দেশে নতুন টিকা উৎপাদন আরও সহজ হচ্ছে। এজন্য আন্তর্জাতিক ভ্যাকসিন ইনস্টিটিউট (আইভিআই) প্রতিষ্ঠার চুক্তি অনুসমর্থনের প্রস্তাব অনুমোদন করেছে সরকার। এর ফলে এখন দেশে টিকা উৎপাদন এবং এ সম্পর্কিত গবেষণায় প্রশিক্ষণ ও কারিগরি সহায়তা পাওয়া যাবে। দেশের প্রতিষ্ঠানগুলোর সক্ষমতা বাড়বে। টিকা উৎপাদন, প্রয়োগ ও মান নিয়ন্ত্রণ ব্যবস্থা আরও যুগোপযোগী হবে। পাশাপাশি কম দামে টিকা পাওয়া যাবে।

সোমবার গণভবনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে মন্ত্রিসভার ভার্চুয়াল বৈঠকে চুক্তিটি অনুসমর্থনের প্রস্তাবে সম্মতি দেওয়া হয়। বৈঠক শেষে সচিবালয়ে মন্ত্রিপরিষদ সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম সাংবাদিকদের এ তথ্য জানান।

মন্ত্রিপরিষদ সচিব জানান, ১৯৯৬ সালের ২৮ অক্টোবর ইউনাইটেড ন্যাশনস ডেভেলপমেন্ট প্রোগ্রামের উদ্যোগে দক্ষিণ কোরিয়ার সিউলে আন্তর্জাতিক ভ্যাকসিন ইনস্টিটিউটের চুক্তি হয়েছিল। সেই চুক্তিতে বাংলাদেশ স্বাক্ষরকারী দেশ। তবে পূর্ণ সদস্যের জন্য বাংলাদেশের মন্ত্রিসভার অনুমোদনের দরকার ছিল, সেটিই হয়েছে।

বাংলাদেশি প্রতিষ্ঠান গ্লোব বায়োটেকের টিকা তৈরির বিষয়ে মন্ত্রিপরিষদ সচিব সচিব বলেন, তারা এখনও ট্রায়াল শেষ করেনি। এ বিষয়েও আলোচনা হয়েছে মন্ত্রিপরিষদে। তারা যদি বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার প্রটোকল মেনে করতে পারে তাহলে সমস্যা নেই।




বিষয় : টিকা উৎপাদন গবেষণা করোনার টিকা

মন্তব্য করুন