দুর্নীতির মামলায় বিচারিক আদালতে ১৩ বছরের কারাদণ্ডাদেশের বিরুদ্ধে ঢাকা-৮ আসনের সরকারদলীয় সংসদ সদস্য হাজী মোহাম্মদ সেলিমের করা আপিলের ওপর শুনানি শেষ হয়েছে। আগামী ৯ মার্চ এ বিষয়ে রায় ঘোষণা করা হবে। বিচারপতি মো. মঈনুল ইসলাম চৌধুরী ও বিচারপতি একেএম জহিরুল হক সমন্বয়ে গঠিত ভার্চুয়াল হাইকোর্ট বেঞ্চ বুধবার রায়ের দিন ধার্য করে এই আদেশ দেন।

আদালতে দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) পক্ষে শুনানি করেন আইনজীবী মোহাম্মদ খুরশীদ আলম খান এবং রাষ্ট্রপক্ষে সহকারী অ্যাটর্নি জেনারেল তামান্না ফেরদৌস। হাজী সেলিমের পক্ষে ছিলেন আইনজীবী সাঈদ আহমেদ রাজা।

২০০৭ সালের ২৪ অক্টোবর হাজী সেলিমের বিরুদ্ধে রাজধানীর লালবাগ থানায় অবৈধভাবে সম্পদ অর্জনের অভিযোগে মামলা করে দুদক। ওই মামলায় ২০০৮ সালের ২৭ এপ্রিল হাজী সেলিমকে ১৩ বছরের কারাদণ্ড দেন বিচারিক আদালত। এরপর ২০০৯ সালের ২৫ অক্টোবর তিনি ওই রায়ের বিরুদ্ধে হাইকোর্টে আপিল করেন। ২০১১ সালের ২ জানুয়ারি তার সাজা বাতিল করে রায় দেন হাইকোর্ট। পরে হাইকোর্টের রায়ের বিরুদ্ধে আপিল করে দুদক। ওই আপিলের শুনানি শেষে ২০১৫ সালের ১২ জানুয়ারি হাইকোর্টের রায় বাতিল করে ফের হাইকোর্টকে হাজী সেলিমের আপিলের শুনানি করতে নির্দেশ দেন আপিল বিভাগ।

ওই নির্দেশনার পরিপ্রেক্ষিতে মামলাটি শুনানির জন্য উদ্যোগী হয় দুদক। এরই ধারাবাহিকতায় গত বছরের ১১ নভেম্বর আপিলের শুনানিতে হাজী সেলিমের মামলার যাবতীয় নথি (এলসিআর) তলব করেন হাইকোর্ট। ওই নথিপত্র পাওয়ার পর শুরু হয় হাইকোর্টে পুনঃশুনানি। বুধবার শুনানি শেষে রায়ের দিন ধার্য করা হয়।০

মন্তব্য করুন