেশনাটি শিক্ষার্থীদের আবার মনে করিয়ে দিতে হলে এসেছেন। এছাড়াও প্রভোস্টসহ হল প্রশাসন রুমে গিয়ে গিয়ে হল ছেড়ে যাওয়ার অনুরোধ করছেন।

এদিকে হল ছাড়বেন না বলে জানিয়েছেন অবস্থানরত শিক্ষার্থীরা। তারা বলছেন, এ মুহূর্তে আমাদের আর কোথাও যাওয়ার জায়গা নেই। আমরা বাসা ছেড়ে দিয়েছি। গেরুয়া এলাকায় আমরা এখন অনিরাপদ। তারা আমাদের কোথাও থাকার জায়গাও দিতে পারছেন না।

এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রক্টর আ স ম ফিরোজ উল হাসান বলেন, হল প্রশাসন শিক্ষার্থীদের হল ছাড়ার অনুরোধ করছে। তারা হল ছাড়তে রাজি হয়নি। এখন বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন সিদ্ধান্ত নেবে।

প্রভোস্ট কমিটির সভাপতি অধ্যাপক মোতাহার হোসেন বলেন, আমরা হল প্রশাসনের পক্ষ থেকে শিক্ষার্থীদের হল ছাড়ার অনুরোধ করেছি। আমরা মনে করি আমাদের শিক্ষার্থীরা যথেষ্ট পরিণত। তারা আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল হবে।

এর আগে রোববার বিশ্ববিদ্যালয়ে ভারপ্রাপ্ত রেজিস্ট্রার স্বাক্ষরিত এক জরুরি নির্দেশনায় শিক্ষার্থীদের সোমবার সকাল ১০টার মধ্যে হল ছাড়তে বলা হয়। এতে বলা হয়, বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন শিক্ষার্থীদের সোমবার সকাল ১০টার মধ্যে নিজ উদ্যোগে হল ছাড়ার নির্দেশ দিচ্ছে। অন্যথায় বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন তাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করতে বাধ্য হবে।

শুক্রবার সন্ধ্যায় বিশ্ববিদ্যালয় সংলগ্ন গেরুয়া বাজারে ক্রিকেট খেলা কেন্দ্র করে বাকবিতণ্ডার একপর্যায়ে জাবি শিক্ষার্থীদের সঙ্গে স্থানীয় বাসিন্দারের সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এরপর শনিবার হল খুলে দেওয়াসহ তিন দফা দাবিতে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যের (ভিসি) বাসভবনের সামনে অবস্থান নিয়ে বিক্ষোভ করেন শিক্ষার্থীরা। পরে একপর্যায়ে বিভিন্ন হলের তালা ভেঙে ভেতরে ঢুকে পড়েন শিক্ষার্থীরা।