এবার জোর করে হলে ঢুকে পড়েছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) শিক্ষার্থীরা। ঢাবির শহীদুল্লাহ হলে ঘটেছে এ ঘটনা। সোমবার বেলা সোয়া ১২টার দিকে শিক্ষার্থীরা বিক্ষোভ প্রদর্শনের এক পর্যায়ে জোর করে হলে ঢুকে পড়েন। হলে অবস্থান নেওয়ার পর সব হল খুলে দেওয়ার দাবিতে স্লোগান দেন শিক্ষার্থীরা।এ সময় অর্ধশতাধিক শিক্ষার্থী উপস্থিত ছিলেন।

বিষয়টি জানার পর বিশ্ববিদ্যালয়ের পক্ষ থেকে কয়েকজন সহকারী প্রক্টর, হল প্রশাসন এবং হল সংসদের নেতৃবৃন্দ শহীদুল্লাহ হলে গেছেন। তাদের সঙ্গে এখন শিক্ষার্থীদের আলোচনা চলছে।

এ বিষয়ে জানার জন্য হলের সদ্য সাবেক জিএস আব্দুল হাই মো. সৌরভের সঙ্গে মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, আনুষ্ঠানিকভাবে এরকম কোনো বিষয় সম্পর্কে আমি জানি না। তবে বেশ কিছু শিক্ষার্থী জড়ো হয়ে হল প্রাঙ্গণে আছেন বলে আমি জানতে পেরেছি।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক হলের একাধিক শিক্ষার্থী জানান, দীর্ঘ এক বছর ধরে তাদের হল বন্ধ। তারা আর বাড়িতে থাকতে পারছেন না। তাই তারা জোর করে হলে উঠে গেছেন।

হলে ঢোকার সময় কর্মকর্তা-কর্মচারীরা বাধা দিয়েছে কি-না জানতে চাইলে তারা বলেন, 'হল গেটে যারা ছিল, তারা আমাদেরকে দেখার সঙ্গে সঙ্গে নিজেরাই তালা খুলে দিয়েছে।'

শহীদুল্লাহ হলের একজন নিরাপত্তা কর্মী বলেন, 'প্রথমে একজন শিক্ষার্থী হলের ভেতর থেকে মালামাল নেবে বলে প্রবেশ করে। পরে ৩০-৪০ জন জড়ো হয়ে হলে ঢোকার জন্য জোর করলে আমি তালা খুলে দেই। '

এ বিষয়ে প্রক্টর অধ্যাপক ড. এ কে এম গোলাম রাব্বানী বলেন, 'আমরা ইতোমধ্যে হল কর্তৃপক্ষের সঙ্গে কথা বলেছি। সেখানে তিনজন সহকারী প্রক্টর, হল কর্তৃপক্ষ ও ছাত্র প্রতিনিধিদের সাথে আলাপ করে কোনো ধরনের বিশৃঙ্খলা ছাড়া শান্তিপূর্ণভাবে বিষয়টি সমাধান করার চেষ্টা করবো।'

বিষয় : ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়

মন্তব্য করুন